মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ০১:২২ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
ঘূর্ণিঝড় মোকাবিলায় কাজ করছে ব্র্যাকের প্রায় ২৩ হাজার কর্মী ও স্বেচ্ছাসেবক ঘূর্ণিঝড়, নিম্নচাপের সংখ্যা কমছে, বাড়ছে তীব্রতা ম্যান্ডেট ২০২৪: বারাণসী থেকে দৃশ্যপট উত্তর প্রদেশের পূর্বাঞ্চল অঞ্চলে প্রতিযোগিতার প্রাণ মুর্শিদাবাদ-কাহিনী (পর্ব-৬৮) ইতালির রূপকথা (বুদ্ধিজীবী) সিনেমাপ্রেমীরা এটি পছন্দ করবে-বরুণ ধাওয়ান স্মার্ট নেতা হবেন কীভাবে? (পর্ব ৬৬) ৬০ বছরের ‘মিস বুয়েনস আইরেস’ বলেন ‘পরিবর্তন আসছে’ কারন ‘মিস ইউনিভার্সের’ দৌড় শেষ ঘূর্ণিঝড় রেমালের তান্ডবে দেশের বিভিন্নস্থানে নিহত ৭ ‘স্মার্ট বাংলাদেশ’ গড়ার অগ্রযাত্রায় মার্কিন ব্যবসায়ীদের সহযোগিতা চেয়েছেন প্রধানমন্ত্রী

বাংলাদেশের সঙ্গে বাণিজ্য আলোচনা হবে -থাই প্রধানমন্ত্রী

  • Update Time : শনিবার, ২৭ এপ্রিল, ২০২৪, ৬.৪০ পিএম
বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং প্রধানমন্ত্রী স্রেথা থাভিসিন পাঁচটি চুক্তি এবং সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরের সময় উপস্থিত ছিলেন । এগুলো দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে শক্তিশালী করবে ।

সারাক্ষণ ডেস্ক

প্রধানমন্ত্রী স্রেথা থাভিসিন বলেছেন, “থাইল্যান্ড এবং বাংলাদেশ একটি মুক্ত বাণিজ্য চুক্তির (এফটিএ)আওতায় একসাথে কাজ করতে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ ”

থাইল্যান্ডে প্রধানমন্ত্রীকে গার্ড অব অনার

মিঃ স্রেথা বলেছেন যে তিনি সন্তুষ্ট যে থাইল্যান্ড এবং বাংলাদেশ একটি এফটিএ এর আওতায় একসাথে কাজ করতে সম্মত হয়েছে।তিনি বলেন, শুক্রবার উভয় দেশই “থাইল্যান্ডের শুরুর অভিপ্রায় পত্র – বাংলাদেশ এফটিএ নেগোসিয়েশন” স্বাক্ষর করেছে।বাংলাদেশী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে সাক্ষাত এবং ব্যাংককের গভর্নমেন্ট হাউসে পাঁচটি চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর প্রত্যক্ষ করার পর এক সংবাদ সম্মেলনে জনাব স্রেথা এ কথা বলেন।

এগুলি ছাড়াও, শুক্রবার আরও তিনটি সমঝোতা স্মারক এবং একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়েছে: সরকারী পাসপোর্টধারীদের জন্য ভিসা ছাড়ের চুক্তি, যা থাই এবং বাংলাদেশের কর্মকর্তাদের আরও ভ্রমণের সুবিধা দেবে; শক্তি সহযোগিতার উপর একটি সমঝোতা স্মারক, যা শক্তি সহযোগিতার সুফল বাস্তবায়িত করতে সাহায্য করবে; শুল্ক বিষয়ে সহযোগিতা ও পারস্পরিক সহায়তার বিষয়ে একটি সমঝোতা স্মারক, যা কার্যকর সীমান্ত নিয়ন্ত্রণ এবং চোরাচালান বিরোধী অভিযানে নেতৃত্ব দেবে; এবং পর্যটন ক্ষেত্রে সহযোগিতার বিষয়ে একটি সমঝোতা স্মারক, যা উভয় দেশকে এই ক্ষেত্রে জ্ঞান, অভিজ্ঞতা এবং সর্বোত্তম অনুশীলনের আদান-প্রদান করতে দেবে।

মিঃ স্রেথা বলেন, উভয় পক্ষই কৃষিতে বিশেষ করে হালাল এবং খাদ্য প্রক্রিয়াকরণ খাতে সহযোগিতা বাড়ানোর লক্ষ্য নিয়ে কাজ করছে। উভয় দেশ তাদের জনগণের জন্য খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে তাদের সম্পদের পূর্ণ ব্যবহার করতে সহযোগিতা করবে ।

তিনি বলেন,”দুই দেশ অবকাঠামো ও সংযোগের উন্নতিতেও গুরুত্ব দেয়। রণং বন্দর এবং চট্টগ্রাম বন্দরের মধ্যে সরাসরি জাহাজ চলাচল শুরু হলে সামুদ্রিক যোগাযোগ বৃদ্ধি পাবে এবং অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডকে শক্তিশালী করতে সাহায্য করবে।বাণিজ্য প্রসঙ্গে মিঃ স্রেথা বলেন, থাইল্যান্ড ও বাংলাদেশ দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যের পরিমাণকে 1.2 বিলিয়ন মার্কিন ডলার স্বাগত জানায় এবং বিশ্বাস করে যে উভয় পক্ষই অর্থনৈতিক সহযোগিতা সম্প্রসারণের জন্য আরও কিছু করতে পারে।

 

তিনি বলেন যে,  তিনি বাংলাদেশী পক্ষকে বিনিয়োগ প্রচারের স্কিম প্রদান করতে এবং ব্যবসা সহজ করতে উৎসাহিত করেছেন, যা আরও থাই বিনিয়োগকারীদেরকে সহজতর ও আকৃষ্ট করবে। তিনি বলেন, থাইল্যান্ড এ বছর বে অব বেঙ্গল ইনিশিয়েটিভ ফর মাল্টি-সেক্টরাল টেকনিক্যাল অ্যান্ড ইকোনমিক কো-অপারেশন সামিটের আয়োজন করবে, যেখানে বাংলাদেশ পরবর্তী বিমসটেক চেয়ার হবে।

বিমসটেককে আঞ্চলিক অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির মূল চালিকা হিসেবে বিবেচনা করা হয়

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

kjhdf73kjhykjhuhf
© All rights reserved © 2024