শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ০৯:৩৩ অপরাহ্ন

জাপান দূতাবাস গ্যালারিতে দু্‌ই শিল্পীর “অস্তিত্বের ব্লসমস”

  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৪ মে, ২০২৪, ৮.৪৮ পিএম

ফয়সাল আহমেদ

মা দিবস উপলক্ষে গত ৯ তারিখ উন্মোচিত হয়েছে ‘অস্তিত্বের ব্লসমস’ শিল্প প্রদর্শনী। এই কিউরেটেড প্রদর্শনীতে জাপান ও বাংলাদেশের মধ্যে গভীর সাংস্কৃতিক সংযোগের বন্ধন কে তুলে ধরা হয়েছে। প্রদর্শনীতে রয়েছে বাংলাদেশী শিল্পী, রোকেয়া সুলতানা এবং মাকসুদা ইকবাল নিপার শিল্পকর্ম গুলো। চিত্র কর্মগুলো সুন্দরভাবে সাজানো আছে গ্যালারিতে। এক পাশে আছে শিল্পী মাকসুদা ইকবাল নিপার চিত্রকর্মগুলো অন্য পাশে ছিল রোকেয়া সুলতানা চিত্রকর্মগুলো। চিত্রকর্মগুলো  অসাধারণ। দেয়ালে লাগানো চিত্রকর্মগুলো আকারে অনেক বড়। বিশেষ করে শিল্পী রুপাইয়া সুলতানার চিত্রকর্মগুলো অসাধারণ। তার প্রিন্ট করা চিত্র কর্ম ও শাড়িতে করা চিত্র কর্ম গুলো নজর কাড়বে সবার।

 

জেটি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (জেটিআইবি) জাপান ও বাংলাদেশের মধ্যে দীর্ঘকালীন সাংস্কৃতিক সংযোগ উদযাপনের প্রদর্শনী”ব্লাসমস অফ অস্তিত্ব”।

শিল্পী রোকেয়া সুলতানা এবং মাকসুদা ইকবাল নিপা যারা জাপানি সংস্কৃতি, দর্শন এবং শিল্প কৌশল দ্বারা গভীরভাবেঅনুপ্রাণিত। প্রদর্শনীটি মানুষের অভিজ্ঞতা এবং আধ্যাত্মিক জ্ঞান আবিষ্কার করে যার লক্ষ্য সমন্বয়, উদ্দেশ্য এবং পরিপূর্ণতারঅনুভূতি তৈরি করা। প্রদর্শনী ‘ব্লোসমস অফ অস্তিত্বে’ একটি অর্থপূর্ণ এবং সুষম জীবন যাপন করার জন্য উদ্দেশ্যপূর্ণ জীবনযাপনের জন্য আবেগের স্ফুলিঙ্গ জ্বালাতে ডিজাইন করা হয়েছে। শিল্পীরা দুটি দেশের সংস্কৃতি, দর্শন এবং আধ্যাত্মিকতার মধ্যে সংযুক্ত অস্তিত্বের স্তরগুলি উন্মোচন করেছেন। উভয় শিল্পীর শিল্পকর্ম, শৈলী এবং কৌশল সীমানা, সংস্কৃতি এবং প্রজন্ম অতিক্রমকরে। তাদের কিছু মাস্টারপিস জেটিআইবি এর কিউরেটেড আর্ট কালেকশনের অন্তর্গত।

