সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ০৯:৪৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
ফেরদৌসের আয়োজনে ‘উচ্ছ্বাসে উৎসবে’ মুগ্ধতা ছড়ালেন তারা ওকে গাইতে দাও (পর্ব-২) বিদেশে শিক্ষা বাণিজ্যে পা রাখার চেষ্টা করছে চায়না সুচিকিৎসা পাচ্ছেন বলেই খালেদা জিয়া এখন পর্য্যন্ত সুস্থ আছেন: আইনমন্ত্রী বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক তৈরিতে বিসিপিএসকে কার্যকরী ভূমিকা রাখার তাগিদ রাষ্ট্রপতির সরকার বিজ্ঞান-প্রযুক্তিকে অগ্রাধিকার দিয়ে শিক্ষা ব্যবস্থাকে বহুমাত্রিক করেছে : প্রধানমন্ত্রী জনগণের সম্মতি ছাড়া রেল চলালচলের চুক্তি মানিনা – ‘এবি পার্টি’ যুদ্ধ এবং ‘এআই’ বরেন্দ্র এলাকায় পানির হাহাকার: মাটির নিচের পানি কোথায় গেলো? চট্টগ্রাম-কক্সবাজার রেলপথে স্পেশাল ট্রেন আরও এক মাস সময় বাড়ালো

বিএনএফ’র জরুরি সভা অনুষ্ঠিত

  • Update Time : শুক্রবার, ১৭ মে, ২০২৪, ৪.২১ পিএম

 নিজস্ব প্রতিবেদক 

বিএনএফ’র ঢাকা মহানগর উত্তর কমিটির উদ্যোগে তোপখানা রোডস্থ কার্যালয়ে এক জরুরি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বিএনএফ’র প্রেসিডেন্ট ও ঢাকা-১৭ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য রণাঙ্গনের মুক্তিযোদ্ধা এস, এম, আবুল কালাম আজাদ।

বিএনএফ’র সেক্রেটারি জেনারেল ডক্টর মাওলানা মুহাম্মদ নজরুল ইসলাম আল মারুফ এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনএফ’র কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান এ ওয়াই এম কামরুল ইসলাম, কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান মমতাজ সুলতানা আহমেদ, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনএফ’র সভাপতি মোঃ শফিউল্লাহ চৌধুরী, কেন্দ্রীয় জয়েন্ট সেক্রেটারি জেনারেল এস এম ইসলাম, ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনএফ’র সভাপতি মাওলানা মো: বরকত উল্লাহ, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক নুরুল ইসলাম জেন্টু, ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনএফ’র সিনিয়র সহ সভাপতি মোঃ বিল্লাল হোসেন, ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনএফ’র সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মাহবুব হাসান আজাদ, ঢাকা মহানগর উত্তর বিএনএফ’র সহ সভাপতি মো: সজীব কায়সার (মিথুন), কেন্দ্রীয় সদস্য এস এম লিটন, সাদিকুন নাহার উর্মি, মো: কামাল।

বিএনএফ’র প্রেসিডেন্ট এস, এম, আবুল কালাম আজাদ বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট-বিএনএফ এর ১১ দফা কর্মসূচি’কে জনপ্রিয় করতে সংগঠনকে জেলা উপজেলা পৌরসভা ও সিটি করপোরেশন এলাকায় গণসংযোগ বাড়াতে নেতাকর্মীদের প্রতি আহবান জানিয়ে বলেন, ❝স্বাধীনতার ইতিহাস ও সংবিধানকে সমুন্নত রাখতে দেশপ্রেমিক নাগরিকদের ঐক্যবদ্ধ করে বিজয় অর্জন করতে হবে,এর কোন বিকল্প নেই।❞

সভায় দেশ জাতি ও জনগণের কল্যাণে বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট-বিএনএফ এর প্রস্তাবিত ১১ দফা দাবিনামা তুলে ধরা হয়েছে-

১)জাতীয় স্বাধীনতা, রাষ্ট্রীয় সার্বভৌমত্ব, আঞ্চলিক অখণ্ডতা ও জাতীয় নিরাপত্তা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে জাতীয় প্রতিরক্ষা কাউন্সিল গঠনের উদ্যোগ গ্রহণ করা।

২)স্বাধীনতার মূল্যবোধ ও আদর্শ এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বাস্তবায়ন করা। ৭৫ সালের ১৫ আগষ্টের বঙ্গবন্ধু মুজিব হত্যা এবং তৎপরবর্তীকালে সংগঠিত সকল হত্যার নেপথ্যের নায়কদের খুঁজে বের করতে কমিশন গঠন করে বিচার সম্পন্ন করা এবং জাতিকে দায়মুক্ত করা।

