মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ০২:২৫ অপরাহ্ন

দিল্লি বিমানবন্দরে বাংলাদেশি গার্মেন্টসের রপ্তানি বাড়ায় ভারতীয় ব্যবসায়ীদের আপত্তি

  • Update Time : রবিবার, ৫ মে, ২০২৪, ৫.৩৪ পিএম
দিল্লি হয়ে বাংলাদেশি গার্মেন্টস রফতানি বেড়ে যাওয়ায় সমস্যায় ভারতীয় রফতানিকারকরা - প্রতীকী চিত্র

অমিতাভ ভট্টশালী

ইউরোপসহ নানা দেশে রপ্তানির জন্য দিল্লি বিমানবন্দরে বাংলাদেশ থেকে আসা তৈরি পোশাকের পরিমাণ এতটাই বেড়ে গেছে যে ভারতীয় রপ্তানিকারকেরা চাইছেন তাদের পণ্যকে অগ্রাধিকার দেওয়া হোক।

নিজেদের রপ্তানি পণ্যের জন্য বাড়তি মাশুল দিয়ে জায়গা নিতে বাধ্য হচ্ছেন, এমনটাও জানাচ্ছেন ভারতীয় রপ্তানিকারকেরা।

বিষয়টি নিয়ে ভারতের বাণিজ্য মন্ত্রকের সঙ্গে ইতিমধ্যেই দুদফায় আলোচনা করেছেন ভারতীয় রপ্তানিকারকদের শীর্ষ সংগঠনগুলি।

দিল্লি হয়ে রপ্তানির জন্য বাংলাদেশে গার্মেন্টসের পরিমাণ বৃদ্ধি ঘটেছে এ বছর জানুয়ারি মাস থেকে।

তবে বাংলাদেশ গার্মেন্ট ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন বিজিএমইএ বলছে যে, ভারতীয় রপ্তানিকারকদের দাবি খুবই অযৌক্তিক।

কারণ বাংলাদেশের গার্মেন্টস রপ্তানির সামান্য একটা অংশই ভারতের মাধ্যমে যায়। ফলে তাদের পণ্যের কারণে দিল্লি বিমানবন্দরে ‘মালামালের জট’ লাগার কথা না।

আগে ঢাকা থেকে কলকাতা বিমানবন্দর হয়ে বাংলাদেশের তৈরি পোশাকের একটা অংশ রপ্তানি হত ইউরোপ, যুক্তরাষ্ট্র সহ বিভিন্ন দেশে।

গত বছর অর্থাৎ ২০২৩ সাল থেকে কলকাতা বিমানবন্দর দিয়ে বাংলাদেশি গার্মেন্টস রপ্তানি বন্ধ হয়ে তা চলে যায় দিল্লিতে।

দিল্লি বিমানবন্দরের কার্গো টার্মিনাল – ফাইল ছবি

সম্প্রতি দৈনিক প্রায় ৩০ ট্রাক ভর্তি বাংলাদেশি গার্মেন্টস পণ্য রপ্তানির জন্য দিল্লির ইন্দিরা গান্ধী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের কার্গো টার্মিনালে পৌঁছাচ্ছে বলে জানা যাচ্ছে।

ভারতীয় পণ্যের অগ্রাধিকার দাবি – কী বলছে বিজিএমইএ?

বাংলাদেশি তৈরি পোশাক পণ্যের কারণে দিল্লি বিমানবন্দরে যে সমস্যার সম্মুখীন হতে হচ্ছে ভারতীয় রপ্তানিকারকদের, তার সমাধান হিসাবে ভারতীয় রপ্তানি পণ্যকে অগ্রাধিকার দেওয়ার দাবি উঠেছে।

ভারতীয় রপ্তানিকারকদের একাংশ থেকে দাবি উঠছে যে, বাংলাদেশি তৈরি পোশাক পণ্য – যা দিল্লি বিমানবন্দরের মাধ্যমে পশ্চিমা দেশগুলিতে পাঠানো হচ্ছে, তার ওপরে একটা ‘ল্যান্ডিং চার্জ’ বসানো হোক।

তার ফলে বাংলাদেশি রপ্তানি পণ্যের ওপরে বাড়তি মাশুল চাপবে, এতে ভারত হয়ে বাংলাদেশি পণ্য রপ্তানি কমবে।

