সোমবার, ২৪ জুন ২০২৪, ১০:১৭ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
ফেরদৌসের আয়োজনে ‘উচ্ছ্বাসে উৎসবে’ মুগ্ধতা ছড়ালেন তারা ওকে গাইতে দাও (পর্ব-২) বিদেশে শিক্ষা বাণিজ্যে পা রাখার চেষ্টা করছে চায়না সুচিকিৎসা পাচ্ছেন বলেই খালেদা জিয়া এখন পর্য্যন্ত সুস্থ আছেন: আইনমন্ত্রী বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক তৈরিতে বিসিপিএসকে কার্যকরী ভূমিকা রাখার তাগিদ রাষ্ট্রপতির সরকার বিজ্ঞান-প্রযুক্তিকে অগ্রাধিকার দিয়ে শিক্ষা ব্যবস্থাকে বহুমাত্রিক করেছে : প্রধানমন্ত্রী জনগণের সম্মতি ছাড়া রেল চলালচলের চুক্তি মানিনা – ‘এবি পার্টি’ যুদ্ধ এবং ‘এআই’ বরেন্দ্র এলাকায় পানির হাহাকার: মাটির নিচের পানি কোথায় গেলো? চট্টগ্রাম-কক্সবাজার রেলপথে স্পেশাল ট্রেন আরও এক মাস সময় বাড়ালো

সময় এখন জলবায়ু নরকের রাস্তা বন্ধ করা

  • Update Time : শনিবার, ৮ জুন, ২০২৪, ৬.৩৩ পিএম
জাতিসংঘের সেক্রেটারি-জেনারেল আন্তোনিও গুতেরেস নিউইয়র্কের আমেরিকান মিউজিয়াম অফ ন্যাচারাল হিস্ট্রি থেকে জলবায়ু কর্মের উপর তার বিশেষ ভাষণ দিয়েছেন।

আন্তোনিও গুতেরেস

২০২২ সালের নভেম্বরে মিশরের শার্ম আল শেখ নগরীতে জাতিসংঘ আয়োজিত জলবায়ু পরিবর্তনবিষয়ক সম্মেলন কপ-২৭-এ দেয়া বক্তব্যে জাতিসংঘ মহাসচিব বলেন, গ্রিনহাউস গ্যাসের নিঃসরণ বাড়ছে। এতে বৈশ্বিক উষ্ণায়নও বাড়ছে। আমরা জলবায়ু নরকের মহাসড়কে আছি এবং আমাদের পা এখনও সেদিকে চলমান রয়েছে।

জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস বলেছেন, সময় দ্রুত চলে যাচ্ছে। আমরা আমাদের জীবনের লড়াইয়ে আছি এবং ক্রমাগত এতে হেরে চলছি। জলবায়ু নিয়ে ঐক্যবদ্ধ হোন, নইলে সম্মিলিতভাবে হয়তো আত্মহত্যার চুক্তি করতে হবে। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

 

সাম্প্রতিক এক বক্তৃতায় তিনি বলেন, এই বছরের মাসগুলির ধারাবাহিকতায় সবচেয়ে উষ্ণতম মাসগুলির মধ্যে এটি একটি ৷ গত পুরোটা বছর ক্যালেন্ডারের প্রতিটি ক্ষণেই ছিল উচ্চ তাপমাত্রার ছোবল। বুঝতে হবে, আমাদের গ্রহ আমাদের কিছু বলার চেষ্টা করছে। কিন্তু আমরা শুনছি বলে মনে হয় না। আমরা সত্যের মুখোমুখি এখন।

সেই সত্যটি হল প্যারিস চুক্তি গৃহীত হওয়ার প্রায় ১০ বছর পরও দীর্ঘমেয়াদী বৈশ্বিক উষ্ণতাকে ১.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসে সীমাবদ্ধ করার লক্ষ্যটি এখনো একটি সুতোয় ঝুলে আছে। আরো সত্য হল, পৃথিবী এত দ্রুত নিঃসরণ ছড়াচ্ছে যে ২০৩০ সালের মধ্যে, অনেক বেশি তাপমাত্রা বেড়ে যাবে এটা নিশ্চিৎ।