৩)ধর্মীয় মৌলবাদ- জঙ্গিবাদ রুখতে ধর্মপালন ও ধর্মীয় সম্প্রীতির চর্চা অব্যাহত রাখা। কারিগরি ও গণমুখী শিক্ষা নীতি অনুসরন করা এবং জাতীয় সংস্কৃতির অন্তরায় সকল অপসংস্কৃতি রোধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা।

৪)নিত্য পণ্যের মূল্যবৃদ্ধির কথিত সিন্ডিকেট নিয়ন্ত্রণ করা, খাদ্য মজুদ গড়ে তোলা, খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করা এবং কৃষি ও কৃষকের স্বার্থ সংরক্ষণের ব্যবস্হা নিশ্চিত করা। জল, স্থল, আকাশপথের পরিবহন ব্যবস্থা সহজলভ্য করা এবং সকল পরিবহনে যাত্রী সাধারণের সুযোগ সুবিধা ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করা।

৫) চাঁদাবাজ, দখলবাজ, ঘুষ-দুর্নীতি নির্মূল করা, অর্থ পাচার রোধ করা, আত্মনির্ভরশীল জাতীয় অর্থনীতির বিকাশ ত্বরান্বিত করা এবং দেশপ্রেমিক জাতীয় শিল্পপতিদের উৎসাহিত করা। উৎপাদন বৃদ্ধির স্বার্থে শ্রমিক শ্রেণীর ন্যায্য মজুরি নিশ্চিত করা।

৬) জলবায়ুর অভিঘাত মোকাবিলা করা, অভিন্ন নদীর পানি বন্টনে ন্যায্যহিস্যা আদায় করা, পানির যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিত করা, গঙ্গাবাঁধ নির্মাণকরা, তিস্তা সেচ প্রকল্প চালু করা, কর্মসংস্থান সৃষ্টি, সামাজিক ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠা ও সম্পদের সুষমবন্টন ভিত্তিক জনকল্যাণমূলক রাষ্ট্র ব্যবস্থা কায়েম করা।

৭) মিশ্র সরকার পদ্ধতি অনুসরণ ও মুক্তবাজার অর্থনীতি বিবেচনায় রেখে মিশ্র অর্থনীতি অনুসরণ করা। সেবাখাত সমূহকে অধিকতর জনমুখী করা,
বিদ্যুৎ গ্যাস পানি জনগণের জন্য সহজলভ্য করা।

৮)সশস্ত্র বাহিনীর পাশাপাশি বেসামরিক নাগরিকদের বিদেশি আগ্রাসন থেকে আত্মরক্ষার জন্য সামরিক ট্রেনিং প্রদান করা এবং বিশ্বায়নের বিবেচনায় ব্যালেন্সড পররাষ্ট্র নীতি অনুসরন করা। সার্বভৌমত্বের স্বার্থে তিন পার্বত্য জেলায় সশস্ত্র বাহিনীর শক্তিবৃদ্ধি করা এবং সীমান্ত নিরাপত্তা জোরদার করা।

৯) আমলাতন্ত্রকে স্বাধীন দেশের উপযোগী করে গড়ে তোলার উদ্যোগ গ্রহণ করা- যাতে করে জনগণের সাথে প্রশাসনের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে তোলা সম্ভব হয়। বিচার বিভাগের উপর নির্বাহী বিভাগের অযাচিত হস্তক্ষেপ বন্ধ করা এবং সংবিধান সম্মতভাবে সংসদের সার্বভৌমত্ব রক্ষা করা।

১০) স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের শক্তিকে ঐক্যবদ্ধ করা, মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহণকারি সকলকে যথাযথ সম্মান মর্যাদা ও স্বীকৃতি প্রদান করা এবং প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধাদের চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করা, ৩০ লাখ শহীদ ও ২ লাখ বীরাঙ্গনা নারীর তালিকা তৈরি ও প্রকাশের উদ্যোগ গ্রহণ করা।

১১) ইতিবাচক, গঠনমূলক, রাজনৈতিক সংস্কৃতি অনুসরণ করা এবং সাংবিধানিক ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখতে সংবিধানে আল্লাহর প্রতি অবিচল আস্হা ও বিশ্বাস পুনঃ স্হাপন করে বৃহত্তর জাতীয় ঐক্য গড়ে তোলাই হবে বাংলাদেশ ন্যাশনালিস্ট ফ্রন্ট -বিএনএফ’র লক্ষ্য ।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

kjhdf73kjhykjhuhf
© All rights reserved © 2024