মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ০২:২১ অপরাহ্ন

সামরিক শক্তিতে কে এগিয়ে, ইরান না ইসরায়েল ?

  • Update Time : রবিবার, ১৪ এপ্রিল, ২০২৪, ৮.৩৫ পিএম

ইরান ও ইসরায়েলের মধ্যে সরাসরি সামরিক সংঘর্ষের কারণে ইরানের সশস্ত্র বাহিনীর প্রতি নতুন করে দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে।

তারা কি সক্ষম?

ইরান ও ইসরায়েলের মধ্যে সরাসরি সামরিক সংঘর্ষের শুরু হবার পর ইরানের সশস্ত্র বাহিনীর প্রতি নতুন করে মনোযোগ এনেছে। এই মাসের গোড়ার দিকে, ইসরায়েল সিরিয়ার রাজধানী দামেস্কে ইরানের কূটনৈতিক কম্পাউন্ডের একটি ভবনে হামলা চালিয়ে ইরানের সাতজন সিনিয়র কমান্ডার এবং সামরিক কর্মীকে হত্যা করে।

ইরান প্রতিশোধ নেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল। এবং প্রায় দুই সপ্তাহ পরে তা করলো। শনিবার ইসরায়েলের ওপর একটি বিমান হামলা শুরু করে। যেখানে ইসরায়েলের অভ্যন্তরে তার নিয়ন্ত্রণ করা অঞ্চলকে লক্ষ্য করে শত শত ড্রোন এবং ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করে।

ইরানের সামরিক বাহিনী এখন কেন প্রাসঙ্গিক?

ইসরায়েলি কর্মকর্তারা বলেছিলেন যে তারা ইরানের যে কোনও আক্রমণের পাল্টা আক্রমণের জবাব দেবে, যা ইরানের কাছ থেকে আরও প্রতিশোধ নিতে পারে এবং সম্ভবত একটি বিস্তৃত আঞ্চলিক যুদ্ধে প্রসারিত হতে পারে। এমনকি এমন একটি সুযোগ রয়েছে যে এই ধরণের সংঘাত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে টেনে আনতে পারে, যদিও ওয়াশিংটন স্পষ্ট করেছে যে দামেস্ক আক্রমণের সাথে এর কোনও সম্পর্ক নেই।

বিশ্লেষকরা বলছেন যে ইরানের প্রতিপক্ষ, প্রাথমিকভাবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ইসরায়েল, কয়েক দশক ধরে ইরানের উপর সরাসরি সামরিক হামলা এড়িয়ে গেছে। তেহরানের জটিল সামরিক যন্ত্রপাতির সাথে জড়াতে চায় না। পরিবর্তে, ইসরায়েল এবং ইরান আকাশ, সমুদ্র, স্থল এবং সাইবার আক্রমণের মাধ্যমে দীর্ঘ ছায়া যুদ্ধে লিপ্ত হয়েছে। এবং ইসরায়েল গোপনে ইরানের অভ্যন্তরে সামরিক ও পারমাণবিক স্থাপনাগুলিকে লক্ষ্যবস্তু করেছে।

পাওয়ার ইনডেক্সের কথাই ধরুন। ১৪৫টি দেশের মধ্যে ইরান রয়েছে ১৪তম অবস্থানে। আর এর ঠিক তিন ধাপ পেছনেই, অর্থাৎ ১৭তম অবস্থানে রয়েছে ইসরায়েল।

এই দুই দেশের তিক্ত সম্পর্ক ক্রমেই বাড়ছে। বড় এক সামরিক সংঘাতের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। এজন্য দেশ দুটির সামরিক শক্তি নিয়ে শুরু হয়েছে নানান বিশ্লেষণ।

গ্লোবাল ফায়ার পাওয়ারের মতে যেখানে বিশ্বের প্রতিটি দেশের সামরিক সক্ষমতার তথ্য রয়েছে।

তথ্য অনুযায়ী, পাওয়ার ইনডেক্সের ১৪৫টি দেশের মধ্যে ইরান রয়েছে ১৪তম অবস্থানে এবং এর ঠিক তিন ধাপ পেছনেই, ১৭তম অবস্থানে রয়েছে ইসরায়েল।

জনসংখ্যার কথাই ধরুন। ইরানের মোট জনসংখ্যা ৮ কোটি ৭৫ লাখ ৯০ হাজার ৭৩ জন, যাদের মধ্যে ৪ কোটি ১১ লাখ ৬৭ হাজার ৭১০ জন সেনা সদস্য হওয়ার উপযুক্ত। আর ওদিকে ইসরায়েলের মোট জনসংখ্যা ৯০ লাখ ৪৩ হাজার ৩৮৭ জন, যাদের মধ্যে উপযুক্ত ৩১ লাখ ৫৬ হাজার ১৪২ জন সেনা সদস্য হিসেবে কাজ করার জন্য।

সেনা সদস্য কার কত ?

