শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ০৯:০৫ পূর্বাহ্ন

প্রচন্ড গরমে অনলাইন ক্লাসে ঝুঁকছে প্রতিষ্ঠান, পাকিস্তান সফরে ইরানের প্রেসিডেন্ট

  • Update Time : সোমবার, ২২ এপ্রিল, ২০২৪, ৫.৪৪ পিএম

সারাক্ষণ ডেস্ক

 

আরব নিউজের শিরোনাম ‘‘পানি, তেল নিরাপত্তা নিয়ে আলোচনা করতে ইরাক সফরে এরদোগান’’

প্রতিবেদনে বলা হয়, গাজা উপত্যকায় ইসরায়েল-হামাস যুদ্ধ এবং ইসরায়েল ও ইরানের মধ্যে হামলার ফলে আঞ্চলিক উত্তেজনা চরমে উঠেছে। এরদোগান বাগদাদে ইরাকের প্রধানমন্ত্রী মোহাম্মদ শিয়া আল-সুদানি এবং রাষ্ট্রপতি আবদেল লতিফ রশিদের সাথে বৈঠক করার কথা রয়েছে।
তুরস্কের প্রেসিডেন্ড রেসেপ তাইয়েপ এরদোগান কয়েক বছরের মধ্যে তার প্রথম রাষ্ট্রীয় সফরের জন্য সোমবার (২২ এপ্রিল) প্রতিবেশী দেশ ইরাকে রয়েছেন। যেখানে পানি, তেল এবং আঞ্চলিক সুরক্ষা বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হবে।

উত্তর ইরাকের স্বায়ত্তশাসিত কুর্দিস্তান অঞ্চলের রাজধানী ইরবিলে কর্মকর্তাদের পরিদর্শন করার আগে এরদোগান বাগদাদে ইরাকি প্রধানমন্ত্রী মোহাম্মদ শিয়া আল-সুদানি এবং রাষ্ট্রপতি আবদেল লতিফ রশিদের সাথে দেখা করার কথা রয়েছে।
সাম্প্রতিক ওয়াশিংটন সফরের ফাঁকে আটলান্টিক কাউন্সিলে এক অনুষ্ঠানে সুদানি বলেন, ‘ইরাক ও তুর্কির একটি ইতিহাস রয়েছে এবং তাদের মধ্যে সাদৃশ্য, আগ্রহ ও সুযোগ রয়েছে। তবে কিছু সমস্যাও রয়েছে।

২০১১ সালে শেষবার ইরাক সফর করা এরদোগানের সঙ্গে আসন্ন বৈঠক সম্পর্কে সুদানি বলেন, “পানি ও নিরাপত্তা বিষয়সূচির শীর্ষে থাকবে।”

গাজা উপত্যকায় ইসরায়েল-হামাস যুদ্ধ এবং ইসরায়েল ও ইরানের মধ্যে হামলার ফলে আঞ্চলিক উত্তেজনা চরমে ওঠার সময় এই সফরটি হচ্ছে।

সুদানির পররাষ্ট্র বিষয়ক উপদেষ্টা ফরহাদ আলালদিন বলেন, ইরাকি কর্মকর্তাদের সঙ্গে এরদোগান যে মূল বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা করবেন তার মধ্যে রয়েছে বিনিয়োগ, বাণিজ্য, দুই দেশের মধ্যে সহযোগিতার নিরাপত্তা দিক, পানি ব্যবস্থাপনা ও পানিসম্পদ। সফরের সময় বেশ কয়েকটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হবে বলে আশা করছেন আলালদিন।

পানি সম্পদ ভাগাভাগি করা একটি প্রধান বিতর্কের বিষয়, বাগদাদ তাদের ভাগ করা টাইগ্রিস এবং ইউফ্রেটিস নদীতে তুর্কিদের স্থাপিত উজানের বাঁধগুলোর বিষয়ে সমালোচনা করেছে। এই কারনে ইরাকে পানির ঘাটতি আরও বাড়িয়ে তুলেছে।
এরদোগান বলেন, ইরাকি পক্ষের “অনুরোধ” অনুসরণ করে পানির বিষয়টি তাঁর সফরের “সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলোর মধ্যে একটি” হবে। তিনি বলেন, ‘আমরা তাদের সমস্যা সমাধানের চেষ্টা করব।

