মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ০৬:২৮ অপরাহ্ন

ভারতের এবারের নির্বাচনে ডিজিটাল প্রচার ও সোশ্যাল প্লাটফর্ম কীভাবে কাজ করবে

  • Update Time : মঙ্গলবার, ১২ মার্চ, ২০২৪, ৪.৪০ পিএম

শাহানা শেখ

 

বিশ্বব্যাপী যোগাযোগে প্রযুক্তি বিপ্লবের প্রতীক এখন ভারত। ১৯৯০ -এর দশকের গোড়ার দিকে, প্রতি এক হাজার ভারতীয়ের জন্য আনুমানিক ছয়টি ল্যান্ডলাইন ফোন ছিল।  আজ, যে কোনও স্মার্টফোন কয়েক মিনিটের মধ্যেই যে কোন কাউন্টার থেকে কেনা যায় এবং তা দেশের সব জায়গায় পাওয়াও যায়। আর ভারতের সস্তা মোবাইল ডেটা রেটের কারনেই তার আরো বেশি বিস্তিৃতি ঘটেছে। ২০২২ সালের শেষের দিকের  তথ্য অনুযায়ী প্রায় দুই-তৃতীয়াংশ ভারতীয় স্মার্টফোন ব্যবহারকারী। এবং ধারণা করা হয় ২০২৬ সালের মধ্যে ভারতে আনুমানিক এক বিলিয়ন স্মার্টফোন ব্যবহারকারী হবে ভারতে।

ভারতের রাজনৈতিক দলগুলোও তাদের প্রচারে ক্রমবর্ধমানভাবে সোশ্যাল মিডিয়া’র সবগুলো এবং মেসেজিং অ্যাপ ও  হোয়াটসঅ্যাপের দিকেই ঝুঁকছে।

এর আগে নেতৃস্থানীয় পর্যবেক্ষকরা ২০১৯ সালের সংসদ নির্বাচনকে “হোয়াটসঅ্যাপ নির্বাচন” হিসেবে চিহ্নিত করেছেন। ।

যাইহোক, স্মার্টফোন ব্যবহারের প্রসারের পাশাপাশি, এখন বেশ কম খরচে পার্টির ভোটারদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখা যায়।

ভারতে ইতোমধ্যে নির্বাচনী মওশুম শুরু হয়ে গেছে। সবাই ব্যক্তিগতভাবে ব্যাপক প্রচার সমাবেশ চালিয়ে যাচ্ছেন সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে।

উদাহরণস্বরূপ, ভারতের ২০১৯ সালের জাতীয় সাধারণ নির্বাচনের আগে, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধী প্রত্যেকে আনুষ্ঠানিকভাবে দুই মাসের প্রচারাভিযানের সময় প্রায় ১৪০ টি ব্যক্তিগত সমাবেশে ভাষণ দিয়েছিলেন।

ডিজিটাল যুগে গণ-প্রচার সমাবেশের ব্যাপকতা ভারতে আধুনিক প্রচার সম্পর্কে একটি বড় প্রশ্ন সামনে এনে দিচ্ছে যে ইন্টারনেট-ভিত্তিক যোগাযোগ প্রযুক্তি আজ ভারতে  নির্বাচনে দলীয় প্রচারের রূপ দিচ্ছে কীভাবে?

ভারতে ব্যক্তিগত প্রচারের গুরুত্ব

 

২০১৪ এবং ২০১৯ এর সংসদীয় নির্বাচনের সময় রাজনৈতিক দলগুলি নিজের থেকেই  তাদের নির্বাচনী  প্রচার ব্যয়ের একটি হিসেব প্রকাশ করেছিলো ।

 

ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি) এবং ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস (আইএনসি বা কংগ্রেস) উভয়ই তাদের এক-চতুর্থাংশ এবং এক-তৃতীয়াংশের মধ্যে ডিজিটাল প্রচারে ব্যয় করে। আর  উল্লেখযোগ্য অংশ বা বড় অংশ  ব্যয় করে ব্যক্তিগত প্রচারাভিযানে।

