শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ০৫:১৫ পূর্বাহ্ন

তীব্র তাপমাত্রার রেকর্ড : নতুন জলবায়ু যুগের সংকেত

  • Update Time : সোমবার, ২৯ এপ্রিল, ২০২৪, ৯.০৪ পিএম

 

মালির রাজধানীতে এতো তীব্র গরম যেন সব কিছু পুড়ে যাচ্ছে। এই গরম রাস্তা থেকে মানুষদের যেন তাড়া করে ঘরে ফেরায়! তারপর তাদের বাড়ির ভিতরেও দম বন্ধ করে দেয়। এ যেন ভয়াবহ কোন লোমহর্ষক সিনেমার ঘটনা। এপ্রিলের শুরুতে প্রায় এক সপ্তাহ ধরে বামাকোতে তাপমাত্রা ১১০ ডিগ্রি  ফারেনহাইটের (৪৩.৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস) উপরে ছিল। বরফের দাম তার স্বাভাবিক দামের ১০ গুণ বেড়ে যায়। তখন তা ওভারট্যাক্সযুক্ত বৈদ্যুতিক গ্রিডে ছড়িয়ে পড়ে এবং বন্ধ হয়ে যায়। ইম্পেরিয়াল কলেজ লন্ডনের গ্র্যান্থাম ইনস্টিটিউটের গবেষক ক্লেয়ার বার্নস অতিরিক্ত তাপমাত্রা সম্পর্কে বলেন,”আমরা যদি বায়ুমণ্ডলে কার্বন ডাই অক্সাইড এবং অন্যান্য গ্রিনহাউস গ্যাস বাড়াতে থাকি, তাহলে আমরা শুধু উষ্ণায়ন চলতেই থাকবে। দুঃখজনক হলেও সত্য যে, অস্বাভাবিক তাপমাত্রা এবং বেশি জলবায়ু পরিবর্তন, পুরো পৃথিবীকে অজানা পথের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। এই  রেকর্ড তাপমাত্রা যেন নতুন জলবায়ু যুগের সংকেত।”

সংখ্যাগরিষ্ঠ-মুসলিম দেশের বেশিরভাগ অংশ পবিত্র রমজান মাসে উপবাস করে। তখন ডিহাইড্রেশন এবং হিট স্ট্রোক মহামারীতে পরিণত হয়। তাদের শরীরের তাপমাত্রা বাড়ার সাথে সাথে মানুষের রক্তচাপ কমে যায়। তাদের দৃষ্টিশক্তি অস্পষ্ট হয়ে যায়, তাদের কিডনি ও লিভার খারাপ হয়ে যায়। তাদের মস্তিষ্ক ফুলে উঠতে শুরু করে। শহরের প্রধান হাসপাতালে, চিকিৎসকরা মাত্র চার দিনে এক মাসের মৃত্যুর পরিমাণ রেকর্ড করেছেন। স্থানীয় কবরস্থানগুলো যেন উপচে পড়েছিল।

১৩ এপ্রিল নাইজারের নিয়ামের একটি হাসপাতালে ডিহাইড্রেশনের জন্য একজন বয়স্ক মহিলা ভর্তি হন

এই মাসে মালি এবং পশ্চিম আফ্রিকার অন্যান্য অংশে ঐতিহাসিক তাপপ্রবাহ ছিল। যা নিয়ে বিজ্ঞানীরা বলেছেন যে, মানব-সৃষ্ট জলবায়ু পরিবর্তন ছাড়া বিশ্বে “কার্যত অসম্ভব”  তাপমাত্রার এই আকস্মিক এবং উদ্বেগজনক উত্থান মাত্রা কমিয়ে আনা। কয়েক দশক ধরে অনিয়ন্ত্রিত জীবাশ্ম জ্বালানি পোড়ানো এবং গত জুনে উদ্ভূত একটি এল নিনো জলবায়ু প্যাটার্নের জন্য এই বছর বিশ্বে প্রাক-শিল্প স্তরের উপরে ১.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসের ভয়ের উষ্ণায়নের সীমা লঙ্ঘন করেছে। ১ জানুয়ারী থেকে প্রায় ১৯ হাজার আবহাওয়া কেন্দ্র রেকর্ড উচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করেছে। সেখানে দেখা যায়, গত ১০ মাসের প্রত্যেকটিই এই ধরনের সবচেয়ে উষ্ণতম ছিল।

