শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ০৪:৫১ পূর্বাহ্ন

মন্ত্রীরা কি সময় এবং খরচ বেশি হওয়ার জন্য দায়ী নন?

  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল, ২০২৪, ৮.৩০ এএম

শামসের মবিন চৌধুরি বীর বিক্রম

১ এপ্রিল দ্য ডেইলি স্টারে প্রকাশিত এক সাক্ষাৎকারে, সাবেক পরিকল্পনা মন্ত্রী এমএ মান্নান উন্নয়ন প্রকল্পগুলোর ব্যয় এবং সময় বৃদ্ধির দোষ সরাসরি আমলাদের উপর চাপিয়ে দিয়েছেন। এভাবে, সাবেক পরিকল্পনা মন্ত্রী কার্যকরভাবে তাঁর রাজনৈতিক সহকর্মীদের এবং নীতি নির্ধারকদের যে কোনো অপরাধ থেকে মুক্তি দিয়েছেন। মান্নান নিজেই প্রায় তিন দশক সিভিল সার্ভিসে ছিলেন। ১৫ বছর সংসদ সদস্য। এই সময়ের মধ্যে ১০ বছর তিনি মন্ত্রিসভায় অধীনে ছিলেন – প্রথমে পাঁচ বছর ধরে অর্থমন্ত্রনালয়ের প্রতিমন্ত্রী  এবং পরবর্তীতে আরও পাঁচ বছর পরিকল্পনা মন্ত্রী ছিলেন।

এই দীর্ঘ সাক্ষাৎকারে, সুনামগঞ্জ -৩ আসনের সংসদ সদস্য তাঁর সাবেক সিভিল সার্ভিসের সহকর্মীদের উন্নয়ন প্রকল্পগুলিতে ব্যয় এবং সময় বৃদ্ধির একমাত্র অপরাধী হিসাবে চিহ্নিত করেছেন, যা মূলত প্রমান করে তাঁর বর্তমান রাজনৈতিক সহকর্মীরা আমলাতান্ত্রিক ষড়যন্ত্রের শিকার।

মি. মান্নান একজন সৎ এবং পরিশ্রমী ব্যক্তি হিসাবে সর্বজনবিদিত ও সম্মানিত। এটা আশা করা হয় যে একজন ব্যক্তি যিনি একজন আমলা এবং পরবর্তীকালে একজন রাজনীতিবিদ সর্বোপরি একজন মন্ত্রীসভার সদস্য ছিলেন। তাই নিঃসন্দেহে তিনি ভালভাবে জানেন যে কোথায় উন্নয়ন প্রকল্পের পরিকল্পনা, গঠন, অনুমোদন এবং চূড়ান্ত বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে জাতীয় মূল্যবান সম্পদের বিশাল পরিমাণ পানি নষ্টের দায় রয়েছে। এবং একজন জনপ্রিতিনিধি হিসেবে তিনি এ নিয়ে সাধারণ জনগণের চরম দুর্ভোগের বিষয়টিও ভালোভাবে জাননে। ।অথচর সাবেক পরিকল্পনা মন্ত্রী এ কাজে অপরাধী হিসাবে  ইঞ্জিনিয়ার এবং প্রকল্প পরিচালকদের চিহ্নিত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। সাক্ষাৎকারে প্রকল্প বাস্তবায়নের ক্রটির কারণ হিসাবে অন্যান্য সিস্টেমিক ত্রুটি এবং পুরাতন আমলাতান্ত্রিক পদ্ধতির মধ্যে তিনি ক্রটিপূর্ণ প্রকল্প নকশা, অপ্রয়োজনীয় জনব্যয়, ধীরে প্রকল্প বাস্তবায়ন এবং প্রকল্প পরিচালক ও ইঞ্জিনিয়ারদের জবাবদিহিতার অভাব সম্পর্কে বিস্তারিত বলেছেন।

একজন সাবেক আমলা হিসাবে এ সব প্রক্রিয়ার সঙ্গে আমারও কিছুটা জানা আছে। একটি প্রকল্প প্রস্তাব চূড়ান্ত অনুমোদনের আগে পর্যন্ত  কোন কোন ধাপ পার হতে হয়। যদি আমি ঠিকমতো মনে করি, উন্নয়ন প্রকল্পের প্রস্তাবগুলি, বিশেষ করে যে গুলি বিপুল পরিমাণ অর্থায়ন জড়িত বিশাল অবকাঠামো উন্নয়নের সাথে সম্পর্কিত, প্রথমে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রী পর্যায়ে বাস্তবায়নকারী মন্ত্রণালয়ের একটি সূক্ষ্মদর্শী পরীক্ষা লাগে, তারপর সাধারণত মন্ত্রিপরিষদের মন্ত্রীদের দ্বারা পরিচালিত আন্তঃমন্ত্রণালয়ীয় সভাগুলিতে আরও পরীক্ষা এবং ক্রস-এক্সামিন করা হয়। এরপর প্রস্তাবটি সাধারণত অর্থমন্ত্রী কর্তৃক নেতৃত্বাধীন অর্থনৈতিক বিষয়ক মন্ত্রিসভা কমিটির সামনে উপস্থাপিত হয়, যেখানে এটি আরও বিস্তারিতভাবে আলোচনা করা হয় মূল সিদ্ধান্তের জন্য প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বাধীনএকনেকে এ উপস্থাপনের আগে। এখানেও প্রকল্পের সম্ভাব্যতা এবং এটি সাধারণ জনগণের জন্য কি সুবিধা আনতে পারে সে বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়। প্রকল্পটি অনুমোদিত হওয়ার পরে, এটি অনুমোদিত বাজেট এবং নির্দিষ্ট সময়সীমার মধ্যে বাস্তবায়নের দায়িত্ব সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের উপর বর্তায়।

