শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ০৪:৫৫ পূর্বাহ্ন

জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে হুমকির মুখে একটি বিরল চলমান ঘটনা

  • Update Time : বুধবার, ১ মে, ২০২৪, ৪.৪২ পিএম
একটি গ্রুনিয়ন প্রেমিক সমূদ্র সৈকতে গ্রুনিয়নদের পর্যবেক্ষণ করছেন

সারাক্ষণ ডেস্ক

বসন্ত ঋতু হল বাতাসে, সমুদ্রে এবং স্থলে অনেক প্রজাতির জন্য একটি অত্যাবশ্যক ঋতু – সেটা তাদের স্থানান্তর, সঙ্গীমিলন বা রূপান্তরের সময় যাইই হোক না কেন। জলবায়ু পরিবর্তন, ইতিমধ্যে প্রাণীদের জন্য জীবনকে কঠিন করে তুলছে, যাদের সামনে কঠিন ভবিষ্যতের পথ রয়েছে। কখনও কখনও সেই যাত্রাগুলি ছোট হয়, মাছের মতো যা একটি অদ্ভুত মিলনের নিয়মের জন্য ক্যালিফোর্নিয়ার সমুদ্র সৈকতে জলকেলি করে। পরিযায়ী পাখিদের জন্য, সেই যাত্রা অর্ধেক বিশ্বের মতো বিস্তৃত হতে পারে। ভবিষ্যৎ পৃথিবীর এই প্রাণীভরা সংস্করণে, আমরা দেখতে পাই যে আমরা কীভাবে পরিবর্তন করতে পারি কারণ মানুষ এসব প্রাণীদের বেঁচে থাকার সুযোগকে সাহায্য করতে পারে – সেই কৌতূহল থেকেই ক্যালিফোর্নিয়ান মাছ দিয়ে এটা শুরু করা হয়েছে।

দক্ষিণ ক্যালিফোর্নিয়ার শীতল বালিতে রূপালী মাছের কিলিবিলি( ফ্লিপ-ফ্লপ)। আজকের  পূর্নিমার চাঁদ তাই আমার হেডটর্চটি কাজে লাগলো। এভাবেই শুরু করলেন তিনি।

আমি সতর্ক আছি যে শত শত ক্ষুদ্র অ্যাঙ্কোভি-সদৃশ মাছের উপর আলো জ্বলবে না যেগুলি বালির উপর নিজেরা লুটোপুটি খাচ্ছে। এটি তাদের চমকে দেয়, তাই কারেন মার্টিন, বিজ্ঞানী এবং দীর্ঘদিনের গ্রুনিয়ন-প্রেমিক, আমাকে জানান  টর্চের আলো পড়লে তাদের সঙ্গমের আচারে বাধা হতে পারে।

মার্টিন, যিনি মালিবুর পেপারডাইন ইউনিভার্সিটির জীববিজ্ঞানের বিশিষ্ট প্রফেসর ইমেরিটাস, তিনি ক্যালিফোর্নিয়ার সমুদ্র সৈকতে প্রজনন করতে আসা হাজার হাজার গ্রুনিয়নের কী ঘটছে তা খুঁজে বের করার জন্যে তার মিশন তৈরি করেছেন।

তাদের পর্যবেক্ষণ করা কঠিন কারণ তারা অন্যান্য মাছের মতো বরশিতে আটকায়না এবং তারা ট্রলারের জালও এড়িয়ে যায়। তাদের কিছু বরং আকর্ষণীয় এবং নির্দিষ্ট বংশবিস্তারের অভ্যাস আছে।

গ্রুনিয়ানস সৈকতে সঙ্গম করছে

তারা শুধু একটি পূর্নিমা এবং একটি নতুন চাঁদের পরে চারটি উচ্চ জোয়ারের সময় তীরে আসে এবং শুধু ফেব্রুয়ারি এবং সেপ্টেম্বরের মধ্যে, যদিও পিক সিজন এপ্রিল থেকে জুন পর্যন্ত।

যদিও এটি মার্টিনের গ্রুনিয়ন অভিবাদনকারীদের বাধা দেয় না – জনসাধারণের সদস্য যারা আন্তরিকভাবে মার্টিনের প্রশ্নাবলী পূরণ করেন তারা কোথায় গ্রুনিয়ন দেখেছেন, কোন অস্বাভাবিক দেখা, কতজন দেখেছেন ইত্যাদি তথ্য দিয়ে।

উদ্ধারকে অভিবাদন

জলবায়ু পরিবর্তন গ্রুনিয়নের বেঁচে থাকার জন্য একটি চ্যালেঞ্জ। বায়ুমণ্ডলে কার্বন ডাই অক্সাইডের মাত্রা বৃদ্ধির সাথে সাথে সমুদ্রের অম্লতাও বৃদ্ধি পায়। অন্যান্য অনেক মাছের মতো গ্রুনিয়নের ডিমও অ্যাসিডিটির প্রতি অত্যন্ত সংবেদনশীল।

কয়েক দশক আগে, প্রায়শই একটি সমুদ্র সৈকতে এত বেশি গ্রুনিয়ন জন্মে যে বালি দেখা অসম্ভব ছিল। এখন প্রতি বছরই তাদের সংখ্যা কম হচ্ছে।

তারা খাবার এবং খেলাধুলার জন্য স্থানীয়দের দ্বারা আটকা পড়ে যখন তারা প্রজননের জন্যে তীরে আসে। তাদের জন্মের স্থলগুলি উন্নয়ন, দূষণ, ক্ষয়ের হুমকিতে  আছে  এবং সাথে এটাও সত্য যে এই সৈকতগুলি ক্যালিফোর্নিয়ার সবচেয়ে জনপ্রিয় পর্যটন গন্তব্যগুলির মধ্যে একটি।

গ্রুনিয়নের জন্য সমুদ্র সৈকতকে নিরাপদ করার পদক্ষেপগুলি – যেমন বছরের প্রধান অংশগুলিতে সেগুলিতে বিচরণ করা থেকে বিরত থাকা –যা  মাছগুলিকে বেঁচে থাকতে সাহায্য করার জন্য গুরুত্বপূর্ণ হতে পারে৷ যেখানে গ্রুনিয়ন গ্রিটাররা আসে।

নাগরিক বিজ্ঞানীদের ছাড়া এই মাছগুলি সম্পর্কে আমাদের বোঝা অনেক কম হবে, যাদের ডেটা মাছটিকে বেঁচে থাকতে সাহায্য করার জন্য বেশ কয়েকটি সুরক্ষামূলক ব্যবস্থার নেতৃত্ব দিয়েছে।

প্রতিকূলতার বিপরীতে, মার্টিন আশাবাদী – তিনি এই বিরল মাছটির বেঁচে থাকার জন্য লড়াই করছেন,।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

kjhdf73kjhykjhuhf
© All rights reserved © 2024