২০২২ সালে উত্তরপ্রদেশে প্রায় ৪,০০০ ভোটারের একটি সমীক্ষা থেকে জানা যায় যে ভোটাররা এখনও  ব্যক্তিগত প্রচারকে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করেন।

সমীক্ষায়, প্রতিটি ভোটারকে একটি দলের পাঁচটি প্রচারমূলক কর্মকাণ্ডের গুরুত্ব নির্ধারণ করতে বলা হয়েছিল। এগুলো হলো ডোর-টু-ডোর ক্যানভাসিং, গণপ্রচার সমাবেশ, সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রচার এবং  টিভি ও রেডিওতে দলীয় বিজ্ঞাপন । রাস্তার পাশে পার্টির পোস্টার এবং বিলবোর্ড বিজ্ঞাপন এগুলো ছিল ছোট, আঞ্চলিক-স্তরের দলগুলির জন্য।

সমীক্ষাকৃত ভোটারদের ৭৩% ব্যক্তি-ব্যক্তিগত প্রচার – যেমন ডোর-টু-ডোর প্রচারাভিযান এবং গণ-সমাবেশ – ভোটারদের কাছে পৌঁছে দেওয়ার জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ প্রচারাভিযানের কার্যকলাপ বলে মনে করেন৷

এমনকি বৃহৎ, জাতীয় স্তরের দলগুলির জন্য – যেমন বিজেপি এবং কংগ্রেস – প্রায় ৫৪% জরিপকৃত ভোটারের ব্যক্তিগত প্রচারণাকে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে করেন৷

ভোটাররা ব্যক্তিগত প্রচারকে অনেক গুরুত্ব দিয়ে বিবেচনা করে। তাই ব্যক্তিগত প্রচারকে বাদ দেয়া বা কমিয়ে দেয়া সম্ভব নয়।

উদ্ভাবন বা স্বাভাবিকীকরণ?

 

ইন্টারনেটের ক্রমবর্ধমান ব্যবহার দলীয় প্রচারে কৌশলকে কীভাবে প্রভাবিত করবে সে সম্পর্কে  এ মুহূর্তে দুই ধরনরে চিন্তা কাজ করছে।

প্রথম, ইন্টারনেট রাজনীতির সংস্কার করতে পারে। ইন্টারনেটের ব্যবহার ব্যাপকভাবে বাড়লে, সামাজিক মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে পরিচালিত দলীয় প্রচারাভিযানগুলি ঐতিহ্যগত সেই সরাসরি  প্রচারাভিযানের জায়গা নিয়ে নেবে।

যারা এমন মনে করছেন তাদের বক্তব্য  ডিজিটাল প্রযুক্তি রাজনৈতিক প্রচারকে মৌলিকভাবে উন্নত করবে। সরাসরি প্রচারকে অপ্রচলিত করে দেবে।

এই ভবিষ্যদ্বাণীটি থেকে  বোঝায় যে একটি দল  অদূর ভবিষ্যতে সম্পূর্ণ অনলাইনে একটি সফল প্রচার চালাতে পারে।

অন্যদিকে, ইন্টারনেট ব্যবহার বৃদ্ধির সাথে সাথে, একটি দলের অনলাইন প্রচারণাগুলি পরিপূরক হয় — প্রতিস্থাপনের পরিবর্তে — ঐতিহ্যগত, ব্যক্তিগত প্রচারাভিযানের ও প্রয়োজন রয়েছে। এর থেকে বোঝায় রাজনৈতিক দলগুলোর প্রচারের কেন্দ্র বিন্দুতে সরাসরি প্রচার থাকবেই ।