উপরে যা বলা হয়েছে তা থেকে এটি যথেষ্ট পরিষ্কার হওয়া উচিত যে মন্ত্রী পর্যায়ের নীতি নির্ধারকরাই উন্নয়ন প্রকল্পগুলোর সময়মতো বাস্তবায়ন নিশ্চিত করা এবং যথাযথ তত্ত্বাবধান এবং মাঠ পর্যায়ে কাজ করা ব্যক্তিদের জবাবদিহিতা চেয়ে ব্যয় বৃদ্ধি এড়ানোর জন্য দায়ী।

সুশাসনের একটি উজ্জ্বল উদাহরণ উল্লেখ করতে গেলে, আমাদের সময়ের অন্যতম উজ্জ্বল প্রকৌশলী এবং পদ্মা সেতুর সাফল্যজনক বাস্তবায়নের একজন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি মরহুম ডাঃ জামিলুর রেজা চৌধুরী একবার বিআরটি প্রকল্পটিকে (হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে জয়দেবপুর) সবচেয়ে খারাপভাবে পরিকল্পিত, অর্থনৈতিকভাবে অপচয়কারী অবকাঠামো প্রকল্পগুলোর একটি হিসাবে বর্ণনা করেছিলেন। তিনি বলেছিলেন যে এর বিকল্প হিসাবে অনেক ভালো, কম ব্যয়বহুল এবং অনেক কম সময় সাপেক্ষ পন্থা ছিল। অভিজ্ঞতা দেখায় যে বিখ্যাত প্রকৌশলী সম্পূর্ণ সঠিক ছিলেন। অনেক আলোচিত বিআরটি প্রকল্পটি কখনোই শেষ হবে না এমন পথে রয়েছে বলে মনে হচ্ছে। এমনকি যদি  এটি চূড়ান্তভাবে সমাপ্ত হয়, তখন এটি জনগণের জন্য কতটা প্রকৃত সুবিধা আনবে তা দেখার বিষয়। প্রকল্পের কাজের সাথে জড়িত কারিগরি লোকেরাও এই মতামতকে প্রতিধ্বনিত করতে পারেন। এই ধরনের আরও অনেক প্রকল্প আছে যা উদাহরণ হিসাবে উল্লেখ করা যেতে পারে।

এমন পরিস্থিতিতে, শুধুমাত্র আমলা এবং প্রকৌশলীদের এই করুণ অবস্থার জন্য দোষারোপ করা কি ন্যায্য? মন্ত্রী পর্যায়ের রুটিন তদারকি এবং বাস্তবায়নের প্রতিটি ধাপে জবাবদিহিতা চাওয়ার কী হবে? এটি করতে ব্যর্থ হলে কি মন্ত্রীদের এর সহযোগী করে না? তাহলে কেন শুধুমাত্র আমলা এবং প্রকল্প পরিচালকদের, বিশেষ করে যারা সৎভাবে জীবিকা অর্জন করতে চান, তাদের ব্যয় এবং সময় বৃদ্ধির জন্য দোষারোপ করা হয়? জনপ্রতিনিধিদের, আরও বেশি করে একজন মন্ত্রিসভার সদস্যের, তাদের নিজস্ব ব্যর্থতা স্বীকার করার এবং দোষ স্বীকার করার সততা উচিত।  শুধুমাত্র সচিবালয় এবং কারিগরি পর্যায়ে জড়িত বেতনভোগী কর্মচারীদের উপর দায় চাপানো উচিত নয়।

সাক্ষাৎকারে মান্নান বলেছেন, “প্রতিটি আমলাতান্ত্রিক স্তর নিজেদের স্বাধীন হিসাবে ভাবে, অথবা স্বাধীনভাবে তাদের কাজ করতে চায়।” তিনি দাবি করেছেন যে এই ঘটনা হলো “কাজ বিলম্বিত হওয়ার কারণ”। আমার কাছে, এই রায় নিজের ব্যর্থতার স্বীকারোক্তি; এটা অনৈতিক না হলেও মারাত্মকভাবে ভুল। একজন দায়িত্বশীল জনপ্রতিনিধির এমন মন্তব্য অত্যন্ত দুর্বল শাসন বা বলা যেতে পারে শুধুমাত্র দুর্বল শাসনেরই ইঙ্গিত দেয়।

এমএ মান্নান পুরো প্রক্রিয়াকে আরও সময় এবং খরচ-কার্যকর করার জন্য পদ্ধতির একটি ধারাবাহিক গতিশীল এবং উদ্ভাবনী পরিবর্তনের প্রস্তাব দিয়েছেন। এর জন্য তাকে প্রশংসা করা উচিত, যদিও এগুলো খুব কম এবং খুব দেরিতে এসেছে। সম্ভবত তিনি মন্ত্রিসভার সদস্য থাকাকালীন এগুলোকে এগিয়ে নেয়ার সঠিক সময় ছিল, এখন নয়, কারণ এখন আর তিনি  নির্বাহী নন।  তাই তিনি  যতই সৃজনশীল হোক না কেন, আশা করা যায় যে পরিবর্তনের জন্য তার প্রেসক্রিপশনগুলো একটি অলীক স্বপ্ন হয়ে থাকবে না।

শামসের মবিন চৌধুরী, বীর বিক্রম, বাংলাদেশের সাবেক পররাষ্ট্র সচিব এবং ত্রিনামূল বিএনপির সভাপতি।

( লেখাটি এর আগে ডেইলি স্টারে ছাপা হয়েছিলো। লেখকের  অনুমতি ক্রমে সেটা বাংলায় এখানে ছাপা হলো।)

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

kjhdf73kjhykjhuhf
© All rights reserved © 2024