সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ১০:৩১ অপরাহ্ন
শিরোনাম :

নির্যাতন ও বৈষম্য দূর করতে উত্তরাধিকারে নারীর সমঅধিকার নিশ্চিত করার আহবান

  • Update Time : শনিবার, ৯ মার্চ, ২০২৪, ২.৩৪ পিএম

সারাক্ষণ ডেস্ক

 

নারীর সাংবিধানিক ও মৌলিক অধিকার সমুন্নতকরনে, লিঙ্গ ভিত্তিক সমতা নিশ্চিতে, হাইকোর্ট প্রদত্ত প্রগতিশীল রায় ও বিদ্যমান আইন সমূহের দ্রুত বাস্তবায়নে এবং বৈষম্যমূলক আইন পরিবর্তন ও সংশোধন এর প্রতি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ প্রয়েজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করবে । আন্তর্জাতিক নারী দিবস ২০২৪ উপলক্ষে এমনটাই বাংলাদেশ লিগ্যাল এইড এন্ড সার্ভিসেস ট্রাস্ট (ব্লাস্ট) এর প্রত্যাশা।

আন্তর্জাতিক নারী দিবস ২০২৪ উদযাপন উপলক্ষে ব্লাস্টের সেইফপ্লাস প্রকল্প এর আওতায় এরশাদ স্কুল মাঠ, করাইল, ঢাকায় এবং সজাগ কোয়ালিশন পক্ষে ব্লাস্টের পিজিজে এর আওতায় নিশ্চিন্তপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় (দেওয়ান ইদ্রিস উচ্চ বিদ্যালয়) মাঠ, নিশ্চিন্তপুর, আশুলিয়া, সাভারে ০২টি লিগ্যাল এইড ক্যাম্প এর আয়োজন করা হয় যেখানে শতাধিক স্থানীয় নারী, পুরুষ, তরুন সহ শিশুরা অংশগ্রহন করেন। পাশাপাশি ব্লাস্টের জেলা অফিসসমুহ মানব বন্ধন, র‌্যালি এর আয়োজন করা হয়েছে।

নারীর সমতা ও সম অধিকার নিশ্চিতে বিভিন্ন সময়ে উচ্চ আদালত হতে বহু প্রগতিশীল রায় অর্জন করা সত্ত্বেও, শুধুমাত্র সুষ্ঠু বাস্তবায়নের অভাবে তাঁর সুফল নারীরা পূর্ণাঙ্গভাবে পাচ্ছেন না।  উল্লেখ্য, গত ১২ এপ্রিল ২০১৮ তারিখ ধর্ষণের শিকার নারী ও কন্যা শিশুর ডাক্তারী (মেডিকো-লিগ্যাল) পরীক্ষার ক্ষেত্রে ‘দুই আঙ্গুলের পরীক্ষা’ বা ‘টু ফিঙ্গার টেস্ট’এর মত অবৈজ্ঞানিক এবং অবৈধ পরীক্ষাকে নিষিদ্ধ করে ০৮ টি সুস্পষ্ট নির্দেশনাসহ রায় প্রদান করে উচ্চ আদালত। উদ্বেগের বিষয় এই যে, ধর্ষণের মামলায় এখনো ‘টু ফিঙ্গার টেস্ট’এর প্রয়োগ এখনো পরিলক্ষিত হচ্ছে।

 