তাদের এই ধারনা থেকে যা স্পষ্ট হয় তাহলো, ভবিষ্যতে রাজনৈতিক দলগুলি কেবল সামাজিক মিডিয়াতে তাদের ব্যক্তিগত প্রচারের ইভেন্টগুলিকে লাইভ-স্ট্রিম করতে পারে।

যাইহোক, ভারতে সাম্প্রতিক নির্বাচনী প্রচারের প্রমাণগুলি এই অনুমানের কোনটির সাথে সহজে মেলে না।

 

ভারতে দলীয় প্রচারের সময় বিষয়বস্তু-পরিপূরকতা

 

আধুনিক ভারতীয় রাজনৈতিক প্রচারণায়, দলগুলি কৌশলগতভাবে বিষয়বস্তু-পরিপূরকতা লাভ করে — অনলাইন এবং ব্যক্তিগত প্রচারের মধ্যে রয়েছে দ্বিমুখী সম্পর্ক।

 

একটি আসন্ন সমাবেশের আগে, একটি দলের মাঠ পর্যায়ের দলীয় কর্মীরা এবং ভোটারদের একত্রিত করে সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে। – যেমন X (পূর্বে টুইটার নামে পরিচিত), ফেসবুক এবং হোয়াটসঅ্যাপে।|

সমাবেশের সমাপ্তির পরে, পার্টি সমাবেশ থেকে নির্দিষ্ট ছবি, বক্তৃতার অংশ (ভিডিও) প্রদর্শন করে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভবিষ্যতে নির্বাচনী প্রচারের জন্য।

সফল সমাবেশের ভিডিওর অংশগুলিকে গুরুত্বপূর্ণ হিসাবে দেখেন ভোটাররা।

একটি দলের মূল্যায়নের জন্য এটা আসলেই গুরুত্বপূর্ণ ।

সোশ্যাল প্লাটফর্মে  প্রচারিত বিষয়বস্তুর মাধ্যমে, একটি সমাবেশের প্রভাব ভোটারদের ফোনে ফোনে ঘোরে ভিডিওর মাধ্যমে। তা দেখে তারা পার্টি সম্পর্কে ধারণা নেয়।

 

ব্যক্তিগত সমাবেশের অংশগুলি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়। মাঠ পর্যায়ের দলীয় কর্মীরা একতাবদ্ধ হন। এটা মূলত পার্টির ভবিষ্যত সমাবেশের জন্য ভোটারদের সংগঠিত করতে পারে।

যেহেতু সমাবেশের বড় ঝুঁকি যদি তারা ফ্লপ হয় এবং সেইসাথে পুরস্কার যদি তারা সফল হয়। কম ভোটার উপস্থিতি প্রকাশ করে এমন ফটোগ্রাফ এবং ভিডিওগুলি একটি বিরোধী দলকে সমর্থন জোগায়।

সমাবেশ-সংগঠক দলকে উপহাস করার জন্য সোশ্যাল মিডিয়ায় তৎপর থাকে ভিন্ন দলের কর্মীরা।

একটি সমাবেশ-সংগঠক দল সম্পর্কে ভোটারদের ধারণাকে নেতিবাচকভাবে প্রভাবিত করতে পারে বাজে ফটোগ্রাফ এবং ভিডিও।  এবং ভোটারদের তার প্রচারণায় অংশগ্রহণ থেকে বিরত রাখতে পারে।

অন্যদিকে, যদি একটি সমাবেশে বিশাল জনসমাগম হয়, তবে সমাবেশের আয়োজক দল সোশ্যাল মিডিয়ায় জনসমাগম নিয়ে গর্ব করতে পারে। এটি ভোটারদের ধারণাকে ইতিবাচকভাবে প্রভাবিত করতে পারে এবং এর প্রচারণায় অংশ নিতে ভোটারদের সংগঠিত করতে পারে।

পার্টি-ভোটার সংযোগ: দলীয় প্রচার থেকে প্রমাণ

 