 

 

ভারতীয় গণমাধ্যম হিন্দুস্থান টাইমসের শিরোনাম ‘‘কেজরিওয়ালের মুক্তি চেয়ে দায়ের করা জনস্বার্থ মামলা খারিজ  দিল্লি হাইকোর্টে’’

খবরে বলা হয়, দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালের মেয়াদ শেষ না হওয়া পর্যন্ত এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেট (ইডি) এবং রাজ্য নথিভুক্ত সব ফৌজদারি মামলায় “অসাধারণ অন্তর্বর্তীকালীন জামিনে” মুক্তি চেয়ে করা একটি আবেদন সোমবার (২২ এপ্রিল) খারিজ করে দিয়েছে দিল্লি হাইকোর্ট।

আদালতের নির্দেশে আম আদমি পার্টির নেতা বিচার বিভাগীয় হেফাজতে রয়েছেন বলে আদালত আবেদনকারীকে ৭৫ হাজার রুপি জরিমানাও করেছে।

আদালতের অভিমত ছিল যে, ‘উই দ্য পিপল অফ ইন্ডিয়া’ নামে চতুর্থ বর্ষের আইনের এক ছাত্রের দায়ের করা আবেদনটি গ্রহণযোগ্য নয় এবং তার রিট এখতিয়ারের আদালত উচ্চ পদে অধিষ্ঠিত ব্যক্তির বিরুদ্ধে দায়ের করা বিচারাধীন মামলায় অন্তর্বর্তীকালীন জামিন দিতে পারে না।

কেজরিওয়ালের পক্ষে উপস্থিত প্রবীণ আইনজীবী রাহুল মেহরা পিআইএল-কে ‘সম্পূর্ণ অগ্রহণযোগ্য’ এবং ‘বিপথগামী’ বলে অভিহিত করেছেন।

 

 

 

পাকিস্তানের গণমাধ্যম ডনের একটি শিরোনাম ‘‘পাকিস্তানে তিন দিনের সফরে ইরানের প্রেসিডেন্ট’’

খবরে বলা হয়, ইরানের প্রেসিডেন্ট ইব্রাহিম রাইসি সোমবার (২২ এপ্রিল) তিন দিনের সরকারী সফরে পাকিস্তানে পৌঁছেছেন। 8 ফেব্রুয়ারির সাধারণ নির্বাচনের পরে কোনও রাষ্ট্রপ্রধানের এটি প্রথম সফর।

পররাষ্ট্র দফতর (এফও) জানিয়েছে যে, রাইসি ইসলামাবাদ বিমানবন্দরে পৌঁছেছেন এবং আবাসন মন্ত্রী মিয়া রিয়াজ হুসেন পিরজাদা এবং ইরানে পাকিস্তানের রাষ্ট্রদূত মুদাসির টিপু তাকে স্বাগত জানান।

এতে বলা হয়েছে, ইরানের প্রেসিডেন্টের সঙ্গে রয়েছেন তাঁর স্ত্রী এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও মন্ত্রিসভার অন্যান্য সদস্য এবং ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নিয়ে গঠিত একটি উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধিদল।

ইরানের সংবাদ সংস্থা আইআরএনএ জানিয়েছে, প্রেসিডেন্ট আসিফ আলী জারদারির আমন্ত্রণে রাইসি এই সফরে এসছেন।

রাষ্ট্রপতি রাইসি পাকিস্তানের বেশ কয়েকটি শহর পরিদর্শন করবেন এবং সেখানকার বেশ কয়েকজন উলেমা, অভিজাত এবং ব্যবসায়ীদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন। পাকিস্তানের সাংস্কৃতিক কেন্দ্র লাহোর সফরও প্রেসিডেন্টের পরিকল্পনার মধ্যে রয়েছে।

রেডিও পাকিস্তান সূত্রে জানা গেছে, রাইসি আজ প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফের সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন এবং দুই দেশের মধ্যে প্রতিনিধি পর্যায়ে আলোচনাও হবে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে পৌঁছনোর পর অতিথিদের গার্ড অব অনার প্রদান করা হয়।

