বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ১১:৫৬ অপরাহ্ন

সরকারি ব্যয়ে কৃচ্ছসাধনে অর্থ মন্ত্রণালয়ের পরিপত্র জারি

  • Update Time : শুক্রবার, ৫ জুলাই, ২০২৪, ৯.৫২ এএম

সারাক্ষণ ডেস্ক

প্রথম আলোর একটি শিরোনাম “যুক্তরাজ্যে লেবার পার্টির নিরঙ্কুশ জয়ের আভাস”

যুক্তরাজ্যের পার্লামেন্ট নির্বাচনে ভোটগ্রহণ শেষে প্রকাশিত বুথ ফেরত জরিপে বিরোধী দল লেবার পার্টির নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতার আভাস পাওয়া গেছে। জরিপে বলা হয়েছে, দলটি ৪১০টি আসনে জয় পেতে পারে।

বুথ ফেরত জরিপে বলা হয়েছে, প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাকের কনজারভেটিভ পার্টি ১৩১টি আসনে জয় পেতে পারে। ৬১টি আসনে জয়ী হয়ে তৃতীয় অবস্থানে থাকতে পারে লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি। আর অন্যান্য রাজনৈতিক দলের মধ্যে রিফর্ম ইউকে ১৩টি, স্কটিশ ন্যাশনালিস্ট পার্টি ১০টি এবং স্বতন্ত্র প্রার্থীসহ অন্য দলের ২৫টি আসনে জয়ের আভাস দেওয়া হয়েছে।

জরিপের ফল প্রকাশের পর তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় লেবার পার্টির ডেপুটি লিডার অ্যাঞ্জেলা রেনার বলেন, ‘এই ফলাফল আমাদের জন্য উৎসাহব্যাঞ্জক। তবে এটি একটি জরিপ। পূর্ণাঙ্গ ফল ঘোষণা পর্যন্ত আমাদের অপেক্ষা করতে হবে।’

বুথ ফেরত জরিপের ফল ঘোষণার পর প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাকের নির্বাচনী আসন ইয়র্কশায়ারের রিচমন্ডে তাঁর বাড়ির আশপাশে সুনসান নীরবতা বিরাজ করছে।

ঋষি সুনাক এক্স পোস্টে লিখেছেন, ‘শত শত কনজারভেটিভ প্রার্থী, হাজার হাজার স্বেচ্ছাসেবক এবং লাখো ভোটারদের কাছে আপনাদের কঠোর পরিশ্রমের জন্য, সমর্থনের জন্য এবং আপনার ভোটের জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ।’

স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার সকাল ৭টায় ভোটগ্রহণ শুরু হয়। শেষ হয় রাত ১০টায়। সবগুলো আসনের ফল পেতে স্থানীয় সময় শুক্রবার সকাল পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।

 

 

ইত্তেফাক এর একটি শিরোনাম “দুর্নীতিতে ডুবছে বঙ্গবন্ধু সুপার স্পেশালাইজড হাসপাতাল”

চরম দুর্নীতি, অনিয়ম ও অব্যবস্থাপনায় ডুবতে বসেছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) ৭৫০ বেডের সুপার স্পেশালাইজড হাসপাতাল। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চেয়েছিলেন, এটি একটি করপোরেট হাসপাতাল হবে, যেখানে ব্রেন ক্যানসার, দুর্ঘটনায় বড় ইনজুরি, কিডনি ও লিভার ট্রান্সপ্লান্ট, ইউরোলজি, কার্ডিয়াক সার্জারি ও কার্ডিওলজিসহ সব ধরনের জটিল রোগের উন্নত চিকিৎসাসেবা দেবে দেশবিদেশি চিকিৎসক-নার্স। চিকিৎসাসেবার জন্য আর যেতে হবে না বিদেশ, যেমন বিদেশে করপোরেট হাসপাতালের সঙ্গে মার্কেট ও ফাইভ স্টার হোটেলও থাকে। আমেরিকা, সিংগাপুর ও থাইল্যান্ডসহ বিভিন্ন দেশে এই ধরনের হাসপাতাল রয়েছে। সেই মডেলেই হাসপাতালটি নির্মাণ করা হয়। প্রয়োজনে দীর্ঘ সময় বা স্বল্প সময়ে বিদেশি ডাক্তার-নার্সও থাকবেন। ‘দেশেই মিলবে বিশ্বমানের চিকিৎসা, যেতে হবে না বিদেশ’—এমন স্লোগানে ২০২২ সালের ১৪ সেপ্টেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদ্বোধন করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) সুপার স্পেশালাইজড হাসপাতালটি। গত বছর লোকবল নিয়োগে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ ওঠার পর থেকে থমকে আছে হাসপাতালটির কার্যক্রম। উদ্বোধনের পর ২০ মাস পেরিয়ে গেলেও এখনো হাসপাতালটি চালু করা হয়নি। অনেক কিছু করে দেখানোর আশা জাগানিয়া প্রতিষ্ঠানটি এখন যেন একটি মূর্তির মতোই দাঁড়িয়ে আছে। বিশাল এই প্রতিষ্ঠান থেকে কার্যত কোনো সেবাই মিলছে না। ২৮৩ কোটি টাকার অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতির বেশির ভাগই নষ্ট হওয়ার উপক্রম হয়েছে।