কিন্তু এর সঙ্গে একমত নন অ্যাপারেল এক্সপোর্ট প্রোমোশন কাউন্সিলের চেয়ারম্যান সুধীর সেখরি।

তিনি বিবিসিকে বলেছেন, “বাংলাদেশি পণ্যের ওপরে ল্যাণ্ডিং চার্জ লাগালে তাতে ভারতীয় রপ্তানিকারকদের কোনও সুবিধাই হবে না। এতে বাংলাদেশি রপ্তানিকারকদের বাড়তি খরচ হবে, কিন্তু তাতে আমাদের তো কোনও লাভ নেই। ওই ল্যাণ্ডিং চার্জ তো যাবে বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষের কাছে।”

“আমরা সরকারের সঙ্গে দুই দফায় আলোচনা করেছি। যেটা সরকারের করা উচিত, তা হল পরিকাঠামো উন্নত করা, পণ্যবাহী বিমান ভারতে আসার ব্যাপারে যেসব নিয়ন্ত্রণ চালু আছে, সেগুলো তুলে নিয়ে আরও বেশি বিমান এখানে আসার ব্যবস্থা করা।

আর যতক্ষণ না সেটা করা যাচ্ছে, ততক্ষণ বাংলাদেশি রপ্তানি পণ্যের ওপরে একটা লাগাম টানা দরকার,” বলছিলেন মি. সেখরি।

এদিকে, বাংলাদেশ গার্মেন্ট ম্যানুফ্যাকচারার্স অ্যান্ড এক্সপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশন বিজিএমইএ-ও ভারতীয় রপ্তানিকারকদের মতোই প্রতিক্রিয়া দিয়েছে। সংস্থাটি বলছে, দিল্লি বিমানবন্দরের পরিকাঠামো উন্নত করলেই এই সমস্যার সমাধান সম্ভব।

বিজিএমইএর পরিচালক মহিউদ্দিন রুবেল বিবিসি বাংলার তারেকুজ্জামান শিমুলকে বলেছেন, “আমার জানামতে, বাংলাদেশের গার্মেন্টস পণ্যের সামান্য কিছু অংশ ভারত হয়ে যায়। কিন্তু তার জন্য ভারতীয়দের পণ্য রপ্তানিতে সমস্যা হবে বা এয়ারপোর্টে মালামালের জট লেগে যাবে, সেটি হওয়ার কথা না।

কিন্তু বাস্তবে যদি এমনটি সত্যিই হয়ে থাকে, তাহলে সেক্ষেত্রে বাংলাদেশি পণ্যের উপর এক্সট্রা ল্যান্ডিং চার্জ বসানোর দাবি না তুলে, বরং তাদের উচিৎ বিমানবন্দরের সক্ষমতা বাড়ানোর বিষয়ে কথা বলা।”

বিষয়টি নিয়ে ভারত সরকারের সঙ্গে কথাবার্তা হলেও এখনও তা চূড়ান্ত পর্যায় যায় নি ভারতে চলমান নির্বাচনের কারণে।

তবে, ভারতীয় রপ্তানিকারকদের শীর্ষ সংগঠন ফেডারেশন অফ ইন্ডিয়ান এক্সপোর্ট অর্গানাইজেশনস-এর সহ সভাপতি ইশরার আহমেদ বলছিলেন, “অবশ্যই ভারতীয় পণ্যই রপ্তানির ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার পাওয়া উচিত।

আমরা সরকারের সঙ্গে কথাও বলছি। তবে এখন নির্বাচন চলছে। আমরা আশাবাদী যে নির্বাচন মিটলে এর একটা সমাধান বেরবে।“

দিল্লি বিমানবন্দরের কার্গো টার্মিনাল

সমস্যার শুরু জানুয়ারি থেকে

ফেডারেশন অফ ইন্ডিয়ান এক্সপোর্ট অর্গানাইজেশনস-এর সহ সভাপতি ইশরার আহমেদ বলেছেন, সমস্যা শুরু হয় গত বছরের গোড়া থেকে।