সিন্ধু সরকার বিদেশী বিশিষ্ট ব্যক্তিদের সফরকালে “সাধারণ জনগণের অসুবিধা এড়াতে” করাচি বিভাগে ২৩ এপ্রিল (মঙ্গলবার) সরকারি ছুটি ঘোষণা করেছে।

 

 

যুগান্তরের শিরোনাম ‘‘খরতাপে বিপর্যস্ত জীবনযাত্রা’’

 

প্রতিবেদনে বলা হয়, চুয়াডাঙ্গা ও পাবনার উপর দিয়ে রোববারও বয়ে গেছে অতি তীব্র তাপপ্রবাহ। রাজশাহী, টাঙ্গাইল, যশোর ও কুষ্টিয়ায় ছিল তীব্র তাপপ্রবাহ। দেশের বাকি জেলাগুলোতে মৃদু থেকে মাঝারি তাপপ্রবাহ বিরাজ করছে।

 

সিলেট ছাড়া দেশের কোথাও বৃষ্টির দেখা নেই। তবে রোববার সিলেটে মাত্র ৬ মিলিমিটার বৃষ্টি হলেও তাপমাত্রায় তেমন প্রভাব ফেলেনি। আবহাওয়া অধিদপ্তরের এসব তথ্যে স্পষ্ট যে, দেশের উপর দিয়ে বয়ে চলছে ভয়ংকর দাবদাহ। তীব্র গরমে আক্রান্ত সারা দেশের মানুষ। গরম সহ্যক্ষমতার বাইরে যাওয়ায় হিট স্ট্রোকে আক্রান্ত হচ্ছেন অনেকেই। রোববার ছয় জেলায় হিট স্ট্রোকে ছয়জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

 

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, বাতাসে জলীয়বাষ্পের আধিক্য রয়েছে। এ কারণে তাপমাত্রার চেয়েও গরমের তীব্রতা বেশি অনুভূত হচ্ছে। বাইরে বের হলেই গরমের সঙ্গে আর্দ্রতা শরীরে জ্বালা ধরাচ্ছে। এই অবস্থা থেকে বাঁচতে অতি প্রয়োজন ছাড়া মানুষ বাইরে বের হচ্ছে না। রাস্তায় গাড়ি চলাচলও সীমিত হয়ে গেছে।

 

চুয়াডাঙ্গায় রোববার সর্বোচ্চ ৪২.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে। এদিন যশোরে তাপমাত্রা ছিল ৪০.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। যদিও শনিবার যশোরে তাপমাত্রা ছিল ৪২.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, রোববারের মতো আজও সারা দেশে একই মাত্রায় গরম থাকবে। তবে রংপুর ও রাজশাহী বিভাগে দিনের তাপমাত্রা কিছুটা কমতে পারে।

 

তীব্র দাবদাহের কারণে পরিস্থিতি মোকাবিলায় রোববার জরুরি বৈঠক করেছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন। সচিবালয়ে অনুষ্ঠিত ওই বৈঠকে হাসপাতালের পরিচালক ও অনলাইনে সিভিল সার্জনরা অংশ নেন।

এছাড়া হিট স্ট্রোকে আক্রান্তদের চিকিৎসা ব্যবস্থাপনা নীতিমালা তৈরি করে হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

 

বয়স্ক ও শিশুরা যেন প্রয়োজন ছাড়া বাসার বাইরে না যায়, সে বিষয়েও পরামর্শ দেওয়া হয়েছে জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘এই গরমে সবচেয়ে বেশি ভালনারেবল বয়স্ক এবং বাচ্চারা। এবার এমন একটা জলবায়ু পরিবর্তন হলো যে আমরা জীবনে কখনো শুনিনি যে দুবাই বিমানবন্দর পানিতে ডুবে গেছে। যাই হোক এটা প্রকৃতির নিয়ম। আমাদের এগুলো ফেস করতে হবে।’

 

 

সমকালের শিরোনাম ‘‘প্রচন্ড গরমে অনলাইন ক্লাসে ঝুঁকছে প্রতিষ্ঠান’’

