শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ০৮:৫৩ অপরাহ্ন

যুদ্ধ এবং ‘এআই’

  • Update Time : সোমবার, ২৪ জুন, ২০২৪, ৫.৪৯ পিএম

প্রথমেই জেনে নেয়া যাক এআই (AI) কি ?

AI অর্থাৎ কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রকৃত অর্থে যন্ত্রনির্ভর কম্পিউটার সিস্টেমের একটি বুদ্ধিমত্তা। কম্পিউটার বিজ্ঞানের এই ক্ষেত্রটি মূলত: সফটওয়্যার । এটি কম্পিউটার বিজ্ঞানের গবেষণার একটি ক্ষেত্র যা পদ্ধতি এবং সফ্টওয়্যারগুলিকে বিকশিত করে এবং মেশিনগুলিকে তাদের পরিবেশ বুঝতে সাহায্য করে।

কম্পিউটারের জন্ম যুদ্ধকালে এবং যুদ্ধের মাধ্যমে।১৯৪৪ সালে বিশালকায় কম্পিউটার নাৎসিদের কোড ক্র্যাক করার জন্য নির্মিত হয়েছিল। ১৯৫০এর দশকে কম্পিউটার আমেরিকার বিমান প্রতিরক্ষাকে সুসংগঠিত করেছিল। পরবর্তী দশকগুলিতে, যন্ত্র বুদ্ধিমত্তা যুদ্ধে একটি ছোট ভূমিকা পালন করেছিল। কিন্তু এখন এটি একটি প্রধান বিষয়  হয়ে উঠতে চলেছে।

 

বেসামরিক বিশ্ব যেমন কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার (AI) শক্তি এবং বিস্তারে দ্রুত অগ্রগতি প্রত্যক্ষ করছে, তেমনি সামরিক বিশ্বকেও উদ্ভাবনের জন্য প্রস্তুত হতে হবে। এটি যুদ্ধ পরিস্থিতিকে  যতটা পরিবর্তন করতে পারে তেমনি অস্থিতিশীলও করতে পারে।

অবাক করার বিষয় হলো, এবার যুদ্ধ করতে আর মানুষকে লাগবে না। যুদ্ধ ক্ষেত্রে এক নতুন যুগের সূচনা হতে চলেছে। এবার কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা যুদ্ধের গতিপথ এবং প্রকৃতি পরিবর্তন করবে বলে আশা করা হচ্ছে। ঠিক যেমন বারুদ, ট্যাঙ্ক, বিমান এবং পারমাণবিক বোমা পূর্ববর্তী যুগে যুদ্ধের ধরন পরিবর্তন করেছে। যুদ্ধক্ষেত্রের ভাগ্য পরিবর্তনে ট্যাঙ্কের গুরুত্ব অপরিসীম। একইভাবে, পারমাণবিক বোমার ব্যবহার দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সমাপ্তি চিহ্নিত করেছিল। তবে বর্তমানে রাষ্ট্রগুলি সক্রিয়ভাবে সামরিক সুবিধার জন্য কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার শক্তিকে কাজে লাগাতে চাইছে।

 

আজকের দ্রুত পরিবর্তনের বেশ কিছু কারণ রয়েছে

প্রথমটি হলো, ইউক্রেনের যুদ্ধ ,ছোট, সস্তা চিপগুলি নিয়মিতভাবে রাশিয়ান এবং ইউক্রেনীয় ড্রোনগুলিকে তাদের লক্ষ্যবস্তু করে। একসময় পরাশক্তির ক্ষেপণাস্ত্র বলতে মিসাইলই একমাত্র উল্লেখযোগ্য যুদ্ধাস্ত্র ছিল।

দ্বিতীয়টি হলো , AI-এর সাম্প্রতিক  ধারাবাহিক অগ্রগতি।

তৃতীয়টি হলো, আমেরিকা এবং চায়নার মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতা, যেখানে উভয়েই AI কে সামরিক শ্রেষ্ঠত্বের চাবিকাঠি হিসাবে বিবেচনা করছে।  আবার, বিমান ও নৌ ড্রোন ইউক্রেনের লক্ষ্যবস্তু চিহ্নিতকরণ এবং আক্রমণে  উভয় পক্ষের জন্য গুরুত্বপূর্ণ।

