রবিবার, ২৬ মে ২০২৪, ০৩:১৬ পূর্বাহ্ন

ভারতের অর্থনীতি কতটা শক্তিশালী?

  • Update Time : রবিবার, ২৮ এপ্রিল, ২০২৪, ৮.৩০ এএম

ভারত পরবর্তী চীন নয়। তবে এটি যেভাবে এগুচ্ছে তাতে নিজেকে এবং বিশ্ব অর্থনীতিকে রূপান্তরিত করবে। সে দেশের নেতা নরেন্দ্র মোদি ছয় সপ্তাহের সময়ের মধ্যে তৃতীয়বারের মতো ভারতের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে জিততে চলেছেন, নেহরুর পর থেকে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ নেতা হিসাবে তার মর্যাদাকে উঁচুতেই তুলেছেন।  একজন চা-বিক্রেতার ছেলের নির্বাচনী সাফল্য, তার রাজনৈতিক দক্ষতা, তার হিন্দু-জাতীয়তাবাদী মতাদর্শের শক্তি এবং গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলির ক্ষয় অনেক কিছুই তার সঙ্গে জড়িত। কিন্তু সাধারণ ভোটার এবং অভিজাতদের এই অনুভূতিও তার প্রতি রয়েছে যে তিনি ভারতকে সমৃদ্ধি এবং ক্ষমতা এনে দিচ্ছেন। মোদীর ভারত হল একটি পরীক্ষা যে কীভাবে বিশ্বায়নবিরোধী পরিবেশে এবং একজন শক্তিশালী নেতৃত্বের অধীনে ধনী হওয়া যায়। পরবর্তী ১০ বা ২০  বছরে এটি দ্রুত বৃদ্ধি পেতে পারে কিনা এবং অশান্তি এড়াতে পারে কিনা এসব মিলে ১.৪  বিলিয়ন মানুষ এবং বিশ্ব অর্থনীতির ভাগ্য নির্ধারনের অবস্থানে রয়েছে ভারত।

তবে প্রশ্ন উঠেছে ভারতের সাফল্য চিরস্থায়ী হবে কিনা এবং এটি মি.মোদির ক্ষমতায় থাকার উপর নির্ভর করে কিনা। বিশ্বের দ্রুততম বর্ধনশীল বড় দেশ ভারত 6-7% বার্ষিক হারে প্রসারিত হচ্ছে। নতুন তথ্য দেখায় ২০১০  সাল থেকে বেসরকারি খাতের আত্মবিশ্বাস সর্বোচ্চে রয়েছে। ইতিমধ্যেই পঞ্চম বৃহত্তম অর্থনীতি, ২০২৭ সালের মধ্যে এটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং চীনের পরে তৃতীয় স্থানে থাকতে পারে।

ভারতের প্রভাবের নতুন আরেকটি দিক দেখা যাচ্ছে। মার্কিন ফার্মগুলোতে ১.৫ মিলিয়ন কর্মী রয়েছে,  যা অন্য যেকোনো বিদেশী দেশের তুলনায় বেশি। এর শেয়ার বাজারটি বিশ্বের চতুর্থ এবং সবচেয়ে মূল্যবান।  অন্যদিকে বিমান বাজারটি তৃতীয় স্থানে রয়েছে। ভারতের রাশিয়ান তেল ক্রয় বৈশ্বিক দামের ওপর প্রভাব ফেলে। ধনী হওয়ার অর্থ আরও বেশি ভূ-রাজনৈতিক প্রভাব। হাইতিরাসুয়েজ খালকে ব্যাহত করার পর ভারত মধ্যপ্রাচ্যে দশটি যুদ্ধজাহাজ মোতায়েন করে। প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন এবং ডোনাল্ড ট্রাম্পের এই বিতর্ক ছাড়াই এটি স্বীকার করেছেন যে ভারত একটি স্বাধীন নেতা হিসাবেই থাকবে।

আপনি যদি “পরবর্তী চীন” খুঁজে থাকেন – একটি উৎপাদন-নেতৃত্ব অলৌকিক – এটি ভারত নয়। পণ্য বাণিজ্য মন্দা এবং কারখানা স্বয়ংক্রিয়করণের এই সময়ে দেশটি বিকশিত হচ্ছে। সুতরাং এটির জন্য বৃদ্ধির একটি নতুন মডেল উদ্ভাবন করা প্রয়োজন। এর একটি স্তম্ভ হল পরিচিত: অবকাঠামোর একটি বিশাল কর্মসূচি যা বৃহৎ একক বাজারকে একত্রিত করে। ভারতে এক দশক আগের তুলনায় দ্বিগুণ ১৪৯ টি বিমানবন্দর রয়েছে, এবং প্রতি বছর ১০,০০০ কিলোমিটার রাস্তা এবং ১৫ গিগাবাইট  সৌর শক্তির ক্ষমতা যোগ করছে।

