সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১০:১৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
ফেরদৌসের আয়োজনে ‘উচ্ছ্বাসে উৎসবে’ মুগ্ধতা ছড়ালেন তারা ওকে গাইতে দাও (পর্ব-২) বিদেশে শিক্ষা বাণিজ্যে পা রাখার চেষ্টা করছে চায়না সুচিকিৎসা পাচ্ছেন বলেই খালেদা জিয়া এখন পর্য্যন্ত সুস্থ আছেন: আইনমন্ত্রী বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক তৈরিতে বিসিপিএসকে কার্যকরী ভূমিকা রাখার তাগিদ রাষ্ট্রপতির সরকার বিজ্ঞান-প্রযুক্তিকে অগ্রাধিকার দিয়ে শিক্ষা ব্যবস্থাকে বহুমাত্রিক করেছে : প্রধানমন্ত্রী জনগণের সম্মতি ছাড়া রেল চলালচলের চুক্তি মানিনা – ‘এবি পার্টি’ যুদ্ধ এবং ‘এআই’ বরেন্দ্র এলাকায় পানির হাহাকার: মাটির নিচের পানি কোথায় গেলো? চট্টগ্রাম-কক্সবাজার রেলপথে স্পেশাল ট্রেন আরও এক মাস সময় বাড়ালো

কর্মস্থলে ২৩% মহিলাদের যৌন হয়রানি করা হয়

  • Update Time : শনিবার, ৮ জুন, ২০২৪, ৯.৩০ পিএম

সারাক্ষণ ডেস্ক

যদিও বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠান উভয় লিঙ্গের জন্য সমান সুযোগের পক্ষে জোর দেয়। তারপরেও মহিলাদের জন্য কর্মস্থলে সমান সুযোগ থাকলেও তাদের জন্যে  সুযোগটি সমান হয় না। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (WHO) তার সাম্প্রতিক এক প্রতিবেদনে বলেছে যে, বিশ্বব্যাপী ২৩ শতাংশেরও বেশি মহিলারা কর্মক্ষেত্রে যৌন হয়রানির শিকার হন। ডব্লিউএইচও-র এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে যে, কর্মস্থলে মহিলারা বিভিন্ন ধরনের সহিংসতা ও হয়রানির শিকার হন। WHO-এর মতে, এক্ষেত্রে হয়রানিকারী ব্যক্তি হতে পারে ভুক্তভোগীর সুপারভাইজার, অন্য কোনো বিভাগের কর্মী, সহকর্মী, নিয়োগকর্তা বা এমন কেউ যিনি গ্রাহক বা ক্লায়েন্ট। 

২৩ শতাংশেরও বেশি কর্মজীবী লোকজন শারীরিক, মানসিক বা যৌন সহিংসতা ও হয়রানি অভিজ্ঞতা করেছেন। লয়েডস রেজিস্টার ফাউন্ডেশন (LRF) এবং গ্যালাপ দ্বারা পরিচালিত একটি যৌথ আন্তর্জাতিক সমীক্ষায় বলা হয়েছে যে, পাঁচজনের মধ্যে একজন ব্যক্তি কাজের ক্ষেত্রে সহিংসতা ও হয়রানির শিকার হয়েছেন।

“Experiences of Violence and Harassment at Work: A Global First Survey” শীর্ষক প্রতিবেদনটি সমস্যার পরিমাণ ও ধরন এবং এটি সম্পর্কে কথা বলতে মানুষকে কী বাধা দেয় তা তুলে আনা হয়েছে। প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মানুষের অভিজ্ঞতা নিয়ে কথা বলতে বাধা সৃষ্টি করে মূলত বিশ্বাসের অভাব, লজ্জা বা অপরাধবোধ, এবং কাজের ক্ষেত্রে “স্বাভাবিক” বলে মনে করা হয় এমন অগ্রহণযোগ্য আচরণ।

ILO উল্লেখ করেছে যে, সহিংসতা ও হয়রানি পরিমাপ করা কঠিন এবং রিপোর্টে পাওয়া গেছে যে, বিশ্বব্যাপী ভুক্তভোগীদের অর্ধেকই তাদের অভিজ্ঞতা কারো সাথে শেয়ার করেননি এবং প্রায়শই তারা একাধিকবার সহিংসতার শিকার হওয়ার পরই এটি শেয়ার করেছেন।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, না বলার সাধারণ কারণগুলির মধ্যে “সময়ের অপচয়” এবং “তাদের সুনামের জন্য ভয়” মূলত কাজ করে। মহিলারা পুরুষদের চেয়ে তাদের অভিজ্ঞতা শেয়ার করতে কম আগ্রহী মূলত শতকরা হারটি ৬০.৭ শতাংশ বনাম ৫০.১ শতাংশ।