AI এর ভূমিকা জ্যামিংয়ের সমাধান হিসাবে কাজ করে। কারণ এটি একটি ড্রোনকে খুব সহজে  লক্ষ্যবস্তুতে পরিণত করতে পারে। এমনকি যদি জিপিএস সংকেত বা পাইলটের লিঙ্কও বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় তাহলে সেটিকে AI খুঁজে পেতে পারে। কিন্তু সামরিক এআই সম্পর্কে যা সবচেয়ে বেশি দৃশ্যমান সেগুলো ততটা গুরুত্বপূর্ণ নয়। বর্তমানে ‘এআ্ই’ প্রযুক্তিটি কমান্ড এবং নিয়ন্ত্রণের ক্ষেত্রেও বৈপ্লবিক পরিবর্তন ঘটাচ্ছে যা সামরিক অফিসাররা যুদ্ধ সংগঠিত করতে ব্যবহার করে। AI এর একটি শক্তিশালী ক্ষমতা আছে যে, ড্রোন হামলার আগে সে আঁচ করতে পারে। যেহেতু ‘এআই’ খুব দ্রুত গতিতে ডেটা বাছাই করে এবং প্রক্রিয়া করতে পারে তাই এটি হাজার হাজার  উপগ্রহ চিত্র থেকে ট্যাঙ্কগুলোকে চিহ্নিত করতে পারে। আবার আলো, তাপ, শব্দ এবং রেডিও তরঙ্গগুলিকে বাস্তব জিনিস থেকে আলাদা করে ব্যাখ্যা করতে পারে। যুদ্ধ ময়দান থেকে দূরে এটি একটি একক ড্রোনের মুখোমুখি হলেও সমস্যা চিহ্নিত করে সমাধান করতে পারে।

 

তার মানে হল এর কাজ সহজ । যেমন কোন অস্ত্রের  হুমকি মোকাবেলার জন্য কোনটি  সবচেয়ে উপযুক্ত তা খুঁজে বের করা। যুদ্ধ চলাকালীন যে কোনো বিভ্রান্তিকর জটিলতাকে যথাসময়ে দ্রুত বুঝতে সহায়তা করতে পারে। ভবিষ্যতে ‍যুদ্ধক্ষেত্রে  AI এর ভূমিকা কি হবে তা  ধীরে ধীরে  কেবলই স্পষ্ট হয়ে উঠছে। বর্তমানে ভূমি, সমুদ্র এবং বায়ুতে রোবটের সাথে মিলিত এআই সিস্টেমগুলি অভূতপূর্ব গতিতে এবং বিশাল স্কেলে লক্ষ্যগুলি খুঁজে পেতে এবং ধ্বংস করতে পারে। ভবিষ্যতে এই ধরনের যুদ্ধের গতি সৈনিক এবং সফ্টওয়্যারের মধ্যে ভারসাম্য পরিবর্তন করবে। আজকাল যুদ্ধক্ষেত্রে শত্রুপক্ষের নিশানাগুলি খুঁজে বের করতে এবং আঘাত করার সিদ্ধান্ত  মিনিট বা সেকেন্ডে নিয়ে আসা হয়েছে। ভবিষ্যতে মানুষ কাজ না করে শুধু সিস্টেমের  তত্ত্বাবধান করবে। এখানে সুবিধা হল যে AI যুদ্ধক্ষেত্রের একটি পরিষ্কার ধারণা প্রদান করে তাই যারা যুদ্ধ করবেন তাদের জন্য যুদ্ধ করা আরও সহজ হয়ে যায়।

থেমে ভাবার সময় কম থাকবে।

যুদ্ধক্ষেত্রে সেনারা ভয় পাবে কারন তারা যদি তাদের এআই উপদেষ্টাদের আরও বেশি সময় না দেয়, তাহলে তারা এমন একজন প্রতিপক্ষের কাছে পরাজিত হবে। AI-ভিত্তিক যুদ্ধের স্কেল মানে হল যে ভর এবং শিল্প ভান্ডার আজকের তুলনায় আরও বেশি গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠতে পারে।