বিষয়বস্তু-পরিপূরকতার দলগুলির সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার সম্পর্কে পরীক্ষা করার জন্য, আমি উত্তরপ্রদেশ এবং মধ্যপ্রদেশে সাম্প্রতিক রাজ্য নির্বাচনী প্রচারের সময় পক্ষপাতমূলক টুইটগুলি পরীক্ষা করেছি।

উত্তরপ্রদেশের জন্য, আমি উত্তরপ্রদেশে বিজেপির অফিসিয়াল এক্স হ্যান্ডেল এবং সমাজবাদী পার্টি (এসপি) বিষয়বস্তু তদন্ত করেছি।  যেটি ২০২২ সালের রাজ্য নির্বাচনে দুটি সবচেয়ে বড় প্রতিদ্বন্দ্বী দল ছিল।

 

প্রচারাভিযানের সময় এই হ্যান্ডেলগুলি থেকে প্রকাশিত প্রায় ৯,৩০০ টি টুইটগুলির একটি বিষয়বস্তু বিশ্লেষণ থেকে জানা যায় যে প্রায় ৪০% পক্ষপাতমূলক টুইটগুলি সমাবেশের বিষয়বস্তু অন্তর্ভুক্ত করে। বিজেপি এবং এসপি উভয়ের জন্য, সমাবেশের বিষয়বস্তু থাকা টুইটগুলির মধ্যে কমপক্ষে ৭৫ % পোস্ট-র্যালি সামগ্রী অন্তর্ভুক্ত করেছে।

 

মধ্যপ্রদেশের জন্য, আমি বিজেপি এবং কংগ্রেসের রাজ্য ইউনিটগুলির অফিসিয়াল এক্স হ্যান্ডেলগুলিতে বিষয়বস্তু পরীক্ষা করেছি।

২০২৩ সালের রাজ্য নির্বাচনের প্রচারের সময় এই হ্যান্ডেলগুলি থেকে আবির্ভূত প্রায় ৩১০০ টি টুইটগুলির একটি বিষয়বস্তু বিশ্লেষণ একই ধরনের প্যাটার্ন উন্মোচিত করেছে। প্রায় ৩৫% টুইটগুলিতে সমাবেশের বিষয়বস্তু রয়েছে এবং এর মধ্যে প্রায় ৭০% পোস্ট-র্যালি সামগ্রী অন্তর্ভুক্ত করেছে।

পক্ষপাতমূলক X ডেটার একটি উল্লেখযোগ্য শতাংশে সমাবেশের বিষয়বস্তু ছিল, এবং এর একটি আকর্ষণীয় অনুপাত ছিল সমাবেশ-পরবর্তী বিষয়বস্তু। যা সাধারণত সমাবেশের ভিড় এবং পার্টির প্রচারকের ছবি এবং প্রচারকারীর সমাবেশের বক্তৃতার ভিডিওগুলি নিয়ে গঠিত হয়েছিল।

 

বিভিন্ন রাজনৈতিক দলগুলি তাদের সমাবেশকে “ঐতিহাসিক” বলছিলেন। তাদের জনসমাবেশের ভিড়ের  আকার নিয়ে গর্বও করেছিলেন টুইটের মাধ্যমে ৷

উদাহরণস্বরূপ, একটি পোস্টে, যেখানে বিশাল সমাবেশের ভিজ্যুয়াল সহ একটি  ভিডিও রয়েছে। তারা  @BJP4UP লিখে বলেছেন: “জান সৈলাব ফির সে ইতিহাস লিখনে জা রাহা হ্যায়, ইউপি মে ফির সে কামাল খেলনে জা রাহা হ্যায়” (মানুষের বন্যা ইতিহাস লিখতে যাচ্ছে, আবার ইউপিতে ফুটবে পদ্ম)। অন্য একটি পোস্টে, যেখানে একটি বক্তৃতার অংশ সহ একটি ভিডিও রয়েছে যা সমাবেশস্থলে জড়ো হওয়া বিশাল জনতার উল্লেখ করে, @samajwadiparty বলেছে। “ঐতিহাসিক জনসমর্থন বাতা রাহা হ্যায় বদলাভ হন জা রাহা হ্যায়” ( জনগণের এই ঐতিহাসিক সমর্থন আমাদের বলছে যে পরিবর্তন ঘটতে চলেছে)।