ইসরায়েলের নিয়মিত সেনা সংখ্যা ১ লাখ ৭০ হাজার এবং রিজার্ভ সেনা ৪ লাখ ৬৫ হাজার।

দেশটিতে ১৮ বছর বয়সী প্রত্যেক নাগরিকের সামরিক প্রশিক্ষণ নেওয়া বাধ্যতামূলক হওয়ায় তাদের রিজার্ভ সেনার সংখ্যাও বেশি।

ইরানের সেনাবাহিনী ও ইসলামিক রেভল্যুশনারি গার্ড কর্পসে মোট ৬ লাখ ১০ হাজার নিয়মিত এবং ৩ লাখ ৫০ হাজার রিজার্ভ সেনা রয়েছে।

আর্থিক সক্ষমতা কেমন ?

ইরানের সামরিক খাতে বাজেট বরাদ্দ রয়েছে ৯৯৫ কোটি ৪৪ লাখ ৫১ হাজার মার্কিন ডলার, যা বিশ্বের মধ্যে ৩৩তম। বিপরীতে এই খাতে ইসরায়েলের বরাদ্দ রয়েছে ২ হাজার ৪৪০ কোটি মার্কিন ডলার, যা বিশ্বে ১৯তম।

তবে, বৈদেশিক ঋণ ও ক্রয়ক্ষমতার হিসাবে ইরানের চেয়ে বেশ পিছিয়ে রয়েছে ইসরায়েল।

স্থল শক্তিতে কে বেশি শক্তিশালী ?

ট্যাংক শক্তির হিসাবে ১ হাজার ৯৯৬টি ট্যাংক নিয়ে বিশ্বে ইরানের অবস্থান ১২তম এবং ১ হাজার ৩৭৯টি ট্যাংক নিয়ে ইসরায়েলের অবস্থান ১৮তম।

অস্ত্রসজ্জিত যানের ক্ষেত্রেও এগিয়ে ইরান। ইরানের অস্ত্রসজ্জিত যান আছে ৬৫ হাজার ৭৬৫টি এবং ইসরায়েলের আছে ৪৩ হাজার ৪০৭টি।

তবে সেলফ-প্রোপেলড আর্টিলারির ক্ষেত্রে ইসরায়েলের চেয়ে পিছিয়ে ইরান।

এই হিসাবে ১১তম স্থানে থাকা ইসরায়েলের আর্টিলারি রয়েছে ৬৫০টি এবং ১৩তম স্থানে থাকা ইরানের আছে ৫৮০টি।

টোয়েড আর্টিলারির দিক থেকে অনেক বেশি এগিয়ে ইরান। র‍্যাংকে ৭ নম্বরে থাকা ইরানের আছে ২ হাজার ৫০টি এবং ইসরায়েলের আছে ৩০০টি।

মোবাইল রকেট প্রজেক্টরের ক্ষেত্রেও এগিয়ে ইরান। পঞ্চম অবস্থানে থাকা ইরানের ৭৭৫টি প্রজেক্টরের বিপরীতে ৩১তম অবস্থানে থাকা ইসরায়েলের প্রজেক্টর ১৫০টি।

আকাশ প্রতিরক্ষায় কে এগিয়ে ?