এই ধরনের কিছু অবকাঠামো বেড়ে চলেছে,  যার মধ্যে রয়েছে ডিজিটাল পেমেন্ট, আধুনিক পুঁজিবাজার এবং ব্যাংক, এবং একটি ঐক্যবদ্ধ ডিজিটাল ট্যাক্স সিস্টেম। এই সবকিছু ফার্মগুলোকে জাতীয় অর্থনৈতিক মাত্রা কাজে লাগাতে দেয়।

 দ্বিতীয়, আরও নতুন স্তম্ভ হল পরিষেবা রপ্তানি, যা জিডিপির ১০% পৌঁছেছে। পরিষেবা খাতে বৈশ্বিক বাণিজ্য এখনও বৃদ্ধি পাচ্ছে এবং ভারতীয় আইটি ফার্মগুলো “বৈশ্বিক সক্ষমতা কেন্দ্র” বাজারজাত করেছে – বহুজাতিক গবেষণা ও উন্নয়ন এবং আইন ও অ্যাকাউন্টিং এর মতো পরিষেবা বিক্রি করে যেমন হাব।

তবে  চকচকে টেক ক্যাম্পাসগুলো থাকা সত্ত্বেও, ভারত এখনও একটি আধাদেশীয় সমাজ। এর অর্থনৈতিক মডেলের শেষ স্তম্ভ প্রকাশ করে, একটি নতুন ধরনের কল্যাণ ব্যবস্থা যেখানে কোটি কোটি গরীব ভারতীয় ডিজিটাল স্থানান্তর-পেমেন্ট গ্রহণ করে। নতুন ডেটা ইঙ্গিত দেয় যে ২০১৭ সালের মূল্যে দৈনিক ২.১৫ ডলারের আয়ের নিচের মানুষের সংখ্যা  জনসংখ্যার অংশ ২০১১

‘র তুলনায় ১২%  থেকে ৫% এর কম হয়েছে, যা দারিদ্র্যের একটি বৈশ্বিক পরিমাপ।

মোদী কতটা কৃতিত্ব পাওয়ার যোগ্য? তার সবচেয়ে সফল নীতিগুলি ১৯৯০ এবং ২০০০ দশকে ভারতে উদ্ভূত উদারনৈতিক এজেন্ডা থেকে আসে, কিন্তু সেখানে কোনও ভুল নেই। তিনি আটকে পড়া সংস্কার জোর করে চালিয়ে যাওয়ার জন্য, গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তগুলির ব্যক্তিগতভাবে তদারকি করার এবং আমলাদের এবং বিরোধীদের হুমকি দেওয়ার সম্মান পাওয়ার যোগ্য। কেউ কেউ বলেন তিনি ক্রোনি ক্যাপিটালইজমকে লালন করেছেন। কিন্তু যদিও কিছু বড় ফার্ম পক্ষপাতিত্ব পায়-   তারপরেও ব্যবসায় ঘনত্ব কমছে, দুর্নীতি কমেছে এবং ব্যবসায় একটি প্রচুর বৈচিত্র্য রয়েছে। একজন সিইও এবং একজন জনপ্রিয় ব্যক্তির মাঝখানে, মোদী সভায় পাওয়ার পয়েন্ট উপস্থাপনা উপভোগ করেন।

তিনি যদি আরও পাঁচ বছর জিতে, ভারত দৃঢ়ভাবে বৃদ্ধি অব্যাহত রাখবে। এর মধ্যবিত্ত শ্রেণী অর্থাত্‌ ৬০ মিলিয়ন লোক বছরে ১০ হাজার আমেরিকান ডলারের  বেশি আয় করে; ২০২৭ সাল নাগাদ এটা  ১০০  মিলিয়ন হবে।  গোল্ডম্যান স্যাকস, একটি ব্যাংকহিসাব সেখানে চালু রেখেছে,  এখন ভারতে তাদের ২০%  কর্মী রয়েছে। তবে ভারত একটি ভয়ানক সমস্যার মুখোমুখি। কর্মক্ষম বয়সী জনসংখ্যার ১ বিলিয়নের মধ্যে, কেবলমাত্র ১০০ মিলিয়নের আনুষ্ঠানিক চাকরি রয়েছে। বাকিরা বেশিরভাগ খন্ডকালীন কাজ বা বেকারত্বে আটকে আছে। মোদীর নম্র নীতি নেতৃত্ব তাকে এই লোকদের সাথে কথা বলতে সাহায্য করে। ভারতের অতিরিক্ত শ্রমের কিছু আত্মসাৎ করতে তিনি উৎপাদন প্রচারের জন্য একটি রাষ্ট্র পরিচালিত প্রণোদনা প্রকল্প ব্যবহার করছেন। কিন্তু এই প্রকল্পটি তার লক্ষ্যগুলির কিছুটা ক্ষতি  করলেও, এটি কেবল ৭ মিলিয়ন চাকরি সৃষ্টি করবে। চীনা রপ্তানি বৃদ্ধির জন্য প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের পরিকল্পনা  এই কাজটিকে আরও কঠিন করে তুলবে।

