শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ০৮:৩২ অপরাহ্ন

বিদেশে শিক্ষা বাণিজ্যে পা রাখার চেষ্টা করছে চায়না

  • Update Time : সোমবার, ২৪ জুন, ২০২৪, ৭.৫৪ পিএম

সারাক্ষণ ডেস্ক

দুবাইয়ের একটি চাইনিজ স্কুলে প্রায় ৫০০ জন ছাত্র-ছাত্রী লেখাপড়া করে। এদের বেশিরভাগই চাইনিজ প্রবাসীদের সন্তান যারা চাকরির সুবাদে সংযুক্ত আরব আমিরাতে আছেন।

 

দেশটির একটি উন্নত এলাকার একটি স্কুল ক্যাম্পাসে শিক্ষার্থীরা নিজ দেশের পাঠ্যক্রমে শিক্ষা নেয় ।সেখানকার স্কুল গৃহের একটি দেয়ালে ঝুলতে দেখা যায় তাদের নেতা শি জিনপিংয়ের একটি সুন্দর উদ্ধৃতি। প্রতিষ্ঠানটি ২০২০ সালে একটি পাইলট প্রকল্প হিসেবে খোলা হয়েছিল। বর্তমানে এর আকার দ্বিগুণ বেড়েছে। প্রতিষ্ঠানটি কয়েকটি আন্তর্জাতিক স্কুলের মধ্যে প্রথম যা কমিউনিস্ট পার্টি পৃথিবীর বড় শহরগুলিতে স্থাপনের কথা বলছে। ২০১৯ সালে কর্মকর্তারা বলেছিলেন যে তারা ব্রিটেন এবং আমেরিকাসহ ৪৫টি দেশে চাইনিজ কূটনীতিকদের এই ধরনের প্রতিষ্ঠান তৈরির সম্ভাবনা খোঁজ করতে বলেছিলেন। সাধারনত: আমেরিকান, ব্রিটিশ এবং ফরাসি স্কুলগুলি বেশিরভাগ বড় রাজধানী শহরগুলোতে খুঁজে পাওয়া যায়।

 

কিন্তু যারা চাইনিজ পাঠ্যক্রম শেখায় তাদের সংখ্যা খুবই কম। যদিও ১০ মিলিয়নেরও বেশি চাইনিজ নাগরিক বিদেশে থাকে বলে ধারণা করা হয়। তাই সরকার আশঙ্কা করছে যে ব্যাপারটি চাইনিজ নাগরিকেদের বিদেশে তাদের কোম্পানির জন্য কাজ করতে নিরুৎসাহিত করছে।

যেসব শিশুরা সামান্য সময়ের জন্যে হলেও বিদেশিদের সাথে তাদের শ্রেণীকক্ষ অদলবদল করে তারা চায়নাতে ফিরে গেলেও নিজেদেরকে যোগ্য প্রমাণ করতে সহজেই সংগ্রাম করতে পারে এবং বেশীর ভাগ জয়ী হয়।

মেধাবী শিক্ষার্থীরা ক্রমাগত  শীর্ষ চাইনিজ কলেজগুলোতে সুযোগের জন্যে প্রতিযোগিতা করছে এবং তাই তারা চাইনিজ প্রশংসাপত্র খোঁজে। আন্তর্জাতিক স্কুলগুলির জন্য পার্টির উৎসাহও ইদানীং অনেক বেশী পরিলক্ষিত হচ্ছে। কর্মকর্তারা বিশ্বাস করেন যে এইসব প্রতিষ্ঠানগুলি শেষ পর্যন্ত চাইনিজ প্রবাসী এবং তার বাইরের শিক্ষার্থীদেরও আকৃষ্ট করতে পারবে।