গবেষকরা বলছেন, বায়ুমণ্ডলে অভূতপূর্ব পরিমাণে গ্রিনহাউস গ্যাসের কথা বিবেচনা করেও এই গরম তাপমাত্রা এবং এর তীব্রতা অকল্পনীয়। বিজ্ঞানীরা এখনও ব্যাখ্যা করতে চেষ্টা করছেন যে, কীভাবে বিশ্বে এতো তাপমাত্রার রেকর্ডকে ছাড়িয়ে যেতে পারে।

নাসার গডার্ড ইনস্টিটিউট ফর স্পেস স্টাডিজের পরিচালক গ্যাভিন শ্মিট বলেছেন, আগামী কয়েক মাসের মধ্যে যা ঘটবে তা ইঙ্গিতে বোঝা যায়, পৃথিবীর জলবায়ু একটি মৌলিক পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে গেছে। যা কিনা-উষ্ণায়নের একটি কোয়ান্টাম লক্ষণ যা জলবায়ু মডেলগুলোকে বিভ্রান্ত করছে এবং আরও বিপজ্জনক আবহাওয়ার চরমসীমা অতিক্রম করছে।

শ্মিট বলেন, তবে বিশ্ব যদি আরও প্রত্যাশিত উষ্ণায়নের গতিপথের দিকে ফিরেও যায়, তবে এটি মানবজাতিকে শীঘ্রই যে পরিস্থিতির মুখোমুখি হতে হবে তা থেকে শুধু একটি অস্থায়ী বিরতি হবে। কারণ “বিশ্ব উষ্ণায়ন অব্যাহত রয়েছে”।

 

রহস্যময় গরম

বিজ্ঞানীরা জানতেন যে, তাপমাত্রা সব রেকর্ড ভাঙতে শুরু করবে। কারণ যত তাড়াতাড়ি পৃথিবীতে এল নিনো জলবায়ু প্যাটার্নে প্রবেশ করে তখন প্রশান্ত মহাসাগরে উষ্ণায়নের সাথে সম্পর্কিত একটি প্রাকৃতিক ঘটনা। এল নিনো পৃথিবীর সামগ্রিক তাপমাত্রায় স্পাইকগুলোর সাথে যুক্ত এবং এটি এমন একটি সময়ে তা প্রকাশিত হয়েছিল যা ইতিমধ্যে প্রাক-শিল্প স্তর থেকে ১.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস (২.২ ডিগ্রি ফারেনহাইট) উষ্ণ হয়েছে।

তবুও এই এল নিনো শুধু রেকর্ডই ভাঙল না, সেগুলো নিশ্চিহ্ন করে দিল। জুলাই মাসে পরপর চারটি দিন ইতিহাসের উষ্ণতম দিন হয়ে ওঠে। উত্তর গোলার্ধে তার উষ্ণতম গ্রীষ্ম-এবং তারপর তার উষ্ণতম শীত-বিজ্ঞানের কাছে পরিচিত।

২০২৩ সালের শেষের দিকে, পৃথিবীর গড় তাপমাত্রা প্রাক-শিল্প গড়ের তুলনায় প্রায় ১.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস (২.৭ ডিগ্রি ফারেনহাইট) বেশি ছিল। এবং জলবায়ু মডেলারদের পূর্বাভাসের চেয়ে প্রায় ০.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস (০.৩৬ ডিগ্রি ফারেনহাইট) গরম ছিল। এমনকি এল নিনোর বিবেচনায় রেখে এতো গরম পূর্বাভাস অনুযায়ী হওয়া ব্যতিক্রম।