রোকেয়া সুলতানা একজন পুরস্কার-বিজয়ী শিল্পী এবং বিশ্বব্যাপী স্বীকৃত প্রিন্টমেকার এবং চিত্রশিল্পী – প্রথম মহিলা শিল্পী যিনি ফুলব্রাইট স্কলারশিপ এবং একটি এশিয়ান আর্ট দ্বিবার্ষিক পুরস্কার পেয়েছেন। সুলতানার শিল্প বিশ্বের বিভিন্ন দেশে প্রদর্শন করা হয়েছে, যার মধ্যে আছে টোকিও আন্তর্জাতিক মিনি-প্রিন্ট ত্রিবার্ষিক, তোশা-ওয়াশি আন্তর্জাতিক কমিটি, জাপান; সেন্টার পয়েন্ট গ্যালারি, আর্ট অ্যারেনা, টোকিও; স্বাধীনতা দিবসের মুদ্রণ প্রদর্শনী, কানাগাওয়া, জাপান; এবং পোল্যান্ড, জার্মানি, মিশর এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে বিভিন্ন মর্যাদাপূর্ণপ্রদর্শনীতে। বিশিষ্ট শিল্পী তার কাজে একটি সোজা পদ্ধতি নিযুক্ত করেন, সরল শিল্পের উপাদানগুলির উপর অঙ্কন করেন।

আন্তর্জাতিকভাবে বিখ্যাত শিল্পী মাকসুদা নিপা, ১৯৯৭ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বার্ষিক শিল্প প্রদর্শনীতে অয়েল পেন্টিংয়েরজন্য সেরা পুরস্কার এবং২০০২ সালে কিয়োটোতে আমানো হাসি ডেট আর্ট অ্যান্ড ক্রাফট ফেয়ারে আন্তর্জাতিক বন্ধুত্ব পুরস্কার সহঅসংখ্য পুরস্কার ও অনুদান অর্জন করেছেন। ক্যান্ডিনস্কি এবং মন্ড্রিয়ান এর মতো আলোকচিত্র দ্বারা অনুপ্রাণিত, তার দৃষ্টি একটিগভীর রূপক রূপক সৃষ্টি করেছে, যা কাল্পনিক অভিব্যক্তি থেকে স্পন্দনশীল ক্রোমিক বিমূর্ততায় রূপান্তরিত হয়েছে। ২০০২ সালেজাপানে আইচি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময়, তিনি গ্যালারী এপিএ এবং হারুহি মিউজিয়াম অফ আর্ট কর্তৃক আয়োজিত জাপানেতার একক প্রদর্শনীর অর্জনের জন্য জাপানি শিল্পের সমৃদ্ধ ঐতিহ্যের মধ্যে নিজেকে নিমজ্জিত করেন।

বাংলাদেশের মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ বিষয়ক উপদেষ্টা সালমান ফজলুর রহমান এমপি এবং মহামান্যইওয়ামা কিমিনোরি ৯ মে ২০২৪ বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ দূতাবাসে শিল্প প্রদর্শনীর উদ্বোধন করেন। মাননীয় উপদেষ্টা সালমান ফজলুর রহমান এমপি বলেন, ‘এ প্রদর্শনী বাংলাদেশ ও জাপানের বন্ধুত্ব ও সাংস্কৃতিক সম্পর্কের একটি প্রমাণ। জাপানবাংলাদেশের সত্যিকারের ও সময়-পরীক্ষিত বন্ধু এবং শিল্প-সাংস্কৃতিক সহ বিভিন্ন সেক্টরে উন্নয়ন সমর্থন করেছে। আমি জেটিইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশকে এই উদ্যোগের জন্য সাধুবাদ জানাই এবং দুই বন্ধুত্বপূর্ণ দেশের মধ্যে সম্পর্ক জোরদার করতে উন্মুখ।

প্রদর্শনীটি ১০ মে ২০২৪ থেকে ১৬ পর্যন্ত জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত থাকবে মে ২০২৪ এ Annex Building, Embassy of Japan in Bangladesh, Dutabash Rd, Baridhara, Dhaka 12।

রবিবার থেকে বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টা থেকে সন্ধ্যা ৭ টা পর্যন্ত এবং শুক্রবার ও শনিবার বিকাল ৩ টা থেকে রাত ৮ টা পর্যন্ত।দর্শকদের প্রবেশ করতে হলে ফটো আইডি দেখাতে হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

kjhdf73kjhykjhuhf
© All rights reserved © 2024