শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ০৩:২২ অপরাহ্ন

টাইটানিকের সোনার পকেট ঘড়ি ৯ লাখ পাউন্ডে বিক্রি

  • Update Time : সোমবার, ২৯ এপ্রিল, ২০২৪, ৪.৪১ পিএম

সারাক্ষণ ডেস্ক

টাইটানিকের সবচেয়ে ধনী যাত্রীর ব্যবহার করা একটি সোনার পকেট ঘড়ি রের্কড দামে বিক্রি হয়েছে। ঘড়িটি নিলামে বিক্রি হয়। ঘড়িটি ব্যবসায়ী জন জ্যাকব অ্যাস্টরের ছিল। এটি অন্য টাইটানিক শিল্পকর্মের সমান কিন্তু কর এবং ফি বিবেচনায় নেয়া হলে দাম আরো বাড়বে।

ডিভাইজের হেনরি অ্যালড্রিজ অ্যান্ড সনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মিঃ অ্যালড্রিজ বলেন, ধারণা ছিল, নিলামে হয়তো এক থেকে দেড় লাখ পাউন্ড দাম উঠবে সোনার ঘড়িটির। কিন্তু তাদের প্রত্যাশা চেয়েও প্রায় ১০ গুণ বেশি দামে বিক্রি হয়েছে।

১৯১২ সালে জাহাজটি ডুবে যাওয়ার সময় ডেকের অর্কেস্ট্রার নেতৃত্বদানকারী ব্যক্তির একটি বেহালা কেসও নিলামে ২ লাখ ৯০ হাজার পাউন্ড দাম পেয়েছিল তবে যখন এর সাথে কর এবং ফি যোগ করা হয়, তখন আরো দাম বাড়বে।

১৯১২ সালের ১৪ এপ্রিল রাতে টাইটানিক সাউদাম্পটন থেকে নিউইয়র্কের দিকে যাত্রা করছিল যখন এটি উত্তর আটলান্টিকের একটি হিমশৈলের সাথে ধাক্কা খায়। এটি ১ হাজার ৫০০ জনেরও বেশির প্রাণহানি হয় এবং ডুবে যায়। এই বিপর্যয় সামুদ্রিক ইতিহাসের অন্যতম কুখ্যাত, যা বই, নাটক, গান এবং হলিউডের চলচ্চিত্রগুলিকে অনুপ্রাণিত করে।

ঘড়ি এবং বাদামী চামড়ার বেহালা ব্যাগটি দুই ব্যক্তির ছিল যারা টাইটানিক লোককাহিনীতে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। অ্যাস্টরের কাহিনী টাইটানিক সিনেমার প্রধান দুই চরিত্র জ্যাক আর রোজের মতোই। দুর্ঘটনার সময় জাহাজে  তার স্ত্রী ম্যাডেলিনও সঙ্গে ছিলেন। তবে তাকে একটি লাইফবোটে তুলে দিয়েছিলেন অ্যাস্টর। ফলে প্রাণে বেঁচে যান ম্যাডেলিন। তবে বাঁচতে পারেননি ধনকুবের অ্যাস্টর।

 

ব্যাগটি ওয়ালেস হার্টলির ছিল, যিনি জাহাজটি ডুবে যাওয়ার সময় যাত্রীদের শান্ত করতে তাঁর বেহালা বাজিয়েছিলেন

 

৪৭ বছর বয়সী মিস্টার অ্যাস্টর তার অল্পবয়সী স্ত্রী মেডেলিনকে একটি লাইফবোটে বসিয়ে এবং একটি শেষ সিগারেট ধূমপান করার পর জাহাজটি নিয়ে নেমে যান। জাহাজ ডুবে যাওয়ার প্রায় এক সপ্তাহ পর অ্যাস্টরের লাশ উদ্ধার করা হয়। সে সময় তার কাছে পাওয়া বিভিন্ন জিনিসের মধ্যে সোনার ঘড়িটিও ছিল। নিলাম কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, উদ্ধারের পর ঘড়িটি অ্যাস্টরের পরিবারের কাছে ফিরিয়ে দেয়া হয়েছিল। পরে সেটি মেরামত করে ব্যবহার করতেন অ্যাস্টরের ছেলে।

ল্যাঙ্কাশায়ারের কোলন থেকে ওয়ালেস হার্টলি এবং তাঁর আট-পিস ব্যান্ড বিখ্যাতভাবে যাত্রীদের শান্ত করার জন্য “বাজিয়েছিল” যখন তাদের চারপাশে বিপর্যয় ঘটেছিল। তাদের মালিকদের মৃতদেহ জল থেকে উদ্ধার করা হলে দুটি জিনিসই উদ্ধার করা হয়।

 

জাহাজ ডুবে যাওয়ার প্রায় এক সপ্তাহ পর অ্যাস্টরের লাশ উদ্ধার করা হয়।

ব্রিটিশ টাইটানিক সোসাইটির চেয়ারম্যান ডেভিড বেডার্ড বলেন, “টাইটানিকের এই ঘড়িটি পুনরুদ্ধার করা হয়েছিল এবং মিঃ অ্যাস্টারের ছেলে ভিনসেন্ট এটি পরেছিলেন।

“যাইহোক, আমরা টাইটানিক সম্প্রদায়ের জন্য খুব ভাগ্যবান যে এমনকি যখন এই ধরনের জিনিসগুলো যে ব্যক্তিরা কেনেন, তারা কোটিপতি বা সাধারণ মানুষই হোন না কেন, তারা খুব উদার বলে মনে হয় এবং তারা এই নিদর্শনগুলো প্রদর্শনের জন্য ইজারা দেয় বা ধার দেয়।”

 

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

kjhdf73kjhykjhuhf
© All rights reserved © 2024