সমাবেশ-পরবর্তী বিষয়বস্তুর পার্টির প্রচার X-এর টুইটের মধ্যে সীমাবদ্ধ নয়। বিজেপি এবং এসপি-র প্রায় ৪০০ জন দলীয় কর্মীর মধ্যে আমি ২০২২ সালে উত্তরপ্রদেশে জরিপ করেছি, ৯০% বলেছেন যে তারা তাদের দলের সমাবেশ থেকে ছবি এবং/অথবা ভিডিও পোস্ট করেছেন হোয়াটসঅ্যাপ এবং/অথবা ফেসবুক। অধিকন্তু, ২০২২  সালে উত্তরপ্রদেশে সমীক্ষা করা প্রায় ২,০০০ ভোটারের মধ্যে যারা স্মার্টফোন ব্যবহারকারী ছিলেন, ৫৩% রিপোর্ট করেছেন যে নির্বাচনের আগে দিনে অন্তত একবার তাদের ফোনে প্রচার সমাবেশের ছবি এবং/অথবা ভিডিও দেখেছেন। সমাবেশের বিষয়বস্তুর এই এক্সপোজারটি বিশেষ করে স্মার্টফোন ব্যবহারকারীদের মধ্যে ভোটারদের ধারণা এবং ভোটারদের সংহতিকে প্রভাবিত করার সম্ভাবনা রয়েছে।

আন্তঃপার্টি সংযোগ: ভারতে পার্টি সংগঠন থেকে প্রমাণ

 

পার্টির ভোটার সংযোগের জন্য দলগুলি আন্তঃপার্টি সংযোগ তৈরি করে। এবং তা বজায় রাখার জন্যও এই সোশ্যাল মিডিয়া পোস্টের বিষয়গুলো ব্যবহার করে।

ভারতের প্রতিটি প্রধান দলগুলির একটি সাংগঠনিক বিষয় রয়েছে – যা বিভিন্নভাবে পার্টির আইটি এবং সোশ্যাল মিডিয়া সেল, বিভাগ, দল বা শাখা হিসাবে পরিচিত। তারা তাৎক্ষণিক সোশ্যাল মিডিয়া পোস্টের জন্য তৈরি করে প্রচার করে।

যা একটি দলের শীর্ষ স্তর (জাতীয় বা রাজ্য স্তর) থেকে তার সর্বনিম্ন স্তরে (পোলিং বুথ স্তর) পর্যন্ত কাজ করে।

আন্তঃপার্টি অনলাইন ব্যবহার ব্যক্তিগত পার্টি ইভেন্টের গুরুত্ব বাড়ায় এবং সেগুলি কীভাবে পরিচালিত হয় তা একটা মাত্রায় রুপ দেয়।

ব্যক্তিগত পার্টি ইভেন্টের সাথে যুক্ত অনলাইন বিষয়বস্তু পার্টির অভিজাত, শ্রেণিবিন্যাস স্তর জুড়ে পার্টি কর্মীরা এবং তৃণমূল পার্টির কর্মীদের মধ্যে আন্তঃপার্টি অনলাইন কর্মকান্ডকে উৎসাহিত করে।

অনলাইনে ঘটনাগুলোকে ছড়িয়ে দেওয়ার জন্য, রাজনৈতিক দলগুলি অনলাইনে শক্তিশালী নেটওয়ার্ক স্থাপনের চেষ্টা করে।

উত্তরপ্রদেশে দলীয় কর্মকতাদের নিয়ে আমার সমীক্ষায় দেখা গেছে যে বিজেপি এবং এসপির প্রায় সমস্ত কর্মীরা পার্টির উদ্দেশ্যে স্মার্টফোন অ্যাপ ব্যবহার করেছেন। বিশেষ করে হোয়াটসঅ্যাপ এবং ফেসবুক।

