বুধবার, ১৯ জুন ২০২৪, ০৩:৫৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম :

অ্যাজমা (হাঁপানি) রোগ নিয়ন্ত্রণে রাখার উদ্দেশ্যে বৈজ্ঞানিক সেমিনার অনুষ্ঠিত

  • Update Time : বুধবার, ২৯ মে, ২০২৪, ১.৪২ পিএম

নিজস্ব প্রতিবেদক

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) শহীদ ডা. মিল্টন হলে আজ মঙ্গলবার ২৮ মে ২০২৪ইং তারিখে অ্যাজমা (হাঁপানি) রোগ নিয়ন্ত্রণে রাখা, সর্বাধুনিক চিকিৎসা সম্পর্কে ধারণা দেয়া ও জনসচেতনতা সৃষ্টির উদ্দেশ্যে ‘আপডেট অফ অ্যাজমা ম্যানেজমেন্ট’ শীর্ষক বৈজ্ঞানিক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সেমিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ডা. দীন মোঃ নূরুল হক মহোদয়। সম্মানিত বিশেষ অতিথি ছিলেন ইমেরিটাস অধ্যাপক ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ।

পালমোনারি হাইপারটেশন সোসাইটির উদ্যোগে অনুষ্ঠিত এই বৈজ্ঞানিক সেমিনারে সভাপতিত্ব করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মানিত উপ-উপাচার্য (একাডেমিক) ও সোসাইটির সম্মানিত সভাপতি অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আতিকুর রহমান।

বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন সম্মানিত উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. ছয়েফ উদ্দিন আহমদ, উপ-উপাচার্য (গবেষণা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মোঃ মনিরুজ্জামান খান।

প্রধান অতিথি বক্তব্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ডা. দীন মোঃ নূরুল হক মহোদয় বলেন, অ্যাজমা রোগের চিকিৎসার পাশিপাশি রোগ প্রতিরোধ, রোগ নিয়ন্ত্রণসহ যথাযথ সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে আরো বেশি করে কাজ করার উপর গুরুত্বারোপ করেন।


সেমিনারে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ বলেন, দেশের সকল চিকিৎসক বিশেষ করে যেসকল চিকিৎসকবৃন্দ দেশের রোগীদের প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে থাকেন তাঁদের এই রোগ ও চিকিৎসা বিষয়ে সম্যক ধারণা ও চিকিৎসা সম্পর্কে যথাযথ জ্ঞান অর্জনের উপর গুরুত্বারোপ করেন।

সেমিনারে সভাপতির বক্তব্যে সম্মানিত উপ-উপাচার্য (একাডেমিক) অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ আতিকুর রহমান বলেন, গত এক দশক ধরে পালমোনারি হাইপারটেশন সোসাইটি এই রোগে আক্রান্ত রোগীদের রোগ নির্ণয়, চিকিৎসা, পুনবার্সন ও সম্ভাব্য সকল সহায়তা প্রদানে কাজ করে যাচ্ছে। মাল্টিডিসিপ্লিনারি এ্যাপ্রোচ এর মাধ্যমে জটিল এই কন্ডিশনে আক্রান্ত অসহায় রোগীদের পাশে থেকে সেবা দিয়ে যাচ্ছে। এই সোসাইটি পালমোনারি হাইপারটেশনসহ বক্ষব্যধি বিষয়ক রোগের সেবা দিতে অনন্য অবদান রাখছে। চলতি মে মাসেই বিশ্ব অ্যাজমা দিবস উদযাপিত হয়েছে।

বর্তমানে বিশ্বের ২৬ কোটিরও বেশি লোক অ্যাজমায় ভুগছেন, যা বিশ্বের জনসংখ্যার ৮ থেকে ১০ শতাংশ। বায়ুদূষণ, অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ, রাসায়নিক পদার্থের ব্যবহার বৃদ্ধির কারণে অ্যাজমা রোগীর সংখ্যা ক্রমাগত বাড়ছে। শিশুরা ও বয়স্করা এ রোগে বেশি আক্রান্ত হচ্ছে। তাই অ্যাজমা রোগ সম্পর্কে চিকিৎসক, রোগী সকলকেই সচেতনতা, অ্যাজমা শিক্ষা এবং এর চিকিৎসার অত্যাধুনিক তথ্যাদি জানা প্রয়োজন।

সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ডা. মানাল মিজানুর রহমান। অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ডা. এবিএম আব্দুল হান্নান, প্রক্টর অধ্যাপক ডা. মোঃ হাবিবুর রহমান্ দুলাল, হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. মোঃ হারিসুল হক, বক্ষব্যধি বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. একেএম মোশাররফ হোসেন, সহযোগী অধ্যাপক ডা. শামীম আহমেদ, সহযোগী অধ্যাপক ডা. রাজাশিস চক্রবর্তী, সহযোগী অধ্যাপক ডা. সম্প্রীতি ইসলামসহ সম্মানিত ডিনবৃন্দ, শিক্ষকবৃন্দ, বক্ষব্যধি বিশেষজ্ঞগণ, চিকিৎসকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

kjhdf73kjhykjhuhf
© All rights reserved © 2024