“বিশ্বব্যাপী, ১৭.৯ শতাংশ কর্মরত পুরুষ ও মহিলা বলেছেন যে তারা তাদের কাজের জীবনে মানসিক সহিংসতা ও হয়রানির সম্মুখীন হয়েছেন এবং ৮.৫ শতাংশ শারীরিক সহিংসতা ও হয়রানির সম্মুখীন হয়েছেন,” প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। এছাড়াও, মহিলা কর্মীদের তুলনায় পুরুষ কর্মীরা বেশি সংখ্যায় যৌন সহিংসতা ও হয়রানির সম্মুখীন হন। প্রতিবেদনটি বলছে, বয়স, লিঙ্গ, অভিবাসন পরিস্থিতি, এবং কর্মসংস্থান পরিস্থিতি সহ বিভিন্ন ধরণের সহিংসতা ও হয়রানির মুখোমুখি করে।

“অভিবাসী মহিলা ও অল্পবয়সী মহিলাদের যৌন সহিংসতা ও হয়রানির সম্মুখীন হওয়ার সম্ভাবনা দ্বিগুণ,বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে। তিনজনের মধ্যে দুইজন ভুক্তভোগী বলেছেন যে তারা একাধিকবার সহিংসতার শিকার হয়েছেন এবং সাম্প্রতিকতম ঘটনা গত পাঁচ বছরের মধ্যে ঘটেছে।

ইসওয়াতিনির শ্রম ও সামাজিক নিরাপত্তা মন্ত্রী ফিলা বুথেলেজি ফিনান্সিয়াল টাইমস (EFT)-এর সাথে এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন তারা দেশের চারটি শ্রম অফিসে তাৎক্ষণিকভাবে হয়রানির অভিযোগ জানাতে সকল ভুক্তভোগীকে পরামর্শ দিয়েছেন। “অফিসাররা দেশের চারটি অঞ্চলে অবস্থিত শ্রম অফিসে নিয়োজিত রয়েছেন, এবং আমি সকল ভুক্তভোগীকে তাদের কর্মস্থলে হয়রানির যেকোনো রূপের তাত্ক্ষণিক রিপোর্ট করতে পরামর্শ দিয়েছেন।


আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (ILO) এর সংজ্ঞায় যৌন হয়রানি হল এমন আচরণ যা প্রাপকের জন্য অবাঞ্ছিত। যৌন হয়রানি বলতে বোঝায় শারীরিক, মৌখিক বা অ-মৌখিক আচরণ যা প্রাপকের জন্য যৌন হয়রানি হিসাবে বিবেচিত হয়। যৌন হয়রানির প্রাপকই এর সংজ্ঞায় বারোমিটার হিসেবে কাজ করেন। গবেষণায় দেখা গেছে যে কর্মচারীরা প্রায়ই সেগুলিকে যৌন হয়রানি হিসাবে গণ্য না করে অন্য সব আচরণকে উপেক্ষা করে বা ক্ষমা করে দেয়। গবেষণায় দেখা গেছে, প্রায় ৬৮.৫ শতাংশ কর্মচারী মনে করেন যে যৌন হয়রানি বিরল। যদিও কিছু কর্মচারী যৌন হয়রানি হিসাবে গণ্য করে, অনেকেই (৪৩.৯ শতাংশ বেসরকারি খাত এবং ৩৫.৪ শতাংশ এনজিও) এখনও এটিকে ক্ষতিকর বলে মনে করেন না।

গবেষণায় দেখা গেছে যে, নারীরা পুরুষদের তুলনায় বেশি যৌন হয়রানির শিকার হয়। ২০ থেকে ৫০ বছর বয়সী কর্মীদের মধ্যে ৪০-৪৪ বছর বয়সী কর্মীদের মধ্যে (২৩.৮ শতাংশ) এবং ৩০-৩৪ বছর বয়সী কর্মীদের মধ্যে (১৯.৯ শতাংশ) যৌন হয়রানির ঘটনা সবচেয়ে বেশি। গবেষণায় দেখা গেছে যে, বিবাহিত (৩৩.৩ শতাংশ), একক (১৭.৫ শতাংশ), এবং সহবাসকারী (২০ শতাংশ) কর্মীরা বেশি হয়রানির শিকার হন। আংশিকভাবে নিয়োজিত (৬.৮ শতাংশ), এবং স্বেচ্ছাসেবী (২১.১ শতাংশ) কর্মীরাও যৌন হয়রানির শিকার হন।


গবেষণায় তিনটি প্রধান কারণ পাওয়া গেছে:

(১) কর্মীদের যৌন হয়রানির সঠিক সংজ্ঞা না জানার কারণে

(২) অনেকে অজান্তেই হয়রানি করেন

(৩) ক্যারিয়ারের সুযোগ সীমিত হওয়ার কারণে প্রতিযোগিতা।

যৌন হয়রানি উভয় লিঙ্গের জন্যই ক্ষতিকর হতে পারে। তাই যখন কেউ যৌন হয়রানির শিকার হন, তখন তারা নিজেদের অপমানিত ও মানসিকভাবে বিপর্যস্ত মনে করেন। প্রতিষ্ঠান ও কোম্পানিরা এর ফলে কর্মীদের বিশ্বাস হারিয়ে ফেলে, কর্মীরা অসন্তুষ্ট ও অপ্রতিরোধ্য হয়ে ওঠে, যা পুরো দেশের উৎপাদন ও সেবা কার্যক্রমকে কমিয়ে দেয়।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

kjhdf73kjhykjhuhf
© All rights reserved © 2024