অপরদিকে, গত ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ তারিখ ধর্ষণসহ অন্যান্য সকল যৌন সহিংসতার শিকার নারীর দ্রুত ন্যায় বিচার প্রাপ্তি ও সুরক্ষা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে উচ্চ আদালত ১৮ টি সুনির্দিষ্ট নির্দেশনা সংবলিত রায় প্রদান করেন। যেখানে সুস্পষ্ট ভাবে উল্লেখ করা হয়েছে যে, ধর্ষণ, যৌন নিপীড়নসহ এ ধরনের আমলযোগ্য অপরাধের ঘটনায় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা কোনরূপ বৈষম্য ছাড়াই তাৎক্ষনিকভাবে ঘটনার স্থান উল্লেখ পূর্বক অভিযোগ লিখিতভাবে লিপিবদ্ধ করবেন। এছাড়াও অভিযোগকারী অনলাইনে যেন তার অভিযোগ দায়ের করতে পারে, সে জন্য ওয়েবসাইট চালু করারও নির্দেশনা দেয়া হয়েছিল। উদ্বেগের বিষয় এই যে, এখনও থানায় অভিযোগ দায়ের করতে গেলে ধর্ষণ ও যৌন সহিংসতার শিকার নারীদের নানাবিধ অসহযোগিতা মূলক আচরণের সম্মুখীন হতে  হয়। এছাড়াও ধর্ষণ ও যৌন সহিংসতার শিকার নারীদের অনলাইনে তাদের অভিযোগ দায়েরের ক্ষেত্রেও প্রতিবন্ধকতা বিদ্যমান।

পাশাপাশি, কাবিননামায় ‘কুমারী’ শব্দ থাকা নারীর জন্য অপমানজনক, বৈষম্যমূলক, পক্ষপাতদুষ্ট এবং  সংবিধানের নারী পুরুষের সমতার প্রতিশ্রুতির পরিপন্থি, একইসাথে এটি আন্তর্জাতিক নারীর প্রতি সকল বৈষম্য দূরীকরণ সনদেরও পরিপন্থী হিসেবে চিহ্নিত করে গত ২৫ আগস্ট ২০১৯ তারিখ উচ্চ আদালত কনের বৈবাহিক অবস্থা নির্ণয়ের জন্য কাবিননামায় ‘কুমারী’ শব্দটির পরিবর্তে ‘অবিবাহিতা’ শব্দটি সংযোজনের জন্য এবং কাবিননামায় কনের পাশাপাশি পুরুষের বর্তমান বৈবাহিক অবস্থা উল্লেখ করার নির্দেশনা দিয়ে রায় প্রকাশ করে । রায় প্রদানের প্রায় চার বছর অতিক্রান্ত হলেও অদ্যবধি বিয়ের কনে ‘কুমারী’ কি না তা কাবিননামায় উল্লেখ করতে হচ্ছে।

এছাড়াও গত ২৪ জানুয়ারি ২০২৩ তারিখ শিক্ষা ক্ষেত্রে ব্যবহৃত সকল ফর্মে যেখানে বাধ্যতামূলকভাবে শিক্ষার্থীর অভিভাবক হিসেবে পিতা ও মাতার নাম উল্লেখ করতে হয়, সে ফর্মগুলো পিতা অথবা মাতা অথবা আইনগত অভিভাবকের নাম ব্যবহার করেই পূরণ করা যাবে- এ মর্মে  উচ্চ আদালত রায় প্রদান করেন। একইসাথে, এ রায়ের আলোকে শিক্ষা ক্ষেত্রে ব্যবহৃত সকল ফর্ম সংশোধনে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য শিক্ষা মন্ত্রণালয় সহ সকল শিক্ষা বোর্ডকে নির্দেশনা প্রদান করেন আদালত। সবার জন্য শিক্ষার অধিকার নিশ্চিতে নিঃসন্দেহে এ রায়টি  যুগান্তকারী একটি রায়।  কিন্তু আক্ষেপের বিষয় এই যে, যুগান্তকারী এ রায়ের আলোকে অদ্যবধি শিক্ষা ক্ষেত্রে ব্যবহৃত কোন ফর্মেই এখোনো সংশোধন আনা হয় নি।

এসকল পরিস্থিতি হতে উত্তোরণে, এ নারী দিবসে ব্লাস্টের প্রত্যাশা থাকবে, সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষরা যেন নারীর সাংবিধানিক ও মৌলিক অধিকার সমুন্নতকরনে এবং লিঙ্গ ভিত্তিক সমতা নিশ্চিতে প্রগতিশীল এ রায় সমূহের দ্রুত ও সুষ্ঠু বাস্তবায়নের প্রতি যথাযথ গুরুত্ব প্রদান করবে।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

kjhdf73kjhykjhuhf
© All rights reserved © 2024