মি. আহমেদ ব্যাখ্যা করছিলেন, “লোহিত সাগরের সমস্যা ডিসেম্বর-জানুয়ারি মাস থেকে শুরু হওয়ার পরে দিল্লি বিমানবন্দর দিয়ে বাংলাদেশি তৈরি পোশাক রপ্তানির পরিমাণ বাড়তে থাকে।

এ বছরের প্রথম তিন মাসে, অর্থাৎ জানুয়ারি থেকে মার্চ পর্যন্ত দিল্লি বিমানবন্দর দিয়ে প্রায় ৯০ হাজার মেট্রিক টন পণ্য রপ্তানি করা হয়েছে – যার নয় শতাংশই বাংলাদেশের পণ্য।”

এর আগে গত বছর মানে ২০২৩ সালের এপ্রিল থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত দিল্লি বিমানবন্দর হয়ে যত পণ্য রপ্তানি হয়েছে, তার মধ্যে বাংলাদেশি পণ্যের পরিমান ছিল দুই শতাংশেরও কম।

লোহিত সাগর অঞ্চলের সমস্যার কারণে ভারতীয় অনেক রপ্তানিকারকও বিমানে পণ্য পাঠাতে চেষ্টা করছেন, আবার এর সঙ্গে বাংলাদেশ থেকেও রপ্তানির জন্য বেশি পরিমাণে পণ্য আসছে।

এই দুইয়ে মিলে দিল্লি থেকে ভারতীয় রপ্তানিকারকদের বাড়তি মাশুল দিয়ে কার্গো বিমানে জায়গা নিতে হচ্ছে।

ভারতের পোশাক রপ্তানিকারকদের সংগঠন অ্যাপারেল এক্সপোর্ট প্রোমোশান কাউন্সিলের চেয়ারম্যান সুধীর সেখরি বিবিসি বাংলাকে জানাচ্ছিলেন, “লোহিত সাগরের বদলে এখন পণ্যবাহী জাহাজগুলোকে কেপ অফ গুড হোপ ঘুরে ইউরোপ যেতে হচ্ছে। এর ফলে ১০-১২ দিন বাড়তি সময় লাগছে জাহাজে। অনেক ব্র্যাণ্ডই তাই আকাশপথে পণ্য রপ্তানি করতে চাইছে।”

তার কথায় এর আগে গত বছর থেকে যখন বাংলাদেশি গার্মেন্টস দিল্লি হয়ে রপ্তানি হত, তখন এই সমস্যা হয় নি।

দিল্লি হয়ে বাংলাদেশি গার্মেন্টস রফতানি কী লাভজনক?

কত বেশী মাশুল দিচ্ছেন ভারতীয় রপ্তানিকারকেরা?

ভারতীয় রপ্তানিকারকরা বলছেন, বাংলাদেশি পণ্যের কারণে পণ্যবাহী বিমানগুলিতে জায়গার চাহিদা বেড়েছে, আর এই সুযোগে কার্গো সংস্থাগুলিকে বাড়তি মাশুল দিয়ে জায়গা নিতে হচ্ছে ভারতীয় ব্যবসায়ীদের।

“গত বছর নভেম্বর-ডিসেম্বরে দিল্লি থেকে ইউরোপে পণ্য পাঠানোর মাশুল যেখানে দিয়েছি কিলো প্রতি ৮০ থেকে ১২০ ভারতীয় টাকা, সেখানে এখন আমাকে দিতে হচ্ছে কিলো প্রতি ২৮০ থেকে ৩৭০ ভারতীয় টাকা,” বলছিলেন দিল্লি বিমানবন্দরে এক রপ্তানি এজেন্ট।

তাকে যেহেতু বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষের সঙ্গেই ব্যবসা করতে হয়, তাই কর্মক্ষেত্রে সমস্যা হতে পারে বলে তিনি নিজের নাম এই প্রতিবেদনে ব্যবহার করতে দিতে রাজী হন নি।

তার কথায়, “আমার তো ভালোই, আমি বেশি কামাচ্ছি, কিন্তু যে ভারতীয় রপ্তানিকারক আমার মাধ্যমে পণ্যটা পাঠাচ্ছে, ক্ষতি তো তাকে বহন করতে হচ্ছে! আর পুরোটাই হচ্ছে বাংলাদেশ থেকে তৈরি পোশাক পণ্যের পরিমাণ হঠাৎ করে অনেকটা বেড়ে যাওয়ার কারণে।“