 

খবরে বলা হয়, তীব্র তাপপ্রবাহের জেরে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের চলমান ছুটি আরও বৃদ্ধির ইঙ্গিত দিয়েছে সরকার। এমন প্রেক্ষাপটে শিখন ঘাটতি পূরণে বেশ কিছু শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান অনলাইন ক্লাস চালু করেছে। বাকিরাও বিকল্প এ পাঠদানের চিন্তা-ভাবনা করছে বলে জানা গেছে।

 

পবিত্র রমজান ও ঈদুল ফিতর উপলক্ষে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ২০ এপ্রিল পর্যন্ত ২৬ দিনের ছুটি ঘোষণা করে সরকার। এরই মধ্যে সারাদেশে তীব্র তাপপ্রবাহ শুরু হলে এ ছুটি বাড়িয়ে ২৭ এপ্রিল করা হয়। টানা ছুটিতে শিক্ষার্থীরা শিখন ঘাটতিতে পড়তে পারে উদ্বেগ জানিয়ে অভিভাবকরা বন্ধের সময় অনলাইনে ক্লাস চালুর অনুরোধ করেন। তাদের অনুরোধে ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজ, মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজসহ রাজধানীর অনেক প্রতিষ্ঠান এরই মধ্যে অনলাইনে ক্লাস নিচ্ছে। গতকাল ঢাকা ও চট্টগ্রাম এবং জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়সহ বেশ কয়েকটি উচ্চ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান অনলাইনে ক্লাস নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে।

 

ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ কেকা রায় চৌধুরী বলেন, ‘আমরা অনলাইনে ক্লাস নেওয়ার ব্যবস্থা করেছি। এটি বাধ্যতামূলক নয়। কোনো শিক্ষার্থী ক্লাসে যুক্ত না থাকলে তাকে অনুপস্থিত দেখানো হবে না।’ রাজধানীর মহাখালী ডিওএইচএস বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল স্কুল অ্যান্ড কলেজ কর্তৃপক্ষ অভিভাবকদের এসএমএস পাঠিয়ে গতকাল অনলাইন ক্লাস নেওয়ার কথা জানিয়েছে।

 

অভিভাবক ঐক্য ফোরামের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা জিয়াউল কবির দুলু বলেছেন, আমরা এক-দুটি নয়, বন্ধের মধ্যে সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে অনলাইনে ক্লাসের দাবি জানাচ্ছি। কারণ কতদিন তাপপ্রবাহ চলবে তা সঠিকভাবে বলা যাচ্ছে না।

 

মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের পরিচালক (মাধ্যমিক) অধ্যাপক সৈয়দ জাফর আলী সমকালকে বলেন, চলমান তাপপ্রবাহকে সরকার বিশেষ দুর্যোগ উল্লেখ করে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি বাড়িয়েছে। এ সময় অনলাইনে ক্লাস নিতে কোনো অসুবিধা নেই।

 

গতকাল অনলাইনে ক্লাস নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়, বেসরকারি নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয় ও ইউনিভার্সিটি অব এশিয়া প্যাসিফিক।

 

নর্থ সাউথের রেজিস্ট্রার আহমেদ তাজমীন স্বাক্ষরিত এক বার্তায় চলমান তাপপ্রবাহের কারণে ২৭ এপ্রিল পর্যন্ত সব ধরনের ক্লাস অনলাইনে হবে বলে জানানো হয়। একই সময় পর্যন্ত অনলাইনে ক্লাসে নেবে ইউনিভার্সিটি অব এশিয়া প্যাসিফিক।

 

তাপদাহের মধ্যে স্বাস্থ্যঝুঁকি এড়াতে বেশ কিছু নির্দেশনাসহ অনলাইনে ক্লাস নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। গতকাল বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ দপ্তর থেকে পাঠানো এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, তবে চলমান পরীক্ষা সরাসরি নেওয়া হবে।

 

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় (চবি) কর্তৃপক্ষ শতভাগ ক্লাস অনলাইনে নেবে। পরীক্ষাগুলো সশরীরে হবে বলে জানিয়েছে।

