সোমবার, ২২ জুলাই ২০২৪, ০৯:৪৭ পূর্বাহ্ন

মাকে হারিয়ে ভেঙে পড়েছেন পূজা চেরি

  • Update Time : রবিবার, ২৪ মার্চ, ২০২৪, ৮.৫৪ পিএম

বিনোদন সারাক্ষণ:

অসুস্থ মাকে নিয়ে অনেক দিন ধরেই দুশ্চিন্তা, ছুটোছুটির মধ্যে ছিলেন চিত্রনায়িকা পূজা চেরী। চিকিৎসা চলছিল নিয়মিত। কিন্তু সুস্থতায় আর ফেরা হয়নি। রবিবার (২৪ মার্চ) সকাল পৌনে ১১টার দিকে মারা গেছেন পূজার মা ঝর্ণা রায়।

মাতৃহারা হয়ে স্তব্ধ, দিশেহারা পূজা। কেননা, অন্য সবার মতো মায়ের কোলে তিনি বেড়ে উঠেছেন বটে। উপরন্তু তার শোবিজ জগতে পথচলার পুরোটাজুড়েই মা ছিলেন পাশে, ছায়ার মতো। সেই ছায়া এবার চিরতরে হারিয়ে গেলো।

হৃদয়ের জমাট কষ্ট তাই কিছুটা প্রকাশ করলেন পূজা। সোশ্যাল হ্যান্ডেলে অ্যাম্বুলেন্সের ছবি পোস্ট করে নায়িকা লিখলেন, ‘এভাবে আমাকে একা করে দিলা মামুনি? এইটা তো কথা ছিল না। তুমি না বলছিলা আমার পাশে সবসময় থাকবা। আমার এখন কী হবে? আমি কাকে আমার সব কথা বলবো মামুনি? কত কথা জমা হয়ে আছে; ভেবেছিলাম তুমি সুস্থ হলে সব কথা গড়গড় করে বলবো। কিন্তু এইটা কী হলো?’

মায়ের সাথে পুজা চেরি (পূজা ও তার মা ঝর্ণা রায়)

মায়ের উদ্দেশে দুঃখ-অভিমানে মোড়া প্রশ্ন ছুড়ে পূজা বলেছেন, ‘তুমি তোমার এই মেয়ের কথা চিন্তা করলে না? বুকে আটকে থাকা এই কষ্ট নিয়ে কীভাবে আমি সারা জীবন পার করবো? বলো তুমি? মা, মাগো, পারলে আমাকে মাফ করে দিও মা। একমাত্র তুমি ছিলে, যার সাথে হাসতাম, রাগ হলে চিৎকার করতাম, আবার অন্যের রাগও তোমার ওপর ঝাড়তাম। আহ, তখন কী যে শান্তি লাগতো। কিন্তু এখন! মামুনি বলারও কেউ নাই।’

মায়ের শান্তি কামনা করে পূজা লিখেছেন, ‘নিজেকে এখন সান্ত্বনা দিচ্ছি, সবাইকে চলে যেতে হয়। চিন্তা করো না মামুনি, তোমার কাছে একদিন না একদিন আমিও আসবো। তোমার পিছু তোমার এই মেয়ে ছাড়বে না, বলে দিলাম। ভালো থেকো মা আমার।’

 

প্রসঙ্গত, ২০১২ সালে ‘ভালোবাসার রঙ’-এ শিশুশিল্পী হিসেবে সিনেমায় আত্মপ্রকাশ করেন পূজা চেরী। এরপর ২০১৮ সালে ‘নূরজাহান’ সিনেমার মাধ্যমে বড় পর্দায় নায়িকা চরিত্রে আত্মপ্রকাশ করেন তিনি। একই বছর ‘পোড়ামন ২’ ছবিতে অভিনয় করে দারুণ জনপ্রিয়তা পান। পরবর্তীতে পূজাকে দেখা গেছে ‘দহন’, ‘প্রেম আমার ২’, ‘শান’, ‘গলুই’, ‘হৃদিতা’, ‘জ্বীন’ ছবিতে।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

kjhdf73kjhykjhuhf
© All rights reserved © 2024