 

 

যুগান্তরের একটি শিরোনাম “ইউরোপ যেতে নৌকা ডুবে ৮৯ অভিবাসীর মৃত্যু”

আফ্রিকার দেশ মৌরিতানিয়ার উপকূলে অভিবাসীবাহী নৌকাডুবির ঘটনা ঘটেছে। এতে ৮৯ জনের মৃত্যু হয়েছে। নৌকাটি মৌরিতানিয়ার দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলীয় শহর এনদিয়াগো থেকে চার কিলোমিটার দূরে আটলান্টিক মহাসাগরে ডুবে যায়।

গত সোমবার এই হতাহতের ঘটনা ঘটলেও বৃহস্পতিবার দেশটির সরকারি বার্তাসংস্থা এ তথ্য জানিয়েছে। খবর সিএনএনের।

বার্তাসংস্থাটি জানিয়েছে, অভিবাসন প্রত্যাশীদের নিয়ে ছয়দিন আগে এটি গাম্বিয়া-সেনেগাল সীমান্ত থেকে ছেড়ে আসে। নৌকাটির গন্তব্য ছিল ইউরোপ। আর এতে সব মিলিয়ে ১৭০ জন মানুষ ছিলেন।

মৌরিতানিয়ার কোস্টগার্ড লাশগুলো উদ্ধার করেছে। এই অভিবাসন প্রত্যাশীরা একটি বড় মাছ ধরার নৌকায় করে যাচ্ছিলেন। ঐ সময় এটি ডুবে যায়। নৌকাডুবির পর ৯ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে। যার মধ্যে পাঁচ বছর বয়সী একটি শিশুও রয়েছে।

পশ্চিম আফ্রিকার হাজার হাজার মানুষ প্রতি বছর আটলান্টিক মহাসাগর এবং ভূমধ্যসাগর পাড়ি দিয়ে ইউরোপে পৌঁছানোর চেষ্টা করেন। তাদের আশা, ইউরোপে গেলে উন্নত জীবন ও ভালো কাজ মিলবে। তবে উন্নত জীবনের জন্য বিপজ্জনক নৌপথে ইউরোপে আসতে গিয়ে অনেকের সাগরে মিলিয়ে যায়।

আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থার ২০২৪ সালের তথ্য অনুযায়ী, ইউরোপে যেতে অভিবাসন প্রত্যাশীরা যেসব রুট ব্যবহার করেন তার মধ্যে আটলান্টিক মহাসাগরের রুটটি সবচেয়ে দীর্ঘ। এ কারণে বেশিরভাগ মানুষকে দীর্ঘ সময় নৌকায় অবস্থান করতে হয়। এছাড়া যদি কোনো দুর্ঘটনা ঘটে তাহলে সেখানে উদ্ধারকারীরাও তাৎক্ষণিকভাবে পৌঁছাতে পারেন না।

 

 

বণিক বার্তার একটি শিরোনাম “সরকারি ব্যয়ে কৃচ্ছসাধনে অর্থ মন্ত্রণালয়ের পরিপত্র জারি”

বর্তমান বৈশ্বিক অর্থনৈতিক পরিস্থিতিতে সরকারি ব্যয়ে কৃচ্ছসাধনের লক্ষ্যে নতুন এক পরিপত্র জারি করেছে অর্থ মন্ত্রণালয়। পরিপত্রে বিদেশভ্রমণ থেকে শুরু করে সরকারের বিভিন্ন খাতে বরাদ্দ করা অর্থের ব্যয় সংক্রান্ত দিকনির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