২০২২ সালের উত্তর প্রদেশ নির্বাচনের সময় সমীক্ষা করা দলের ৬৬% কর্মীরা নতুন রাজনৈতিক হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ গঠন করার কথা জানিয়েছেন। তাদের মধ্যে, মোটামুটি ৭০% রিপোর্ট করেছে যে তারা বেশিরভাগই তাদের দলের কর্মী এবং সমর্থকদের এই গ্রুপগুলিতে অন্তর্ভুক্ত করেছে। বাকিরা রিপোর্ট করেছে যে তারা বেশিরভাগই এই গ্রুপগুলিতে ভোটারদের অন্তর্ভুক্ত করেছে।

পার্টির কর্মীরা পার্টির উদ্দেশ্যে কতবার হোয়াটসঅ্যাপ -এর মাধ্যমে যোগাযোগ করেন তা বোঝার জন্য, আমি তাদের জিজ্ঞাসা করেছি তারা দিনে কতবার আন্তঃপার্টি যোগাযোগের জন্য হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করে এবং কতবার ভোটার যোগাযোগের জন্য।

গড়ে, উত্তর প্রদেশে ২০২২ সালের রাজ্য নির্বাচনের প্রচারের সময়, বিজেপি কর্মীরা বলেছিলেন যে তারা দিনে প্রায় ৫৫ বার  দলের কর্মীদের সাথে যোগাযোগ করতে হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করেছেন।

এসপি কর্মকর্তাদের জন্য, এই সংখ্যাটি দিনে ৪৮ বারের সামান্য কম ছিল। বিজেপি এবং এসপি উভয় নেতাই তাদের প্রচারের সময় ভোটারদের সাথে যোগাযোগের জন্য হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করেন দিনে গড়ে প্রায় ৪০ থেকে ৫০ বার।

নির্বাচনের পরের মাসগুলিতে (যখন সমীক্ষা পরিচালনা করা হয়েছিল), এই কর্মীরা প্রতিদিন গড়ে কতবার হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করে রাজনৈতিক যোগাযোগের জন্য? তা প্রায় এক-তৃতীয়াংশ ১৫-এ নেমে এসেছে, এই প্রচারাভিযানের সময় ।

এটি বোঝা যায় যে আসন্ন নির্বাচন এবং এর সাথে সম্পর্কিত প্রচারাভিযান ছাড়াই, দলের কর্মীরা আন্তঃপার্টি যোগাযোগ এবং ভোটার যোগাযোগের জন্য প্রতি ঘন্টায় প্রায় একবার হোয়াটসঅ্যাপ ব্যবহার করেছেন।

 

উপসংহার

 

ভারতে নির্বাচনী প্রচারাভিযান রাজনৈতিক দলীঢ সংগঠনগুলোতে এসেছে প্রযুক্তিগত পরিবর্তন। বিজেপি অনলাইন স্পেসে তাদের শীর্ষস্থানীয় গ্রুপ রয়েছে। তবে অন্যান্য দলগুলিও তাদের ডিজিটাল উপস্থিতি তৈরি করতে আইটি এবং সোশ্যাল মিডিয়া ইউনিটগুলিতে বিনিয়োগ করছে। এই বিনিয়োগগুলি ফল দিতে পারে।

২০২৪  সালের নির্বাচনে – এবং সম্ভবত এর পরেও – অনলাইন প্রচারকে পুরানো দিনের রাজনীতির বিকল্প বা সংযোজন হিসাবে না করে একটি পরিপূরক হিসাবে ব্যবহার করা হবে৷

শাহানা শেখ

ইয়েল বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের একজন পিএইচডি গবেষক।

 

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

kjhdf73kjhykjhuhf
© All rights reserved © 2024