শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ০৫:২৯ পূর্বাহ্ন

বৈষম্য এখন আর উপেক্ষা করা যায় না

  • Update Time : শনিবার, ৪ মে, ২০২৪, ৮.৩০ এএম

দীপা সিনহা

কংগ্রেস পার্টির নির্বাচনী ইশতেহার, ন্যায়পত্র, অসাম্য, সম্পদের কেন্দ্রীভবন এবং সেগুলি মোকাবিলার উপায় নিয়ে একটি বিতর্কের সূচনা করেছে। প্রধানমন্ত্রী কংগ্রেস ইশতেহারে কী আছে তা নিয়ে বিভ্রান্তিকর মন্তব্য করে সম্পদ পুনর্বিতরণ নিয়েও আলোচনাকে প্ররোচিত করেছেন। যথেষ্ট প্রমাণ রয়েছে যে ভারতে বৈষম্য বাড়ছে। ওয়ার্ল্ড ইনইকোয়ালিটি ডাটাবেস দেখেছে ২০২২-২৩ সালে দেশের মোট আয়ের ২২.৬% শীর্ষ ১% লোকের কাছে গেছে, যা ১৯২২ সালের পরে সর্বোচ্চ। সম্পদের অসাম্য আরও বেশি স্পষ্ট, শীর্ষ ১% জনসংখ্যার কাছে সম্পদের ৪০.১% অংশ রয়েছে। এটা পরিষ্কার যে অসাম্য আর উপেক্ষা করা যাবে না এবং এটাকে প্রবৃদ্ধির পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হিসাবে ন্যায্যতা দেওয়া যাবে না। এই অসম প্রবৃদ্ধির খরচ নিয়ে প্রশ্ন তোলা উচিত। একটি নির্বাচনী ইস্যু হিসাবে এটাকে সামনে আনা উচিত।

কংগ্রেস পার্টির নির্বাচনী ইশতেহার

কিছু লোক ও কয়েকটি কর্পোরেট এত ভালো করছে অথচ বেশিরভাগ মানুষ ভালো কর্মসংস্থানের সুযোগের জন্য সংগ্রাম করে চলেছে, এই অন্যায্যতা ক্রমশ আরও স্পষ্ট হয়ে উঠছে। নিচের স্তরে সম্পদ ঝরে পড়ার যুক্তি এবং আরও বেশি কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও সমৃদ্ধি ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য ‘সম্পদ সৃষ্টিকারীদের’ সমর্থন দেওয়ার যুক্তি বারবার ব্যর্থ হয়েছে শুধু ভারতে নয়, গোটা বিশ্বেই। মানুষের জীবনযাত্রার মান উন্নত করার জন্য কেবল অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির উপর নির্ভর করে থাকার অসারতা, এমনকি বাড়তি বৈষম্য খরচেও, আজকের দেশগুলোর মূল রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক প্রশ্ন। ভারতে এটি অবশেষে একটি নির্বাচনী ইস্যু হয়ে উঠছে, তাই তা স্বাগত জানাতে হবে, ২০২৪ নির্বাচনে এর ফল যাই হোক না কেন।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম, বিশেষত সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলোতে জনসাধারণের আলোচনা এখন পর্যন্ত মূলত ‘ধনীদের কর দিয়ে গরীবদের ভরতুকি দেওয়া’ ধরনের সরাসরি সম্পদ পুনর্বিতরণ ব্যবস্থা নিয়েই সীমাবদ্ধ ছিল। ভারতীয় প্রেক্ষাপটে এগুলো খুবই প্রাসঙ্গিক। শেষ পর্যন্ত, ভারতের কর-জিডিপি অনুপাত অন্যান্য মধ্য-আয়ের দেশগুলোর তুলনায় কম (ভারতের কর-জিডিপি অনুপাত ১৭%, ব্রাজিলে ২৫%), আবার করের কাঠামোও প্রতিগামী, যেখানে পরোক্ষকর প্রায় দুই-তৃতীয়াংশ কর আদায়ে অবদান রাখে। তদুপরি প্রত্যক্ষ করও খুব প্রগতিশীল নয়। উদাহরণস্বরূপ, প্রাপ্তি বাজেট ২০২৩-২৪ অনুসারে, ৫০০ কোটি টাকার বেশি লাভ করা কোম্পানিগুলোর ক্ষেত্রে কার্যকর করহার (লাভের তুলনায় কর) ছিল ১৯.১৪%, অন্যদিকে ০-১ কোটি টাকা লাভের গ্রুপের কোম্পানিগুলোর কার্যকর করহার ছিল ২৪.৮২%।

কল্যাণমূলক ব্যয় কম

অন্যদিকে, অন্যান্য দেশের তুলনায় কল্যাণমূলক ও সামাজিক খাতে ব্যয় খুব কম। স্বাস্থ্যে জনব্যয় উদাহরণস্বরূপ এখনও জিডিপির প্রায় ১.৩%, যদিও জাতীয় স্বাস্থ্য নীতি (NHP) ২০২৫ সালের মধ্যে জিডিপির ২.৫% অর্জনের লক্ষ্যমাত্রা ধার্য করেছে। কোভিড-১৯ সত্ত্বেও, আমরা স্বাস্থ্য ব্যয়ে এমন কোনো বিশাল বৃদ্ধি দেখিনি, এবং বর্তমান প্রবণতা দেখে মনে হচ্ছে, আমরা এই লক্ষ্যমাত্রা অর্জন করতে পারব না। কেন্দ্রীয় সরকারের আরও অনেক প্রধান বাজেট বরাদ্দ যেমন মহাত্মা গান্ধী জাতীয় গ্রামীণ কর্মনিশ্চিত প্রকল্প (MGNREGA), শিক্ষা, শিশুদের বাজেট, মোট ব্যয় বা জিডিপির অনুপাতে হ্রাস পাচ্ছে। অতএব, প্রগতিশীলভাবে রাজস্ব আহরণ উন্নত করা এবং সেইসাথে সরাসরি গরীবদের জীবনকে প্রভাবিত করে এমন খাতে ব্যয় বাড়ানো অত্যন্ত প্রাসঙ্গিক একটি বিষয় এবং এর প্রতি মনোযোগ দেওয়া প্রয়োজন।