 

আপনি ভাবতে পারেন নতুন প্রযুক্তি সেনাবাহিনীকে আরও দুর্বল করে দেবে।

কিন্তু যদি সফ্টওয়্যার হাজার হাজার লক্ষ্যবস্তু বাছাই করতে পারে, তাহলে তাদের আঘাত করার জন্য সেনাবাহিনীর হাজার হাজার অস্ত্রেরও প্রয়োজন হবে। এবং যদি প্রতিহতকারী শক্তিশালী হয় তাহলে আক্রমণকারীদের হঠাতে আরও বেশী অস্ত্রের প্রয়োজন হবে। এটিই একমাত্র কারণ নয় যে ‘এআই যুদ্ধ’ বড় বড় দেশগুলির জন্যে ভালো হবে। ড্রোনগুলি সস্তা হতে পারে, কিন্তু ডিজিটাল সিস্টেমের কারনে যুদ্ধক্ষেত্রে ব্যয় বহুলাংশে বেড়ে যাবে। এআই-নির্ভর আর্মি তৈরি এবং গোপন ডেটা পরিচালনা করতে সক্ষম ক্লাউড সার্ভারগুলিতে প্রচুর বিনিয়োগ করতে হবে। সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী এবং বিমান বাহিনী যা আজ তাদের নিজস্ব ডেটা সাইলোতে রয়েছে তাদের একত্রিত করতে হবে। এইসব মডেলদের প্রশিক্ষণের মাধ্যমে বিপুল পরিমাণ ডেটা অ্যাক্সেস করার আহ্বান জানানো হবে।

কোন বড় দেশ AI সবচেয়ে বেশি পছন্দ করে?

তথ্যের প্রাচুর্য্য , ব্যক্তিগত শিল্পের উপর নিয়ন্ত্রণ এবং শিথিল নৈতিক সীমাবদ্ধতার জন্য চায়নাকে একসময় একটি সুবিধাজনক বলে মনে করা হয়েছিল। তবুও এই মুহূর্তে আমেরিকা যুদ্ধের মডেলগুলিতে এগিয়ে আছে যা সামরিক AI এর পরবর্তী প্রজন্মকে একটা বিশেষ অবস্থায় নিয়ে আসতে পারবে।

মতাদর্শের বিষয়গুলি

এটা স্পষ্ট নয় যে কর্তৃত্ববাদী রাষ্ট্রগুলির সেনাবাহিনী এমন একটি প্রযুক্তির সুবিধাগুলি কাজে লাগাতে সক্ষম হবে যা বুদ্ধিমত্তা এবং অন্তর্দৃষ্টিকে সর্বনিম্ন কৌশলগত স্তরে ঠেলে দেয়। দুঃখজনকভাবে, প্রথম এআই-চালিত যুদ্ধ শুরু হলে, আন্তর্জাতিক আইনকে বৃদ্ধাঙ্গুল দেখানো হবে।

সর্বনাশ কিভাবে সীমার মধ্যে রাখা যায় তা নিয়ে আজ ভাবার আরও কারণ রয়েছে

উদাহরণস্বরূপ, পারমাণবিক অস্ত্রের উপর ‘এআই’ এর নিয়ন্ত্রণ বাতিল করার জন্য আমেরিকার আহ্বানে চায়নার মনোযোগ দেওয়া উচিত এবং একবার  এই যুদ্ধ শুরু হলে, মানুষ থেকে মানুষের হটলাইনগুলি আগের চেয়ে আরও গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠবে।

অনিশ্চয়তা অনেক গভীরে

একমাত্র নিশ্চিত বিষয় হল AI-চালিত পরিবর্তন কাছাকাছি আসছে। যে সামরিকবাহিনী সবচেয়ে কার্যকরভাবে প্রযুক্তিগত অগ্রগতির পূর্বাভাস এবং দক্ষতা অর্জন করবে তারাই সম্ভবত বিজয়ী হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

kjhdf73kjhykjhuhf
© All rights reserved © 2024