শুধু যে দিল্লি বিমানবন্দর থেকে ভারতীয় রপ্তানির জন্য বাড়তি মাশুল গুনতে হচ্ছে ভারতীয় সংস্থাগুলিকে, তা নয়।

এখন চেন্নাই থেকেও ইউরোপে রপ্তানির জন্য প্রায় একই পরিমাণে বাড়তি মাশুল দিয়ে পণ্যবাহী বিমানে জায়গা নিতে হচ্ছে ভারতীয় ব্যবসায়ীদের।

লোহিত সাগর অঞ্চলে সমস্যা শুরু হওয়ার পরে দক্ষিণ এশিয়ার রফতানির অনেকটাই সমুদ্রপথ ছেড়ে আকাশপথ ধরেছে

যে কারণে দিল্লি দিয়ে বাংলাদেশি পোষাক রফতানি

বাংলাদেশ থেকে দিল্লির মাধ্যমে তৈরি পোশাক রপ্তানি শুরু হয় গত বছর ফেব্রুয়ারি মাস থেকে। তার আগে বাংলাদেশি গার্মেন্টসের একটা অংশ রপ্তানি করা হত কলকাতা বিমানবন্দর দিয়ে।

কলকাতার এক তৈরি পোশাক রপ্তানি সংস্থা রাধামনি ইন্ডিয়া লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সন্দীপ পোদ্দার বিবিসি বাংলাকে বলছিলেন, “আগে ঢাকা থেকে সড়ক পথে কলকাতায় এসে এখান থেকে বিমানে বা জাহাজে বাংলাদেশি গার্মেন্টস রপ্তানি করা হত।

এখন কাতার বা এমিরেটস -এর মতো বিমান সংস্থা কার্গো বিমান কলকাতায় পাঠানো বন্ধ করে দিয়েছে। অন্যদিকে, দিল্লি অনেক বড় বিমানবন্দর, সেখানে সব বিমান সংস্থার পণ্যবাহী বিমানই আসে, ব্যবস্থাপনাও ভাল সেখানে।

দিল্লি বিমানবন্দর বাংলাদেশি ব্যবসায়ীদের সুবিধাজনক দরে পণ্য রপ্তানির প্রস্তাব দেয়। তাই বাংলাদেশি সংস্থাগুলো দিল্লি চলে যায় – ব্যাখ্যা করেন মি. পোদ্দার।

তবে গোটা বন্দোবস্ত দিল্লিতে সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার পেছনে ভারত সরকারের একটা নীতিও কাজ করেছে বলে জানাচ্ছিলেন, ফেডারেশন অফ ইন্ডিয়ান এক্সপোর্ট অর্গানাইজেশনস-এর সহ সভাপতি ইশরার আহমেদ।

তিনি বলেন, ভারতের বিমানবন্দরগুলিকে ট্রান্সশিপমেন্ট হাব-এ পরিণত করার নীতি অনুযায়ী গত বছরের ফেব্রুয়ারি থেকে এখান থেকে বাংলাদেশি তৈরি পোশাক রপ্তানি শুরু হয়।

গত বছরের এপ্রিল থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত দিল্লি বিমানবন্দর থেকে ২৬০ হাজার টন পণ্য রপ্তানি হয়েছে। তার মধ্যে বাংলাদেশি পণ্য, বিশেষ করে তৈরি পোশাকের পরিমাণ ছিল মাত্র পাঁচ হাজার কিলোগ্রাম, যা দুই শতাংশেরও কম।

“যখন থেকে লোহিত সাগর অঞ্চলে সমস্যা তৈরি হয়েছে, তখন থেকে দক্ষিণ এশিয়ার এমন অনেক রপ্তানি পণ্যই সমুদ্রপথ ছেড়ে আকাশ পথ ধরেছে। এর মধ্যে ফাস্ট ফ্যাশন সংস্থাগুলি বিশেষ করে বিমানে করে তাদের পণ্য রপ্তানি করছে,” বলছিলেন মি. আহমেদ।