তবে, বৈষম্য মোকাবিলা করা মানেও প্রবৃদ্ধির প্রকৃতি নিয়ে প্রশ্ন তোলা। এমন একটি পরিস্থিতিতে যেখানে মানুষের জীবিকার প্রধান উৎস হল কর্মসংস্থান, চাকরি সৃষ্টি না করা প্রবৃদ্ধি কতটা উন্নয়নে অবদান রাখতে পারে? আমরা সম্প্রতি যে ধরনের প্রবৃদ্ধি দেখেছি তা চাকরিহীনতার সঙ্গেই যুক্ত ছিল, যা আউটপুটের কর্মসংস্থান নমনীয়তার হ্রাস দেখে বোঝা যায়। আরও একটি বিষয় হল, লাভের অংশ বাড়ছে এবং প্রকৃত মজুরি স্থির আছে। তাই, আলোচনা হওয়া উচিত চাকরি সৃষ্টি নিয়ে – কেবল কষ্টের স্ব-কর্মসংস্থান নয়, পর্যাপ্ত পারিশ্রমিকসহ ভালো চাকরি। এর জন্য আমাদের মনোযোগ দিতে হবে আরও সমতামূলক প্রবৃদ্ধির দিকে, যেখানে মানুষের ক্রয়ক্ষমতাও বাড়বে। NREGA এবং পাবলিক ডিস্ট্রিবিউশন সিস্টেমের মত প্রোগ্রামে অর্থ ব্যয় করে সরকারগুলো এতে ভূমিকা রাখতে পারে। কংগ্রেস ইশতেহারে প্রস্তাবিত মহালক্ষ্মী প্রকল্পের মত নগদ স্থানান্তর প্রকল্পও এতে অবদান রাখতে পারে।

চাকরি সৃষ্টি 

একইসঙ্গে, সরকারগুলো সমস্ত খালি পদ পূরণ করে এবং স্বাস্থ্য, শিক্ষা, পুষ্টি ও সামাজিক নিরাপত্তায় প্রয়োজনীয় সেবা সম্প্রসারণ করে সরাসরি চাকরি সৃষ্টিতেও অবদান রাখতে পারে। অঙ্গনওয়াড়ি কর্মী, অ্যাক্রেডিটেড সোশ্যাল হেলথ অ্যাক্টিভিস্ট এবং অন্যান্য ফ্রন্টলাইন শ্রমিকদের মত চাকরির মানও উন্নত করতে হবে পর্যাপ্ত মজুরি ও উন্নত কর্মপরিবেশ প্রদান করে। এই সরাসরি কর্মসংস্থান সৃষ্টির প্রচেষ্টা শুধু অনেকের, বিশেষত মহিলাদের জন্য কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি করবেই না, মানব উন্নয়ন ফলাফল উন্নত করা এবং মহিলাদের উপর অবৈতনিক যত্নের কাজের বোঝা কমাতে এবং অন্য কাজে তাদের মুক্ত করতেও অবদান রাখবে। আরও একটি বিষয়, শৈশবকালে প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা ও পুষ্টির মত পরিষেবাগুলির অসম সুযোগ-সুবিধার কারণে যে আন্তঃপ্রজন্মের অসাম্য বজায় থাকে, তাও এগুলো মোকাবিলা করতে পারে।

কর্মকেন্দ্রিক প্রবৃদ্ধির ধরন হবে এমনটি যেখানে সরকারি নীতি ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোগগুলোকে সমর্থন দেওয়ার উপর ফোকাস করে, যাদের শ্রমঘনত্ব বেশি, দক্ষতা প্রশিক্ষণ ও সামগ্রিক মানবসম্পদ (স্বাস্থ্য ও শিক্ষা) বৃদ্ধি করা হয়, সেইসাথে মাতৃত্বকালীন সুবিধা, শিশুপরিচর্যা, পরিবহন, নিরাপদ ও সাশ্রয়ী আবাসন ইত্যাদি ব্যবস্থার মাধ্যমে মহিলাদের শ্রমবাজারে অংশগ্রহণ করার সুযোগ করে দেওয়া হয়। কেবল যখন আমরা কর্মসংস্থানের বিষয়টি মোকাবিলা করব, তখনই আমরা আন্তরিকভাবে অসাম্য দূর করতে পারব। অন্যদিকে, যতক্ষণ প্রবৃদ্ধি এমন ধরনের হবে যেখানে কয়েকজনের লাভই অগ্রাধিকার, ততক্ষণ কর্মসংস্থানের সমস্যাও সম্ভবত অমীমাংসিত থেকে যাবে।

লেখক,ডেভেলপমেন্ট ইকোনমি, খাদ্য ও পুষ্টি, জন স্বাস্থ্য, ও জেন্ডার নিয়ে গবেষণা করেন। তিনি আম্বেদকর ইউনিভারসিটির সঙ্গে সংযুক্ত। 

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

kjhdf73kjhykjhuhf
© All rights reserved © 2024