 

তবে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, বর্তমানে রাজশাহীর তাপমাত্রা সহনীয় পর্যায়ে থাকায় ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্লাস-পরীক্ষাসহ প্রশাসনিক কার্যক্রম যথারীতি চলবে। তবে কোনো বিভাগ চাইলে অনলাইনে ক্লাস নিতে পারবে।

 

 

দৈনিক আজকের পত্রিকার শিরোনাম ‘‘প্রচণ্ড তাপপ্রবাহ: দাম চাহিদা বেড়েছে এসি-ফ্যানের’’

 

প্রতিবেদনে বলা হয়, দেশব্যাপী প্রচণ্ড তাপপ্রবাহে বিপর্যস্ত জনজীবন। তাপমাত্রা কখনো ৩৮ আবার কখনো ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস ছাড়িয়ে যায়। ঘরের বাইরে বের হওয়াই কঠিন হয়ে পড়ে। আবার বাসার ভেতর থাকলেও সার্বক্ষণিক প্রয়োজন হচ্ছে বৈদ্যুতিক পাখা কিংবা শীতাতপনিয়ন্ত্রণ যন্ত্র তথা এয়ারকন্ডিশনার (এসি)।  গরমে দুর্বিষহ এই অবস্থা থেকে রেহাই পেতে মানুষ ভিড় করছেন ইলেকট্রনিক পণ্যের দোকানে। যেখানে ধুম পড়েছে এসি ও ফ্যান কেনার। আবার গরমের তীব্রতায় অস্বস্তি থেকে বাঁচতে অনেকে ছুটছেন ডাব, তরমুজ, আনারসসহ দেশীয় ফলের দোকানে।

 

দিনকয়েক আগেও ইলেকট্রনিকস পণ্যের দোকানগুলোয় এসির ক্রেতা ছিল না বললেই চলে। তবে তাপমাত্রা অসহনীয় পর্যায়ে চলে যাওয়ায় দোকানে দোকানে বেড়েছে ক্রেতা। সেই সঙ্গে বেড়েছে ফ্যান ও এসির দামও। গতকাল রোববার রাজধানীর গুলিস্তান স্টেডিয়াম মার্কেট, বিজয়নগরসহ কয়েকটি স্থানে ঘুরে এসব দৃশ্যের দেখা মেলে।

 

গুলিস্তান স্টেডিয়াম মার্কেটে একটি দোকানে এসি কিনতে আসেন কমপক্ষে ১০ জন ক্রেতা। কারও এক টন কারও প্রয়োজন দুই টনের এসি। দরদাম দেখছেন সঙ্গে বিক্রয়কর্মীর কাছ থেকে তথ্য নিচ্ছেন কেউ কেউ। তেজকুনীপাড়া থেকে আসা ক্রেতা হান্নান বলেন, গরমে অসহ্য হয়ে পড়েছি। ফ্যানের বাতাসে কাজ হয় না। তাই এসি কিনতে এসেছি। তবে এসির দাম অনেক বেড়েছে। কিছুদিন আগে যে এসি ৪৫ থেকে ৫২ হাজারের মধ্যে পাওয়া যেত এখন সেটা ৬০ হাজার টাকা।

 

শাহজাহানপুর থেকে আসা ক্রেতা তৌফিক হাসান বলেন, শীতের মধ্যে অনেক অফার ছিল। তখনই কেনা ভালো। এখন দাম বেশি পড়ছে। তবু একটা এসি কিনতে হয়েছে। বাসায় বৃদ্ধ বাবা গরমে কাবু হয়ে গেছেন।

 

এক সপ্তাহের ব্যবধানে প্রতিটি চার্জার ফ্যানের মান ও আকারভেদে দাম বেড়েছে ৩০০-৫০০ টাকা। বেশি বেড়েছে বিদেশ থেকে আমদানি করা বিভিন্ন ব্র্যান্ডের ফ্যান। এসব ফ্যানের দাম পড়ছে ৪ থেকে সাড়ে ৬ হাজার টাকা। বিক্রেতারা জানান, বেচাকেনা ভালো হচ্ছে। বাজারে ১২, ১৪ ও ১৬ ইঞ্চির চার্জার ফ্যান বেশি চলছে। তবে স্ট্যান্ড ফ্যানের চাহিদাও ভালো বাড়ছে।

