বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০২৪, ০১:৩৭ পূর্বাহ্ন

মোবাইল গ্রাহকের স্বার্থে প্রতিযোগিতা নিশ্চিত জরুরি

  • Update Time : সোমবার, ১১ মার্চ, ২০২৪, ৫.০৬ পিএম
সোমবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে ‘টেলিযোগাযোগ খাতে বাজার প্রতিযোগিতা, মুঠোফোন গ্রাহকের স্বার্থ সুরক্ষায় করণীয়’ শীর্ষক আলোচনা সভায় অতিথিরা।

নিজস্ব প্রতিবেদক:  দেশে ১৯ কোটির বেশি মোবাইল গ্রাহকের স্বার্থে বাজারে প্রতিযোগিতা নিশ্চিত করা জরুরি। মোবাইল গ্রাহকদের স্বার্থ রক্ষায় প্রতিযোগিতা আইন ও এসএমপি প্রবিধানমালার যথাযথ প্রয়োগের তাগিদ দিয়েছেন খাত সংশ্লিষ্ট অংশীজনরা। সোমবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে ‘টেলিযোগাযোগ খাতে বাজার প্রতিযোগিতা, মুঠোফোন গ্রাহকের স্বার্থ সুরক্ষায় করণীয়’ শীর্ষক আলোচনা অনুিষ্ঠত হয়। বাংলাদেশ মুঠোফোন গ্রাহক অ্যাসোসিয়েশনের উদ্যোগে আয়োজিত এই আলোচনা সভায় এমন তাগিদ দেন বক্তারা।

 

সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) মহাপরিচালক (সিস্টেমস অ্যান্ড সার্ভিসেস) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ খলিল-উর-রহমান বলেন, মার্কেটে ‘লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড’ তৈরির জন্য কমিশন কাজ করবে। গ্রাহকদের অভিযোগ ও করণীয়বিষয়ক সুপারিশ কমিশনের কাছে উপস্থাপন করার জন্য মুঠোফোন গ্রাহক অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতির প্রতি তিনি আহ্বান জানান।

তিনি আরও বলেন, আগামী মাসে আমরা গণশুনানি অনুষ্ঠিত করতে যাচ্ছি। যা হবে ৮টি বিভাগে। এছাড়াও অনলাইনে শুনানি অনুষ্ঠিত করা হবে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে এফবিসিসিআই ইনোভেশন এন্ড রিসার্স সেন্টার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সাবেক সচিব) ডাঃ বিকর্ণ কুমার ঘোষ বলেন, গ্রামের মানুষ নেটওয়ার্কের দূর্বলতা থাকলেও ব্যবহার করতে পেরেই খুশী। কিন্তু স্মার্ট বাংলাদেশ বিনির্মাণ করতে চাইলে নেটওয়ার্কের গতি বৃদ্ধির বিকল্প নাই।

সভাপতির বক্তব্যে মহিউদ্দিন আহমেদ বলেন, এক সময় সিটিসেল বাজারে মনোপলি করত। এরপর গ্রামীণ টেলিকম ইনকামিং এবং আউটগোয়িং উভয়কলে ১০ টাকা করে চার্জ নিত। আবারও সেই পরিস্থিতির মধ্যে পড়তে যাচ্ছে বাংলাদেশ। একটি অপারেটর ৫২ শতাংশ বাজার দখল করে আছে আর রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান ৩.৫ শতাংশ বাজার দখল করে আছে। এই বৈষম্যের কারণেই নতুন করে বিদেশি বিনিয়োগ বা দেশি বিনিয়োগ আসতে চাচ্ছে না টেলিকম খাতে।

এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন এফবিসিসিআই ইনোভেশন অ্যান্ড রিসার্স সেন্টার প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সাবেক সচিব) ডা. বিকর্ণ কুমার ঘোষ, গ্রামীণফোন লি: এর সিনিয়র ডিরেক্টর হোসেন সাদাত, রবি আজিয়াটার ভাইস প্রেসিডেন্ট শাহ মো. ফজলে হুদা, বাংলালিংক লি: এর চিফ রেগুলেটরি অ্যাফেয়ার্স তৈমুর রহমান, ফাইবার অ্যাট হোমের চিফ রেগুলেটরি অফিসার আব্বাস ফারুক।

অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ প্রতিযোগিতা কমিশনের সাবেক পরিচালক খালেদ আবু নাছের।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

kjhdf73kjhykjhuhf
© All rights reserved © 2024