ভারতের অর্থনীতি অবশ্যই দলগত কর্মসংস্থান তৈরি করবে তার প্রবৃদ্ধি ধরে রাখতে। একটি পথ হবে একটি আরও বড় আইটি খাত,  বিশ্বের জন্য একটি ডিজিটাল হাব হিসাবে কাজ করা, এবং রপ্তানি শিল্পের একটি ক্লাস্টার, ডিজিটাল অর্থনীতি, খাদ্য এবং প্রতিরক্ষা সহ (যেখানে আমেরিকার সাথে আরও শক্তিশালী সম্পর্ক সাহায্য করবে)। এই শিল্পগুলিতে শ্রমিকদের দ্বারা ব্যয় অন্যান্য খাতে, নির্মাণ থেকে হোটেল পর্যন্ত আরও চাকরি সৃষ্টি করবে। একটি দক্ষ, একক স্থানীয় বাজার সামগ্রিক উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি করবে এবং এ ধরনের ভালো লক্ষ্য পিছিয়ে পড়া লোকদের সাহায্য করবে।
এই জন্য, ভারতকে শিক্ষা এবং কৃষিকে রূপান্তর করতে হবে, এবং জনবহুল উত্তর থেকে দক্ষিণ ও পশ্চিমের বড় শহরগুলিতে অনেক বেশি অভিবাসন সক্ষম করতে হবে। সেই মহাকাব্যিক মানদণ্ড দ্বারা বিচার করলে, মোদীর খুব কম বলার আছে। তার ভারতীয় জনতা পার্টির (বিজেপি) কিছু দূ‍রদৃষ্টি এবং ধারণা রয়েছে তবে বেশিরভাগই মতাদর্শ এবং মুসলিম-নিগ্রহের উপর ফোকাস করে। একটি উত্থানশীল অসহিষ্ণুতা রাজনৈতিক বিরোধিতা এবং বাক স্বাধীনতাকে সীমিত করেছে। ফার্মগুলির মোদীর ভয়ের ঘটনাটিই ব্যাখ্যা করতে পারে কেন বিনিয়োগ এখনও চড়ান্ত স্ফীতির মুখোমুখি হয়নি।

২০৩০ এর দশকে বিশাল সামাজিক পরিবর্তনের জন্য জনসাধারণকে প্রস্তুত করার প্রক্রিয়াটি খুব কমই শুরু হয়েছে। শিক্ষা, শহর এবং কৃষিকে নতুন করে গড়ার জন্য বিজেপি দ্বারা নেতৃত্বাধীন নয় এমন রাজ্য সরকার এবং বিপর্যয়ের মুখোমুখি সামাজিক গোষ্ঠীগুলির সহযোগিতা প্রয়োজন, কিন্তু মোদির বিদ্বেষী রাজনীতি তাদের অনেককে বিচ্ছিন্ন করে রেখেছে।

তিনি ভারতের লি কুয়ান ইউ বা এর এরদোগান সেটা বড় নয়,  ভারত এবং এর ভারী অর্থনীতির জন্য প্রশ্ন হল,  মোদী জিতবেন কিনা তা নয়, বরং তিনি বিকশিত হবেন কিনা?  ৭৩ বছর বয়সের কারনে  তার পরিচালনার ক্ষমতা কমে যাবে কিনা?  ১৯৯০ -এর দশকে যে সংস্কারের এজেন্ডা উদ্ভূত হয়েছিল তার সাথে সমতুল্য একটি নতুন সংস্কারের এজেন্ডা তৈরি করতে এবং একটি সমৃদ্ধ জ্ঞান অর্থনীতি পোষণ করতে- যা নিজের চিন্তা করার জন্য ও ভালো  লোকেদের পুরস্কৃত করে সর্বোপরি স্বৈরাচারী প্রবণতাকে নিয়ন্ত্রণ করতে হবে।

আরও স্থানীয় এবং বিদেশী বিনিয়োগ আকর্ষণ করতে এবং বৃদ্ধিমনস্ক উত্তরসূরী খুঁজে পেতে, তার দলকে তাদের গোঁড়ামি রাজনীতি সংকুচিত করতে হবে। না হলে, জাতীয় নবায়নের মোদীর মিশন তার প্রতিশ্রুতির সাথে যথাযথভাবে বাঁচবে না।

(দ্য, ইকোনমিস্ট থেকে অনুদিত)

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

kjhdf73kjhykjhuhf
© All rights reserved © 2024