ইরানের মোট যুদ্ধবিমান রয়েছে ৫৫১টি, যা ইসরায়েলের চেয়ে ৬১টি কম।

২৪১টি জঙ্গি বিমান নিয়ে বিশ্বে দশম অবস্থানে আছে ইসরায়েল। অন্যদিকে ১৮৭টি জঙ্গি বিমান নিয়ে ইরানের অবস্থান বিশ্বে ১৬তম।

বিমান হামলা বা ডেডিকেটেড অ্যাটাকের ক্ষেত্রে ইসরায়েলের অবস্থান ১৭তম। অন্যদিকে ইরানের অবস্থান ৩১তম।

সামরিক পরিবহনের জন্য ইসরায়েলের আছে ১২টি উড়োজাহাজ। অন্যদিকে ইরানের আছে ৮৬টি।

ইসরায়েলের কাছে প্রশিক্ষণ বিমান রয়েছে ১৫৫টি, বিপরীতে ইরানের আছে ১০২টি।

স্পেশাল মিশন এয়ারক্রাফটের দিক দিয়ে বিশ্বে ইসরায়েলের অবস্থান ১৫কম, অন্যদিকে ইরানের অবস্থান ২৫তম।

ইসরায়েলের হেলিকপ্টার ও অ্যাটাক হেলিকপ্টারের সংখ্যা যথাক্রমে ১৪৬টি ও ৪৮টি। অন্যদিকে ইরানের আছে যথাক্রমে ১২৯ ও ১৩টি।

নৌ শক্তিতে কে এগিয়ে?

১০১টি যুদ্ধ জাহাজ নিয়ে বিশ্বে ৩৭তম অবস্থানে রয়েছে ইরান। অন্যদিকে ৬৭টি যুদ্ধজাহাজ নিয়ে ইসরায়েলের অবস্থান ৪৬তম। যুদ্ধ বিমান বহনকারী জাহাজ, হেলো ক্যারিয়ার ও ডেসট্রয়ারের সংখ্যার দিক থেকে ইরান ও ইসরায়েল একই অবস্থানে। এই তিনটি ক্ষেত্রেই তাদের সক্ষমতা শূন্য।

ইসরায়েলের ৫টি সাবমেরিনের বিপরীতে ইরানের আছে ১৯টি। সাবমেরিনের হিসাবে ইসরায়েলের অবস্থান ১৯ ও ইরানের অবস্থান ৭।

৭টি ছোট যুদ্ধজাহাজ বা ফ্রিগেটস নিয়ে র‍্যাংকে দশম অবস্থানে থাকা ইরানের বিপরীতে ইসরায়েলের যুক্তরাষ্ট্রের ফ্রিগেট সংখ্যা শূন্য।

১০টি করভেট নিয়ে ইসরায়েলের অবস্থান বিশ্বে দশম এবং ৩টি নিয়ে ১৪তম অবস্থানে রয়েছে ইরান।

পেট্রোল ভেসেলসে এগিয়ে ইসরায়েল। দেশটির ৪৫ ভেসেলের বিপরীতে (র‍্যাংক ২২) ইরানের আছে ২১টি (র‌্যাংক ৪০তম)।

তবে, বিভিন্ন ধরনের মাইনের ক্ষেত্রে এগিয়ে ইরান। এ ক্ষেত্রে তাদের অবস্থান ২১তম এবং ইসরায়েলের অবস্থান ১৪৫তম৷

পারমাণবিক অস্ত্র কার কত ?

ইরান এবং ইসরায়েল—কোনো দেশেরই পারমাণবিক অস্ত্র সম্পর্কে সুনির্দিষ্ট কোনো তথ্য পাওয়া যায় না।

ইসরায়েল পারমাণবিক অস্ত্র থাকার কথা স্বীকার না করলেও যুক্তরাষ্ট্রের বিজ্ঞানীদের সংগঠন ফেডারেশন অব আমেরিকান সায়েন্টিস্টের অনুমান, ইসরায়েলের হাতে প্রায় ৯০টি পারমাণবিক অস্ত্র আছে।

তার এই বক্তব্যের অর্থ হলো, ইসরায়েলে পারমাণবিক অস্ত্র রয়েছে এবং তারা এই অস্ত্র ব্যবহার করার কথা বিবেচনা করছে।

ইরান পারমাণবিক অস্ত্র তৈরি করছে কি না, সেদিকে সার্বক্ষণিক নজর রাখছে যুক্তরাষ্ট্র ও ইসরায়েল।

এ কথা বলা যায়, কেবলমাত্র ভৌগলিক অবস্থান, আকাশ প্রতিরক্ষা ও পারমাণবিক অস্ত্রের হিসাবে ইরানের চেয়ে এগিয়ে রয়েছে ইসরায়েল।

আর ইরান ইসরায়েলের চেয়ে এগিয়ে আছে জনসংখ্যা, স্থল শক্তি, নৌ শক্তি, লজিস্টিক, অর্থনীতি ও প্রাকৃতিক সম্পদের দিক থেকে।

যদিও সামরিক শক্তিমত্তার এই তুলনার পাশাপাশি এটাও ভুলে গেলে চলবে না যে যেকোনো পরিস্থিতিতে ইসরায়েলকে সামরিক দিক থেকে পূর্ণ শক্তি দিয়ে সহযোগিতা করতে সবসময় প্রস্তুত বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাধর দেশ যুক্তরাষ্ট্র।

লজিস্টিকস সাপোর্ট কার কত ?