গবেষকরা গত কয়েক মাস ধরে সেই ০.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস অসামঞ্জস্যের সম্ভাব্য ব্যাখ্যাগুলো তদন্ত করে চলেছেন। একটি আগ্নেয়গিরির অগ্ন্যুৎপাত যা বায়ুমণ্ডলে তাপ-ট্র্যাপিং জলীয় বাষ্পকে উস্কে দেয়। শিপিং জ্বালানীতে পরিবর্তন যা সূর্যকে অবরুদ্ধ করে এমন মেঘের গঠনকে প্রভাবিত করে। এখনও পর্যন্ত , এই কারণগুলো শুধু অসঙ্গতির একটি ছোট অংশের জন্য দায়ী হতে পারে। যা আশঙ্কা জাগিয়ে তোলে যে, বিজ্ঞানীদের মডেলগুলো জলবায়ু ব্যবস্থায় দীর্ঘস্থায়ী পরিবর্তন ধরতে ব্যর্থ হতে পারে।

শ্মিট বলেন, “আমরা যে পরিসংখ্যানগত সংযোগের উপর ভিত্তি করে আমাদের ভবিষ্যদ্বাণীগুলো করছি তা যদি আর ঠিক না হয়? হয়তো অতীত আর ভবিষ্যতের পথপ্রদর্শক নয়।”

এই সম্ভাবনা জলবায়ু বিজ্ঞানীদের ভাবিয়ে তুলছে। বিজ্ঞান ম্যাগাজিনে বহু-অংশের ব্যাখ্যাকারীদের এবং একাডেমিক সভাগুলোতে বিশেষ ব্রেকআউট সেশনগুলোকে জাগিয়ে তুলেছে। তবে শ্মিট বলেছেন যে, বিশ্বের কতটা উদ্বিগ্ন হওয়া উচিত তা জানা খুব তাড়াতাড়ি প্রয়োজন। সম্প্রতি উৎক্ষেপণ করা নাসার একটি উপগ্রহের দেয়া নতুন তথ্য মতে, শিপিং নির্গমনের পরিবর্তনগুলো আসলে অতিরিক্ত উষ্ণায়নে অবদান রেখেছিল। গবেষণায় দেখা যায় যে, বায়ুমণ্ডল এবং মহাসাগরগুলোতে আপাতদৃষ্টিতে ছোট পরিবর্তনগুলো পৃথিবীকে এই চরম সীমায় ঠেলে দেওয়ার জন্য যথেষ্ট ছিল।

আগামী কয়েক মাসের মধ্যে আরেকটি পরীক্ষা আসবে, যখন গ্রহটি এল নিনো থেকে তার বিপরীত প্যাটার্নে স্থানান্তরিত হবে। লা নিনা-এমন কিছু যা জাতীয় আবহাওয়া পরিষেবা গ্রীষ্মের মধ্যে ঘটবে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে। যেহেতু লা নিনা সাধারণত শীতল বৈশ্বিক তাপমাত্রার সাথে যুক্ত। তাই বিজ্ঞানীরা আশা করেন যে, এটি পৃথিবীর রেকর্ড গরম ধারার অবসান ঘটাবে।

বার্কলে আর্থের জলবায়ু বিজ্ঞানী এবং জেকে হাউসফাদার বলেন, এমন কিছু ইঙ্গিত রয়েছে যা ঘটতে পারে। যদিও গত মাসে ইতিহাসের উষ্ণতম মার্চ ছিল।

হাউসফাদার বলেন, “আমি আশা করি আমরা প্রত্যাশিত তাপমাত্রায় ফিরে আসব। কিন্তু যদি আমরা তীব্র তাপমাত্রার এমন রেকর্ড করতে থাকি, তাহলে আমাদের কিছু অনুমান অরো পুনর্বিবেচনা করতে হবে।”

 

 

সম্পূর্ণ নতুন ধরনের আবহাওয়া

এমনকি বিশ্বব্যাপী গড় তাপমাত্রা আরও অনুমানযোগ্য গতিপথে ফিরে এলেও, মানুষ এবং বাস্তুতন্ত্রের উপর উষ্ণায়নের প্রভাব ইতিমধ্যে অজ্ঞাত অঞ্চলে প্রবেশ করেছে। অ্যান্টার্কটিকার চারপাশে সমুদ্রের বরফ গত বছর তার সর্বনিম্ন মাত্রায় সঙ্কুচিত হয়েছিল। পরিমাপ শুরু হওয়ার পর থেকে শক্তিশালী আমাজন নদী তার সর্বনিম্ন স্তরে পৌঁছেছে। গবেষকরা এই সপ্তাহে একটি পুরো বিশ্বের প্রবাল ব্লিচিং ইভেন্ট ঘোষণা করেছেন। যা ইতিহাসের মাত্র চতুর্থবার এমন হয়েছে। বিজ্ঞানীরা সতর্ক করেছেন যে সমুদ্রের এই সংকট হয়তো একটি রেকর্ড করার পথে রয়েছে।