ফ্রান্সের বিদেশে অবস্থিত লাইসিগুলোতে (উচ্চ বিদ্যালয়) মাত্র প্রায় ৪০% শিক্ষার্থী ফরাসি নাগরিক। “আমেরিকান” ব্র্যান্ডেড আন্তর্জাতিক স্কুলের তিন-চতুর্থাংশ তরুণ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বাইরে থেকে এসেছে। ২০২০ সালে চায়না সরকার বলেছিল যে তারা একটি “আন্তর্জাতিক পাঠ্যক্রম” তৈরি করার কথা বিবেচনা করছে, যা চায়নাতে বসবাস করার কোনো পরিকল্পনা নেই এমন মানুষদের জন্য চাইনিজ শিক্ষাব্যবস্থাকে আরও প্রাসঙ্গিক করে তুলতে পারে। এটা যদি ঘটে, তাহলে তত্ত্বগতভাবে এটি বিদ্যমান ডিগ্রি প্রোগ্রামগুলির সাথে প্রতিযোগিতা করবে।

ভেঞ্চার এডুকেশন নামক একটি পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে,  সরকার সমর্থিত প্রকল্পগুলি যেমন দুবাইয়ের স্কুল হলো আন্তর্জাতিক শিক্ষাক্ষেত্রে চায়নার কার্যক্রম বিস্তারের একটি উপায় মাত্র। সম্প্রতি চায়নাতে অতিরিক্ত ধারণক্ষমতাসম্পন্ন বেসরকারি স্কুল পরিচালনাকারী কোম্পানিগুলোকে বিদেশে, বিশেষত এশিয়ায় বিনিয়োগ করতে উৎসাহ দিয়েছে।

তারা যে স্কুলগুলো তৈরি করে, সেগুলোর সাধারণ লক্ষ্য হলো বাজারে যে ধরনের শিক্ষার সবচেয়ে বেশি চাহিদা রয়েছে, সেই ধরনের শিক্ষা প্রদান করা। সময়ের সাথে সাথে মনে হয় যে এই কোম্পানিগুলো চাইনিজ ভাষায় শিক্ষাদান বা চাইনিজ পাঠ্যক্রম নিয়ে আরও বেশি পরীক্ষা-নিরীক্ষা চালাবে—বিশেষ করে যদি পার্টি এটিকে উৎসাহিত করে। এসবের অর্থ হল বিদ্যমান আন্তর্জাতিক স্কুলগুলির জন্য ক্রমবর্ধমান প্রতিযোগিতা সৃষ্টি করা।

ভেঞ্চার এডুকেশনের জুলিয়ান ফিশার বলেন, তাদের অনেকেই বহু চাইনিজ শিক্ষার্থীকে ভর্তি করে। তবে, চাইনিজ আগন্তুকরা যে সুষ্ঠতার সহিত পরিচালনা করবে তার কোনো নিশ্চয়তা নেই। রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন সংস্থাগুলি তাদের সন্তানদের রাষ্ট্রীয় সুবিধাপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানে যুক্ত হতে কর্মীদের উৎসাহিত করার কথা চিন্তা করতে পারে।

যদি এখানে এটা বোঝানো হয় যে চাইনিজ ইন্টারন্যাশনাল স্কুলগুলি সেরা চাইনিজ ইউনিভার্সিটিগুলিতে বিশেষ সুবিধাপ্রাপ্ত ভর্তির সুযোগ দেবে, তবে এটি তাদের একটি অতিরিক্ত উৎসাহ হতে পারে। চাইনিজ-পাঠ্যক্রমের স্কুলের সম্প্রসারণ নিঃসন্দেহে হতাশাজনক প্রোপাগান্ডা সম্পর্কে নতুন ক্ষোভ উস্কে দেবে যে চায়না তার শিক্ষকদের ঠেকাতে চায়।

তার হোস্টদের খুশি রাখার জন্য, দুবাইয়ের স্কুলটি কিছু “দেশপ্রেমিক শিক্ষা” সরিয়ে দিয়েছে যেগুলি সাধারণত চাইনিজ শিক্ষার্থীদের উপর চাপানো হয়েছিল। কিন্তু একটি উচ্চ ঝুঁকি রয়েছে যে, বেইজিং-এর অদম্য রাজনৈতিক চাপে, নতুন চাইনিজ স্কুলগুলি এই ধরনের ফ্ল্যাশপয়েন্টগুলি খারাপভাবে নেভিগেট করে।

 

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

kjhdf73kjhykjhuhf
© All rights reserved © 2024