 

স্টেডিয়াম মার্কেটের নারায়ণগঞ্জ ইলেকট্রনিকের বিক্রেতা রশিদ বলেন, ‘পাইকারি বাজার থেকেই চার্জার ফ্যান বেশি দাম দিয়ে কিনতে হচ্ছে। আজও প্রতিটি ফ্যানে ২০০ টাকা বাড়তি দিয়ে কিনেছি। কালও প্রতিটি ফ্যানে ১০০ টাকা বাড়তি দিয়েছি। এক সপ্তাহে দাম বেশ বেড়েছে। আমরা যেভাবে কিনছি, সেভাবেই দাম সমন্বয় করে বিক্রি করছি।’

 

 

 

দেশ রুপান্তরের শিরোনাম ‘‘ট্রেনে কাটা পড়ে বাঁ পায়ের আঙুল ছিন্ন আনু মুহাম্মদের’’

 

খবরে বলা হয়, রাজধানীর খিলগাঁও রেলগেটে ট্রেন থেকে নামতে গিয়ে গুরুতর আহত হয়েছেন তেল-গ্যাস-খনিজ সম্পদ ও বিদ্যুৎ-বন্দর রক্ষা জাতীয় কমিটির সদস্যসচিব অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ। গতকাল রবিবার সকাল ১০টার দিকে এ দুর্ঘটনা ঘটে। ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের সাবেক এই শিক্ষকের বাঁ পায়ের সব আঙুল কাটা পড়েছে।

 

ঢামেক হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসকরা জানান, অধ্যাপক আনু মুহাম্মদের বাঁ পায়ের সব আঙুল কাটা পড়েছে। এ ছাড়া ডান পায়ের আঙুলও ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তাকে জরুরি বিভাগে ভর্তি রাখা হয়েছে।

 

স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সাবেক অধ্যাপক (মেডিসিন) ডা. মো. হারুন অর রশিদ বলেন, দিনাজপুর গিয়েছিলেন অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ। বিভিন্ন সময় কয়লাখনির শ্রমিকদের মৃত্যুতে দিনাজপুরে গতকাল (শনিবার) একটি শোকসভা হয়। সেই সভায় অংশ নিতে গিয়েছিলেন তিনি। আজ (গতকাল) দিনাজপুরের ফুলবাড়ী থেকে ট্রেনে করে ঢাকায় ফিরছিলেন তিনি।

 

অধ্যাপক আনু মুহাম্মদের বাসা খিলগাঁওয়ে। হাসপাতালে তিনি জানান, ট্রেনটি খিলগাঁও রেলগেট এলাকায় পৌঁছালে গতি কমিয়ে দেয়। তখন সেখানে ট্রেন থেকে নামছিলেন। তবে নামার সময় পা ফসকে চাকার নিচে চলে যায়।

 

ঢামেক হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের প্রধান অধ্যাপক ডা. বিধান সরকার বলেন, ট্রেনে কাটা পড়ে আহত অধ্যাপক আনু মুহাম্মদের বাঁ পায়ের পাতার টিস্যুগুলো নষ্ট হয়ে গেছে। এ ছাড়া ডান পায়ের বৃদ্ধা আঙুলও হালকা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

 

তিনি আরও বলেন, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের অর্থোপেডিকস বিভাগ, প্লাস্টিক সার্জারি বিভাগ ও ক্যাজুয়ালিটি বিভাগের চিকিৎসকরা বোর্ড গঠন করে তার চিকিৎসা করছেন। তার অবস্থা স্থিতিশীল।

 

ঢাকা রেলওয়ে থানার (কমলাপুর) ওসি ফেরদাউস আহম্মেদ বিশ্বাস বলেন, যতটুকু জানা গেছে, খিলগাঁও রেলগেট এলাকায় একটি ট্রেনের চাকায় অধ্যাপক আনু মুহাম্মদের পায়ের আঙুল কাটা পড়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

kjhdf73kjhykjhuhf
© All rights reserved © 2024