ইম্পেরিয়াল কলেজ লন্ডনের গ্র্যান্থাম ইনস্টিটিউটের গবেষক ক্লেয়ার বার্নস বলেন, “জলবায়ু এমন হারে উষ্ণ হচ্ছে যে, আমরা এখন সেই সীমার বাইরে চলে যাচ্ছি যা অতীতে অস্বাভাবিক আবহাওয়া ছিল।”

গবেষকরা জানিয়েছেন, মালির একটি শহরে পারদ ৪৮.৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস (১১৯..৩ ডিগ্রি ফারেনহাইট) ছুঁয়েছে। সম্ভবত এটি আফ্রিকার সবচেয়ে উষ্ণ তাপমাত্রার রেকর্ড। জলবায়ু বিজ্ঞানী এবং বুর্কিনা ফাসো ভিত্তিক রেড ক্রস জলবায়ু কেন্দ্রের উপদেষ্টা কিসভেনডিডা গুইগমা। যিনি নতুন বিশ্লেষণে অবদান রেখেছেন তিনি বলেন, তাপপ্রবাহের সময় সবেমাত্র ঘুমিয়েছিলেন। ঘন ঘন বিদ্যুৎ বিভ্রাটে তিনি ঘুমাতে পারেন নি।

গুইগমা বলেন, “আমরা উত্তাপে অভ্যস্ত, কিন্তু এই মাত্রার চরম অবস্থা আমরা কখনও অনুভব করিনি। বেশিরভাগ জলবায়ু বিপর্যয়ের মতো, তাপপ্রবাহের সবচেয়ে খারাপ প্রভাব বিশ্বের কিছু দরিদ্র এবং সবচেয়ে দুর্বল মানুষ বহন করে। গিগমা বলেন, মালি এবং বুর্কিনা ফাসোতে খুব কম মানুষেরই শীতাতপ নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা রয়েছে। অনেক দরিদ্র এলাকার স্থাপত্য এমন যে যেখানের ভবনগুলো তাপমাত্রা আরো বাড়িয়ে তোলে।

তাপপ্রবাহের বিশ্লেষণ ছিল ওয়ার্ল্ড ওয়েদার অ্যাট্রিবিউশনের সর্বশেষ প্রতিবেদন। গবেষকদের একটি বিশ্বব্যাপী নেটওয়ার্ক যারা চরম ঘটনাগুলোতে জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব দেখা যায়। এটি খুঁজে বের করার জন্য যে পৃথিবী উষ্ণ হওয়ার সাথে সাথে আগে অকল্পনীয় ঘটনাগুলো যেন সাধারণ হয়ে উঠছে।

 

মাদাগাস্কারে অক্টোবরের একটি তাপপ্রবাহ এতো বেশি ছিল যে, যেখানে ১০ দিন ধরে অসহনীয় রেকর্ড-ভাঙা তাপ অব্যাহত ছিল। গত সেপ্টেম্বরে লিবিয়ায় প্রচন্ড বৃষ্টি হয়। এ কারণে সেখানে হাজার হাজার মানুষ মারা যায়। জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে ৫০ গুণ বেশি হওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়েছিল।

বার্নস বলেন, পশ্চিম আফ্রিকার তাপপ্রবাহ আজ নজিরবিহীন। তবে বিশ্ব যদি আর ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস (৩.৬ ডিগ্রি ফারেনহাইট) উষ্ণ হয় তাহলে এমন কিছু হতে পারে যে, শতাব্দীর মাঝামাঝি সময়ে জলবায়ু পরিবর্তনে দ্রুত পদক্ষেপ না নিলে ভয়াবহ বিপর্যয়  ঘটতে পারে। প্রতি ১০ বছরে এই মাত্রার তাপপ্রবাহ ঘটবে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

kjhdf73kjhykjhuhf
© All rights reserved © 2024