শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ০৮:৪২ পূর্বাহ্ন

কাতারের আমিরকে স্বাগত জানালেন রাষ্ট্রপতি

  • Update Time : সোমবার, ২২ এপ্রিল, ২০২৪, ৯.০৬ পিএম

 

হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে সোমবার (২২ এপ্রিল) বিকালে কাতারের আমির শেখ তামিম বিন হামাদ আল থানিকে স্বাগত জানান রাষ্ট্রপতি মোঃ সাহাবুদ্দিন। এ সময় লাল গালিচা সংবর্ধনা দিয়ে স্বাগত জানানো হয়। বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতির আমন্ত্রণে ২ দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে বিকাল ৫টায় কাতারের আমির আসেন।

রাষ্ট্রপতি ও আমির বিমানবন্দরে ফুল বিনিময় করেন এবং সালাম গ্রহণের পর উপস্থাপনা লাইনে বাংলাদেশ ও কাতারের প্রতিনিধিদের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন।

সফরকালে রাষ্ট্রপতি সাহাবুদ্দিন মঙ্গলবার দরবার হলে আমিরের সম্মানে আনুষ্ঠানিক মধ্যাহ্নভোজ এবং বঙ্গভবনে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করবেন।

অন্যদিকে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ শেষে সফররত আমির পরিদর্শন বইয়ে সই করবেন।

রবিবার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাছান মাহমুদ জানান, বাংলাদেশ ও কাতারের মধ্যে ১১টি সহযোগিতার বিষয়ে ৬টি চুক্তি ও ৫টি সমঝোতা স্মারক সই হবে।

প্রায় ১৯ বছর পর বন্ধুপ্রতীম দেশ কাতার থেকে ২৪ ঘণ্টা স্থায়ী এমন উচ্চ পর্যায়ের সফর হচ্ছে।

এর আগে ২০০৫ সালের এপ্রিলে কাতারের তৎকালীন আমির শেখ হামাদ বিন খলিফা আল-থানি বাংলাদেশ সফর করেন।

মঙ্গলবার সকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমিরকে তার কার্যালয়ে অভ্যর্থনা জানাবেন।

 

তারা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে একান্ত বৈঠক করবেন, এরপর দ্বিপক্ষীয় বৈঠক, ৬টি সমঝোতা স্মারকসহ ২ দেশের মধ্যে একাধিক সহযোগিতা নথি সই প্রত্যক্ষ করবেন এবং একটি যৌথ সংবাদ সম্মেলনে অংশ নেবেন।

সেখানে পরিদর্শন বইয়ে সই শেষে আমির মঙ্গলবার বিকালে বঙ্গভবনের উদ্দেশে যাত্রা করবেন এবং রাষ্ট্রপতি তাকে অভ্যর্থনা জানাবেন।

ওইদিন বিকাল ৩টায় ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) আওতাধীন মিরপুরের কালশী এলাকায় পার্ক এবং বিকাল ৩টায় মিরপুর ইসিবি চত্বর থেকে কালশী ফ্লাইওভার পর্যন্ত সড়ক উদ্বোধন করবেন তিনি।

মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টায় একটি বিশেষ ফ্লাইটে তার হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ত্যাগ করার কথা রয়েছে।

১৯৭৪ সালের ফেব্রুয়ারিতে অনুষ্ঠিত দ্বিতীয় ওআইসি শীর্ষ সম্মেলনের পর ১৯৭৪ সালের ৪ মার্চ কাতার বাংলাদেশকে একটি সার্বভৌম রাষ্ট্র হিসেবে স্বীকৃতি দেয়।

১৯৭৫ সালের ২৫ জুন দোহায় বাংলাদেশ তার কূটনৈতিক মিশন চালু করে। ১৯৮২ সালে ঢাকায় কূটনৈতিক মিশন খোলার মাধ্যমে প্রতিদান দেয় কাতার।

বাংলাদেশ ও কাতারের মধ্যকার দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক পারস্পরিক শ্রদ্ধা, অভিন্ন মূল্যবোধ, অভিন্ন ধর্মীয় ভিত্তি, অভিন্ন সংস্কৃতি এবং ঐতিহ্যের ওপর ভিত্তি করে প্রতিষ্ঠিত।

সুশৃঙ্খল ও পরিশ্রমী হিসেবে অত্যন্ত প্রশংসিত চার লাখেরও বেশি বাংলাদেশি কর্মীর সঙ্গে যোগাযোগ দ্বিপক্ষীয় সম্পর্কের অন্যতম প্রধান বৈশিষ্ট্য বলে জানিয়েছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

বাংলাদেশ ও কাতার বাংলাদেশের রূপকল্প ২০৪১ এবং কাতারের রূপকল্প ২০৩০ বাস্তবায়নে একে অপরকে ভ্রাতৃপ্রতিম দেশ এবং গুরুত্বপূর্ণ উন্নয়ন সহযোগী হিসেবে বিবেচনা করে।

 

ইউএনবি নিউজ

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

kjhdf73kjhykjhuhf
© All rights reserved © 2024