শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ০৯:৫৪ পূর্বাহ্ন

যদি হিন্দু-মুসলিমে ভাগ করি তাহলে আমি মানুষের নেতা নই- নরেন্দ্র মোদি

  • Update Time : বুধবার, ১৫ মে, ২০২৪, ৯.০৬ পিএম
মঙ্গলবার বারাণসীতে মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার পরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ, বিজেপি প্রধান জে পি নাড্ডা, সিএম যোগী আদিত্যনাথ এবং অন্যান্য এনডিএ নেতাদের সাথে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। (এএনআই)

সারাক্ষণ ডেস্ক

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি মঙ্গলবার বলেছেন, তিনি বিশ্বাস করেন যে  তার দেশের মানুষ তাকে ভোট দেবে। পাশাপাশি তিনি এও বলেছেন যে, “যদি আমি হিন্দু-মুসলিমে ভাগ করি  তাহলে আমি জনতার অযোগ্য হব এবং এটা আমার সংকল্প।”

মোদি টিভি চ্যানেল ‘নিউজ 18 ইন্ডিয়াকে’ দেওয়া একটি সাক্ষাত্কারে এই মন্তব্যগুলি করেছেন এরপর তিনি X-এ সাক্ষাত্কারের এই ক্লিপটি পোস্ট করেছিলেন । বারাণসীতে যেদিন তিনি মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন।এই নির্বাচনী এলাকা থেকে তিনি এবার টানা তৃতীয় লোকসভার জন্যে প্রার্থী হলেন।

তাঁর এই  মন্তব্য রাজস্থানের বাঁশওয়ারায় ২১ শে এপ্রিলের ভাষণের কয়েকদিন পরে এসেছিল । এই দিন কংগ্রেসকে আক্রমণ করার সময় তিনি বলেছিলেন, “পেহেলে জব উনকি সরকার থি, আনহোন কাহা থা কি দেশ কি সম্পত্তি পার পেহলা অধিকার মুসলিমন কা হ্যায়। ইসকা মতলব, ইয়ে সম্পত্তি ইখত্তি করকে কিসকো বাতেঙ্গে? জিনকে জায়দা বাচ্চে হ্যায় উনকো বাতেঙ্গে, ঘুসপাইথিওঁ কো বাতেঙ্গে।

সেই ভাষণে তিনি আরও বলেছিলেন, “কংগ্রেসের ইস্তেহারে বলা হয়েছে যে তারা মা ও কন্যাদের সোনার মজুত নেবে এবং তারপরে তারা সেই সম্পদ বিতরণ করবে। এরপর তারা এটি তাদের মধ্যে বিতরণ করবে যাদের মনমোহন সিংয়ের সরকার বলেছিল: সম্পদের প্রথম অধিকার মুসলমানদের।

ভাই ও বোনেরা, এই শহুরে নকশাল চিন্তাধারা আমার মা-বোনের মঙ্গলসূত্রকেও রেহাই দেবে না।” কংগ্রেস, সিপিআই এবং সিপিআই (এম-এল) তার বাঁশোয়ারা বক্তৃতা নির্বাচন কমিশনে তাদের অভিযোগে পতাকাঙ্কিত করেছিল যার ফলে বিজেপি সভাপতিকে একটি নোটিশ জারি করা হয়েছিল। মঙ্গলবার সাক্ষাৎকারে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “আমি হিন্দু বা মুসলিম বলিনি।

আমি বলেছি আপনি যতটা সন্তান চালানোর সামর্থ্য লাভ করবেন আপনি ততটাই নেবেন । এমন পরিস্থিতি তৈরি করবেন না যেখানে সরকারকে (সমর্থন) করতে এগিয়ে আসতে হবে।” মুসলিমরা তাকে ভোট দেবে কি না এবং তার ভোটের প্রয়োজন আছে কিনা এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, “ম্যায় ইয়ে মানতা হুঁ কি মেরে দেশ কে লগ মুঝে ভোট দেনে।

ম্যায় জিস দিন হিন্দু-মুসলমান করোঙ্গা না, উস দিন মেন সার্বজনিক জীবন মেই রেহেন যোগা না রহুঙ্গা। অউর প্রধান হিন্দু-মুসলমান নহিন করোঙ্গা। ইয়ে মেরা সংকল্প হ্যায় (আমি বিশ্বাস করি যে আমার দেশের মানুষ আমাকে ভোট দেবে। যেদিন আমি হিন্দু-মুসলিম করব, আমি জনজীবনের অযোগ্য হয়ে যাব। আর আমি হিন্দু-মুসলিম করব না। এটা আমার সংকল্প)।

“যদি আমি বাড়ি দিই, আমি  সামর্থর কথা বলি। ১০০ শতাংশ দেয়ার। এর মানে হল একটি গ্রামে যদি ২০০টি বাড়ি থাকে, কোন সম্প্রদায়ের, কোন বর্ণের, কোন ধর্মের – না। যদি সেই ২০০টি বাড়িতে ৬০ জন উপকারভোগী (সুবিধাভোগী) থাকে, তবে ৬০ জনেরই তা পাওয়া উচিত।

এবং ১০০-শতাংশ নিরাপত্তা হল সামাজিক ন্যায়বিচার এবং সত্যিকারের ধর্মনিরপেক্ষতা। আর এতে দুর্নীতির কোনো সুযোগ নেই।তিনি বলেছিলেন, আপনি জানেন যে এই সোমবার যদি অন্য কেউ এটি পায় তবে আমি পরের সোমবার এটি পাব।” মঙ্গলবার জেলা কালেক্টরেটের কাছে বারাণসী আসনের জন্য মনোনয়ন জমা দেন মোদি। তার সাথে ছিলেন পন্ডিত গণেশ্বর শাস্ত্রী দ্রাবিড় যিনি অযোধ্যায় রাম মন্দিরের পবিত্রতার তারিখ এবং সময় নির্ধারণ করেছিলেন।

ডিস্ট্রিক্ট ম্যাজিস্ট্রেট এস রাজালিঙ্গম মোদির কাছ থেকে কাগজপত্র সংগ্রহ করেছিলেন যিনি পরে X-এ একটি পোস্টে বলেছিলেন, “বারাণসী লোকসভা আসনের প্রার্থী হিসাবে আমার মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন। ঐতিহাসিক এ আসনের মানুষের সেবা করা গর্বের বিষয়। জনগণের আশীর্বাদে গত এক দশকে উল্লেখযোগ্য অর্জন হয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

kjhdf73kjhykjhuhf
© All rights reserved © 2024