এয়ারপোর্টের সংখ্যায় ইসরায়েলের চেয়ে অনেক বেশি এগিয়ে ইরান। ইরানের ৩১৯টির বিপরীতে ইসরায়েলের আছে মাত্র ৪২টি এয়ারপোর্ট। মার্চেন্ট মেরিনেও এগিয়ে ইরান। দেশটির মার্চেন্ট মেরিনের সংখ্যা ৯৪২টি (২০তম), অন্যদিকে ৮৭তম অবস্থানে থাকা ইসরায়েলের আছে ৪৫টি।

বন্দর ও টার্মিনালের সংখ্যায় প্রায় সমান দেশ দুটি। ইরানের আছে ৪টি বন্দর ও টার্মিনাল। অন্যদিকে ইসরায়েলের আছে ৫টি।

প্রাকৃতিক সম্পদ কার বেশি ?

ইসরায়েল প্রাকৃতিক সম্পদ হিসেবে কোনো জ্বালানি তেল উত্তোলন করে না। যেখানে প্রতিদিন ইরান উত্তোলন করে ৩৪ লাখ ৫০ হাজার ব্যারেল। এ ক্ষেত্রে ইরানের অবস্থান নবম। প্রুভেন অয়েল রিজার্ভের ক্ষেত্রে ইরানের অবস্থান বিশ্বে তৃতীয়। তাদের প্রুভেন রিজার্ভ ২১ হাজার কোটি ব্যারেল। আর ইসরায়েল ১ কোটি ২৭ লাখ ব্যারেল প্রুভেন রিজার্ভ নিয়ে বিশ্বে ৭১তম অবস্থানে আছে।

ইসরায়েলের কোনো কয়লার খনি নেই। যেখানে ইরান কয়লা উত্তোলনের দিক থেকে বিশ্বে ৪৩তম। প্রাকৃতিক গ্যাস উত্তোলনে বিশ্বে ইরানের অবস্থান তৃতীয়, যেখানে ইসরায়েলের অবস্থান ৪০তম।

ভৌগলিক অবস্থানে কে কোথায় ?

পাওয়ার ইনডেক্সের তথ্য অনুযায়ী, ইরানের আয়তন ১৬ লাখ ৪৮ হাজার ১৯৫ কিলোমিটার এবং ইসরায়েলের আয়তন ২১ হাজার ৯৩৭ বর্গকিলোমিটার। ইরানের সঙ্গে সীমান্ত রয়েছে ইরাক, তুরস্ক, আরমেনিয়া, আজারবাইজান, তুর্কমেনিস্তান, আফগানিস্তান ও পাকিস্তানের সঙ্গে। অপরদিকে ইসরায়েলের সঙ্গে সীমান্ত রয়েছে মিশর, জর্ডান, সিরিয়া ও লেবাননের।

বিশ্বে ১০৮তম অবস্থানে থাকা ইরানের অন্য দেশের সঙ্গে সীমানার পরিমাণ ৫ হাজার ৮৯৪ কিলোমিটার। ইসরায়েলের আছে ১ হাজার ৬৮ কিলোমিটার।

ইসরায়েলের উপকূলীয় সীমানা আছে মাত্র ২৭৩ কিলোমিটার এবং বিশ্বে এর অবস্থান ১৩তম। অন্যদিকে ইরানের উপকূলীয় সীমানা আছে ২ হাজার ৪৪০ কিলোমিটার এবং বিশ্বে অবস্থান ৬৬তম। জলপথের ক্ষেত্রে ইরান এগিয়ে আছে বেশ বড় ব্যবধানে। মরুর দেশ ইরানের আছে ৮৫০ কিলোমিটার জলপথ, যেখানে ইসরায়েল জলপথ শূন্য।

 

নিউ ইয়র্ক টাইমস অবলম্বনে

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

kjhdf73kjhykjhuhf
© All rights reserved © 2024