পোশাক শিল্পে ‘ফাস্ট ফ্যাশন’-এর অর্থ হল পশ্চিমা দেশগুলির ফ্যাশন শোয়ে প্রদর্শিত পোশাকের খুব দ্রুত নকল বানিয়ে কম খরচে সাধারণ মানুষের জন্য পশ্চিমা দেশগুলির বাজারে নিয়ে আসার ব্যবসা।

এই ব্যবসায় সময় ব্যয় করা যায় না, কারণ যতক্ষণ একটি পোশাক ‘ট্রেন্ডিং’ থাকবে, ততক্ষণই ওই পোশাকটি বিক্রয়যোগ্য থাকবে।

সেজন্য দ্রুত ইউরোপ, আমেরিকার বাজারে এধরণের পোশাক সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছিয়ে দিতে জাহাজে করে না পাঠিয়ে বিমানে এধরণের তৈরি পোশাক পাঠানো হয়ে থাকে।

ভারতীয় রফতানিকারকরা দাবি করছেন তাদের পণ্যকে অগ্রাধিকার দেওয়া হোক

বাংলাদেশি পণ্য বোঝাই ট্রাকের কারণে বিলম্ব

দিল্লি বিমানবন্দরে যে রপ্তানি এজেন্ট নাম প্রকাশ না করার শর্তে কথা বলেছেন বিবিসির সঙ্গে, তিনি বলছিলেন, “বাংলাদেশ থেকে তৈরি পোশাক ভর্তি প্রায় ৩০টি ট্রাক প্রতি রাতে দিল্লি বিমানবন্দরের কার্গো টার্মিনালে পৌঁছায়। সেখানে তাদের অপেক্ষা করতে হয়, কারণ কাস্টমস পরীক্ষা না হলে তারা মাল খালাস করতে পারে না।

“যেহেতু বাংলাদেশ রেগুলেটেড এজেন্ট বা আরএ-থ্রি অনুমোদিত দেশ নয়, তাই কাস্টমস পরীক্ষা এবং এক্স-রে ইত্যাদির পরেই তারা মাল খালাস করতে পারে। আরএ-থ্রি অনুমোদন ছাড়া ইউরোপ এবং যুক্তরাজ্যে কোনও পণ্য রপ্তানি করা যায় না। তাই প্রতিদিনই আমাদের অপেক্ষা করতে হয় বেলা দুটো-তিনটে পর্যন্ত,” জানাচ্ছিলেন ওই এজেন্ট।

তবে, এটাকে খুব একটা বড় সমস্যা বলে মনে করছেন না ফেডারেশন অফ ইন্ডিয়ান এক্সপোর্ট অর্গানাইজেশনস-এর সহ সভাপতি ইশরার আহমেদ।

আবার দিল্লি বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ বলছে তারা বাংলাদেশি পণ্য রপ্তানির জন্য বাড়তি বন্দোবস্ত করছে।

দিল্লি বিমানবন্দর পরিচালনা করে যে বেসরকারি সংস্থা, সেই দিল্লি ইন্টারন্যাশনাল এয়ারপোর্ট লিমিটেড চলতি বছর মার্চ মাসে এক সংবাদ বিবৃতিতে জানিয়েছিল, দিল্লি বিমানবন্দরের মাধ্যমে বাংলাদেশি গার্মেন্টস রপ্তানি শুরু হওয়ার পর থেকে এক বছরে আট হাজার মেট্রিক টন তৈরি পোশাক স্পেন, নেদারল্যান্ডস, ফ্রান্স, কানাডা, যুক্তরাষ্ট্রসহ নানা পশ্চিমা দেশে পাঠানোর বন্দোবস্ত করেছে।

তারা বলেছে, আন্তর্জাতিক পণ্য রপ্তানি ব্যবস্থাপনার জন্য তাদের ইতিমধ্যেই “২৮টি ‘ডুয়াল-ভিউ’ এক্স-রে মেশিন রয়েছে” আর “বাংলাদেশি পণ্যের কারণে যাতে যানজট সৃষ্টি না হয়, সেজন্য আরও পাঁচটি এক্স-রে মেশিনের ব্যবস্থা করা হয়েছে।“

বিবিসি নিউজ বাংলা, কলকাতা

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

kjhdf73kjhykjhuhf
© All rights reserved © 2024