শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ০২:০৬ অপরাহ্ন

জনসংখ্যা বিষয়ক দু’দিনব্যাপী বৈশ্বিক সংলাপের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী

  • Update Time : বুধবার, ১৫ মে, ২০২৪, ৬.৫৪ পিএম

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেলে ‘আইসিপিডি৩০ গ্লোবাল ডায়ালগ অন ডেমোগ্রাফিক ডাইভারসিটি অ্যান্ড সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট’ শীর্ষক দুই দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেছেন।
বাংলাদেশ, বুলগেরিয়া ও জাপান জাতিসংঘ জনসংখ্যা তহবিলের  (ইউএনএফপিএ) সাথে একত্রে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে।
এই সংলাপ চ্যালেঞ্জগুলো নিয়ে আলোচনা করার এবং বিশ্বের পরিবর্তনশীল জনসংখ্যার সুযোগগুলো অনুসন্ধান করার একটি প্লাটফর্ম তৈরি করেছে।
এই বছর জনসংখ্যা ও উন্নয়ন বিষয়ক আন্তর্জাতিক সম্মেলনের (আইসিপিডি) ৩০ তম বার্ষিকী।
ইউএনএফপিএ জানায়, এই আন্তর্জাতিক সংলাপে বিশ্বব্যাপী এবং আঞ্চলিক জনসংখ্যার গতিশীলতা এবং আন্তঃপ্রজন্মের সুস্থতা এবং স্বাস্থ্যকর বার্ধক্য, জনসংখ্যার তথ্যের ভবিষ্যত এবং গ্রামীণ সম্প্রদায়ের পরিবর্তনশীল জনসংখ্যা বৈচিত্র্যের মতো বিষয়গুলো তুলে ধরা হবে।
স্থানীয় ও জাতীয় সরকার, একাডেমিয়া, থিঙ্ক ট্যাঙ্ক, প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ, সুশীল সমাজ এবং বেসরকারি খাতের প্রায় ২শ’ প্রতিনিধি স্বাস্থ্য, শিক্ষা, আবাসন বা অবকাঠামো, জনসংখ্যার পরিবর্তনে বিনিয়োগের বাস্তব অন্তর্দৃষ্টি শেয়ার করবেন যা জনসংখ্যাগত প্রবণতা পরিবর্তনের সাথে খাপ খাইয়ে নিতে প্রয়োজন।
এই সংলাপে জনসংখ্যাগত পরিবর্তনের বাস্তব প্রতিক্রিয়ার ওপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে সেই উত্তরাধিকারকে সম্মান করবে। সংলাপে জনসংখ্যা নীতিতে মানবাধিকার-ভিত্তিক দৃষ্টিভঙ্গিকে শক্তিশালী করে লিঙ্গ সমতা এবং প্রজনন অধিকারকে মৌলিকভাবে গুরুত্ব দেয়া হবে।

জনসংখ্যার বৈচিত্র্য এবং প্রজনন ও মৃত্যুহার পরিবর্তনের ব্যবধানে স্থিতিশীলতা উন্নয়নের প্রেক্ষাপটে অন্যান্য অধিবেশনে লিঙ্গ সমতা,যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্য এবং জনসংখ্যাগত সহিষ্ণুতা, উচ্চ প্রজনন হার এবং তরুণ জনসংখ্যার প্রেক্ষাপটে সর্বশেষ জনসংখ্যাগত ব্যবধান তুলে ধরা হবে।
এতে জনসংখ্যা পরিবর্তনে প্রযুক্তি এবং জীব বিজ্ঞানের প্রেক্ষাপটে যৌন ও প্রজনন স্বাস্থ্যের ভবিষ্যত তুলে ধরে একটি স্মার্ট ভবিষ্যতের জন্য স্থিতিস্থাপকতা ফিরিয়ে আনা; আন্তঃপ্রজন্মের সুস্থতা এবং স্বাস্থ্যকর বার্ধক্য ও জনসংখ্যা তথ্যের ভবিষ্যত তুলে ধরা হবে।
দ্বিতীয়ত এই সংলাপে জনসংখ্যার গতিশীলতা এবং জলবায়ু সংকট; জলবায়ু ঝুঁকি এবং প্রভাবের অসমতা; কোথায় আমরা বাস করব? বাসযোগ্য স্থান, স্থানান্তর এবং জোরপূর্বক অভিবাসনের ওপর জলবায়ুর প্রভাব; জনসংখ্যাগত পরিবর্তন এবং প্রযুক্তির অগ্রগতির আলোকে স্বাস্থ্য ব্যবস্থাকে শক্তিশালী করার জন্য সার্বজনীন স্বাস্থ্য কভারেজ এবং কৌশল; বসবাস উপযোগী শহর; গ্রামীণ সম্প্রদায়ের জনসংখ্যার পরিবর্তন এবং ২০৩০-পরবর্তী এজেন্ডা এবং টেকসই উন্নয়নের জন্য জনসংখ্যা নীতির ভবিষ্যত সম্পর্কে আইসিপিডি’র ইতিবাচক  নীতি ও পরিকল্পনা তুলে ধরা হবে।
জনসংখ্যা ও উন্নয়ন সম্পর্কিত যুগান্তকারী আন্তর্জাতিক সম্মেলনের ত্রিশ বছর পেরিয়ে গেছে। উক্ত সময়ে বিশ্ব নেতারা ব্যক্তি অধিকার এবং মর্যাদাকে টেকসই উন্নয়নের কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত করতে সম্মত হয়েছেন।
সম্মেলনের কর্মসূচী দ্রুত বর্ধমান বৈশ্বিক জনসংখ্যা নিয়ে উদ্বেগের সময়ে জন-কেন্দ্রিক উন্নয়নের জন্য জনসংখ্যার সমস্যাগুলোর ওপর বিশ্বব্যাপী চিন্তাভাবনাকে একটি মানদন্ডে রূপান্তরিত করেছে।
বিশ্ব এখন কীভাবে কর্মসূচীর মূল্যবোধগুলো টেকসই উন্নয়নে বর্তমান ও ভবিষ্যতের জন্য অভিন্ন বৈশ্বিক পদ্ধতির একটি আলোকবর্তিকা হয়ে উঠতে পারে ত্রিশতম বার্ষিকীতে তা খুঁজে বের করার একটি সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে।
এই আলোচনাগুলো জনসংখ্যার পরিবর্তন এবং বৈচিত্র্য, পরিবেশ, প্রজনন স্বাস্থ্য, মানবাধিকারের সার্বজনীনতা এবং লিঙ্গ সমতা সম্পর্কিত কর্মসূচীর নীতি ও কর্ম দ্বারা অবহিত করা হবে।
পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ, ইউএনএফপি’র  নির্বাহী পরিচালক ড. নাতালিয়া কানেম, মালদ্বীপের সামাজিক ও পরিবার উন্নয়ন মন্ত্রী আইশাথ শিহাম, কিরিবাতির নারী, যুব, ক্রীড়া ও সামাজিক বিষয়ক মন্ত্রী মার্টিন মোরেত্তি, জাপানের পররাষ্ট্র বিষয়ক সংসদীয় উপ-মন্ত্রী ইয়াসুশি এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. রোকেয়া সুলতানা অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন।
বুলগেরিয়া সরকারের প্রতিনিধিও উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যোগ দেন।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

kjhdf73kjhykjhuhf
© All rights reserved © 2024