 

 

মানবজমিনের একটি শিরোনাম “বিএনপি’র অবস্থান সবসময় গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের বিপরীত মেরুতে”

বিএনপি কখনোই গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দল হয়ে উঠতে পারেনি বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। বলেন, বিএনপি’র অবস্থান সবসময় গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের বিপরীত মেরুতে। বিএনপি ও তাদের দোসররা তাদের সেই আদর্শগত অবস্থান পরিবর্তন না করায় আমাদের গণতান্ত্রিক রাজনীতিতে বিরাজমান সংকটের সমাধান দুরূহ। এই সংকট মোকাবিলায় মহান মুক্তিযুদ্ধের আদর্শ ও গণতান্ত্রিক চেতনায় বিশ্বাসী সবাইকে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে। গতকাল গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে ওবায়দুল কাদের এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, মিথ্যাচার এবং অপপ্রচার বিএনপি’র একমাত্র রাজনৈতিক হাতিয়ারে পরিণত হয়েছে। বেগম খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা নিয়েও তারা মিথ্যাচার করছে। খালেদা জিয়া চিকিৎসা গ্রহণ শেষে বাসায় ফিরে গেছেন। বিএনপি নেত্রীর মুক্তি কোনো রাজনৈতিক বিষয় না। এটা আইনগত বিষয়।

আইনগত বিষয়ে বিএনপি আইনি প্রক্রিয়ায় মোকাবিলা না করে বিষয়টিকে রাজনৈতিক ইস্যু বানানোর অপচেষ্টা চালাচ্ছে। ওবায়দুল কাদের বলেন, বিগত কয়েক বছর ধরে বিএনপি খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলন করছে। কিন্তু, সেই আন্দোলনে জনগণের কোনো সম্পৃক্ততা নেই। বিএনপি জনগণের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট ইস্যুকে প্রাধান্য না দিয়ে একটি অরাজনৈতিক বিষয়কে রাজনৈতিক ইস্যু করার অপচেষ্টা চালাচ্ছে। বিএনপি যখনই তাদের তথাকথিত আন্দোলন নিয়ে মাঠে নামে তখন তারা তাদের সন্ত্রাসী ও ক্যাডার বাহিনীকে সক্রিয় করে। আর এসব সন্ত্রাসীর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করলে বিএনপি নেতারা মিথ্যাচার ও অপপ্রচারের মাধ্যমে বিভ্রান্তি ছড়ায়। ওবায়দুল কাদের বলেন, আওয়ামী লীগ কখনো অসাংবিধানিক ও অগণতান্ত্রিক উপায়ে ক্ষমতায় যায়নি। আওয়ামী লীগ সবসময় গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় জনগণের ম্যান্ডেট নিয়ে ক্ষমতায় এসেছে। গত ৭ই জানুয়ারি দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মধ্যদিয়ে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করে। তিনি বলেন, দেশের গণতান্ত্রিক ও সাংবিধানিক প্রক্রিয়াকে বাধাগ্রস্ত করার জন্য বিএনপি ও তার দোসররা সর্বদা তৎপর থেকেছে। এটা বিএনপি’র জন্মগত রাজনৈতিক লিগ্যাসি। আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, বিএনপি যদি গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় আন্দোলন করতে সক্ষম হতো বা তাদের আন্দোলনে জনসম্পৃক্ততা বৃদ্ধি করতে পারতো তাহলে তারা নির্বাচনে অংশগ্রহণের সৎ সাহস দেখাতে পারতো। সেটা না থাকার কারণে বরাবরই বিএনপি সন্ত্রাস ও সহিংসতার পথ বেছে নিয়েছে। ওবায়দুল কাদের বলেন, আমরা দৃঢ়ভাবে বলতে চাই, যারা গণতান্ত্রিক পন্থায় ব্যত্যয় ঘটাতে সন্ত্রাস-সহিংসতাকে উস্কে দেয়ার পাঁয়তারা করবে তাদের বিরুদ্ধে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করবে।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

kjhdf73kjhykjhuhf
© All rights reserved © 2024