বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ১১:৫৩ পূর্বাহ্ন

তুরস্কে খোঁজ মিলল রাজা মিডাসের শহরের

  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২১ মার্চ, ২০২৪, ৬.১৯ পিএম

সারাক্ষণ ডেস্ক

 

তুরস্কে একটি প্রাচীন শহরের খোঁজ পাওয়া গেছে। নাম গর্ডিয়ন। গর্ডিয়ন, একসময় শক্তিশালী ফ্রিজিয়ান রাজ্যের রাজধানী ছিল। 

এ রাজধানীর ঐতিহাসিক গুরুত্ব এ কারনেই যে এটার  রাজা  ছিলেন ইতিহাসের কিংবদন্তি মিডাস ।

কমপক্ষে ৪ হাজার ৫ শত বছরের পুরানো ফ্রেজিয়ার লৌহ যুগের রাজ্যের প্রাচীন এই রাজধানী ।

গর্ডিয়নে যদি আপনি যান সেখানে শুধুমাত্র একটি প্রাচীন শহরের ধ্বংসাবশেষেরই মুখোমুখি হবেন না, এক পৌরাণিক কাহিনী এবং কিংবদন্তির ছায়াও দেখতে পাবেন প্রতিটি পরতে পরতে। এবং যা আজকের  সংস্কৃতির রূপকার হিসেবে হিসেবে মনে হবে।

শুধুমাত্র ইতিহাস অনুরাগীদের জন্যই নয়, পৌরাণিক কাহিনী এবং কিংবদন্তি প্রেমীদের জন্যও গর্ডিয়ন একটি মনোমুগ্ধকর গন্তব্য।

বাস্তবে এমন একটি জায়গা যেখানে ইতিহাস এবং পৌরাণিক কাহিনী একত্রিত হয়েছে। যা একটি অতীতকে সকলের সামনে জীবন্ত করে দাঁড় করিয়ে দেয়।

গর্ডিয়ন এখন একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রত্নতাত্ত্বিক স্থান। খননের ফলে তথাকথিত মিডাস ঢিবি সহ অসংখ্য নিদর্শন, বিল্ডিং কাঠামো এবং বৃহৎ তুমুলী পাওয়া গেছে।

এই খনন অনুসন্ধানে ফ্রিজিয়ান এবং তাদের প্রতিবেশীদের দৈনন্দিন জীবন, ধর্ম, শিল্প এবং সংস্কৃতির ধারনা পাওয়া যায়।

গর্ডিয়ন ছিল প্রাচীন ফ্রিজিয়ার রাজধানী, বর্তমান সময়ে অবস্থিত তুরস্ক আঙ্কারার প্রায় ৯০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে বর্তমানের ইয়াসিহুইক গ্রামের কাছে।

এটি খ্রিস্টপূর্ব ১২ তম থেকে ৭ম শতাব্দী পর্যন্ত বিকাশ লাভ করে। খ্রিস্টপূর্ব ওই সময়ে এই রাজ্যের রাজারা যে ধনী ছিলেন তা , অত্যাধুনিক শিল্প এবং জটিল স্থাপত্যেই বুঝিয়ে দেয়। এশিয়া মাইনরের প্রাচীন ভৌগোলিক ও রাজনৈতিক ল্যান্ডস্কেপে শহরটি মূলত একটি কেন্দ্র হিসেবে তখন নিজের অবস্থান তৈরি করেছিলো।

বর্তমানে গর্ডিয়নকে এক সময়ের শক্তিশালী শহরের চেয়ে একটি খনি বা বিলুপ্ত আগ্নেয়গিরির ধসে পড়া গর্তের মতো দেখায়। একটি বিশাল ঢিবির মত। এটি ১ লাখ ৩৫ হাজার বর্গ মিটার জুড়ে।

একটি দুর্গের শেষ চিহ্ন। আশেপাশের ল্যান্ডস্কেপের মত একটি বালুকাময় পথ।

সম্প্রতি তুরস্কের ২০ তম ইউনেস্কো ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ হিসেবে এটাকে চিহ্নিত করা হয়েছে।

সেখানে গেলে দেখতে পাবেন উন্মুক্ত একটি জায়গায় খননকাজ চলছে। দেখবেন প্রাচীর এজেন্টের ফ্লোর প্ল্যানের মতো প্রাচীন অট্টালিকা এবং দেওয়ালের ধসে পড়া চিহ্ন।  কয়েক ডজন ছোট টিলা রয়েছে।

১০ মিটার উঁচু বিশাল পাথরের দেয়াল। স্মৃতিস্তম্ভের প্রবেশদ্বারটিই  ইঙ্গিত দেয় যে এটি একসময় লৌহ যুগের অন্যতম সেরা রাজ্যের রাজধানী ছিল।

পেনসিলভানিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রত্নতত্ত্বের অধ্যাপক ব্রায়ান রোজ ২০০৭ সাল থেকে গর্ডিয়ন খননের নেতৃত্ব দিচ্ছেন।

তিনি বলেন, অনেকেই ফ্রিজিয়ানদের কথা জানেন না। কিন্তু খ্রিস্টপূর্ব ৯ম থেকে ৭ম শতাব্দী পর্যন্ত তারা এশিয়ায় আধিপত্য বিস্তার করেছিল – যা এখন তুরস্ক।

“গর্ডিয়ন প্রধান পূর্ব-পশ্চিম বাণিজ্য রুটের সংযোগস্থলে অবস্থিত: পূর্বে অ্যাসিরিয়া, ব্যাবিলন এবং হিট্টাইটদের সাম্রাজ্য ছিল এবং পশ্চিমে ছিল গ্রীস এবং লিডিয়া। ফ্রিজিয়ানরা এই কৌশলগত অবস্থানের সুবিধা নিতে সক্ষম হয়েছিল। এবং ধনী ও ক্ষমতাশালী হয়ে ওঠেন।”

শহরটি অনেক শাসক এবং সংস্কৃতির ধারা বহন করছে। যার প্রত্যেকেই কিছু না কিছু তাদের চিহ্ন রেখে গেছেন। এখানকার প্রত্নতাত্ত্বিক নিদর্শনগুলি চিত্তাকর্ষক এবং ফ্রিজিয়ান স্থাপত্য, শিল্প এবং দৈনন্দিন জীবন সম্পর্কে ধারণা দেয়।

রাজা মিডাস ছিলেন প্রাচীন বিশ্বের অন্যতম বিখ্যাত ব্যক্তিত্ব । যা গ্রীক পুরাণ থেকে তার “সোনার স্পর্শ” এর জন্য পরিচিত। তিনি ফ্রিজিয়ার একজন ঐতিহাসিক রাজা ছিলেন। যদিও তার চারপাশের অনেক গল্পই ঐতিহাসিকের চেয়ে বেশি পৌরাণিক।

সবচেয়ে বিখ্যাত গল্পগুলির মধ্যে একটি হলো কীভাবে তিনি দেবী ডায়োনিসাসের কাছে তার স্পর্শ করা সমস্ত কিছু সোনায় পরিণত করার ক্ষমতা চেয়েছিলেন। যা শেষ পর্যন্ত অভিশাপ হিসাবে প্রমাণিত হয়েছিল। মিডাসের ঐতিহাসিক বাস্তবতা গর্ডিয়নের প্রত্নতাত্ত্বিক স্তরগুলিতে সমাহিত। যেখানে একটি বড় টিউমুলাস (কবরের ঢিবি) পাওয়া গেছে।

 

বিবিসির প্রতিবেদন অবলম্বনে

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

kjhdf73kjhykjhuhf
© All rights reserved © 2024