শীর্ষস্থানীয় জলবায়ু বিজ্ঞানীদের সর্বশেষ উপাত্তে (ব্র্যান্ড নিউ ডেটা) দেখা যায় যে দীর্ঘমেয়াদী উষ্ণতা ১.৫ ডিগ্রিতে সীমাবদ্ধ করার অবশিষ্ট কার্বন বাজেট এখন প্রায় ২০০ বিলিয়ন টন। যদি আমাদের সীমার মধ্যে থেকে এর বিরুদ্ধে লড়াইয়ের সুযোগ থাকে তবে পৃথিবীর বায়ুমণ্ডল সর্বাধিক পরিমাণ কার্বন ডাই অক্সাইড গ্রহণ করতে পারবে।

জলবায়ুর নরক থেকে বের হওয়ার জন্যে আমাদের একটি পথ খোলা রাখতে হবে। এবং এটাও সত্য আমরা আমাদের  চাকার  নিয়ন্ত্রণে রাখতে পেরেছি। ১.৫C সীমা এখনও ধরে রাখা সম্ভব। আমাদের  মনে রাখতে হবে – এটি দীর্ঘমেয়াদের  জন্য একটি সীমা  যা কয়েক দশক ধরে পরিমাপ করা হয়, মাস বা বছর নয়।

গুতেরেস বলেন, “আমাদের এখন প্রয়োজন দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনার। মানে আমাদের আরও কঠিন লড়াই করতে হবে। বিশেষ করে পরবর্তী আঠারো মাসে এই নেতারা কি সিদ্ধান্ত নেয় – বা নিতে ব্যর্থ হয় তার উপর সবকিছু নির্ভর করে। এটি জলবায়ু সংকটের সময়।”

পদক্ষেপের প্রয়োজনীয়তা অভূতপূর্ব কিন্তু সুযোগও তাই – শুধু জলবায়ু নয়, অর্থনৈতিক সমৃদ্ধি এবং টেকসই উন্নয়নের জন্য। বিজ্ঞানীরা আমাদের সতর্ক করেছেন যে তাপমাত্রা বৃদ্ধির সম্ভবত অর্থ হতে পারে: বিপর্যয়কর সমুদ্রপৃষ্ঠের বৃদ্ধির সাথে গ্রীনল্যান্ড বরফের আস্তরণ এবং পশ্চিম অ্যান্টার্কটিক বরফের আস্তরণের গলে যাওয়া শুরু দুটোই এখন ভাববার বিষয়।

গ্রীষ্মমন্ডলীয় প্রবাল প্রাচীর সিস্টেমের ধ্বংস এবং৩০০ মিলিয়ন মানুষের জীবিকা এসবই এখন আরোচনার টেবিলে । কোনটি রেখে কোনটি করবেন সেটা সিদ্ধান্ত নিতে হবে দ্রুত। ল্যাব্রাডর সাগর স্রোতের পতন যা ইউরোপের আবহাওয়ার ধরণকে আরও ব্যাহত করবে, এবং ব্যাপক পারমাফ্রস্ট গলবে যা মিথেনের বিধ্বংসী মাত্রা নির্গত করবে, যা সবচেয়ে শক্তিশালী তাপ-ফাঁদে আটকানো গ্যাসগুলির মধ্যে একটি।

এটি এমন একটি মুহূর্ত যা সবার জন্যে সমান। যেহেতু বিশ্ব জলবায়ু আলোচনার জন্য বনে মিলিত হয়েছে, এবং G7 এবং G20 শীর্ষ সম্মেলন, জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদ এবং COP29-এর জন্য প্রস্তুত হচ্ছে, আমাদের সর্বোচ্চ উচ্চাকাঙ্ক্ষা, সর্বাধিক চেতনা এবং সর্বাধিক সহযোগিতা এই মুহুর্তে প্রয়োজন।

জাতিসংঘ এখন সজাগ। এটি এখন সর্বাত্মক বিশ্বাস তৈরি করতে, সমাধান খুঁজে বের করতে এবং আমাদের বিশ্বকে যে সহযোগিতার প্রয়োজন তা অনুপ্রাণিত করতে কাজ করে যাচ্ছে। এবং তরুণদের কাছে, সুশীল সমাজের কাছে, শহর, অঞ্চল, ব্যবসা এবং অন্যদের কাছে যারা একটি নিরাপদ, পরিচ্ছন্ন বিশ্বের দিকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন ।

তিনি আশা নিয়ে বলেন, “ আপনি ইতিহাসের ডানদিকে আছেন। আপনি সংখ্যাগরিষ্ঠের পক্ষে কথা বলেন। এটা বজায় রাখুন। সাহস হারাবেন না। আশা হারাবেন না। একসাথে, আমরা জিততে পারি। কাল অনেক দেরি হয়ে যাবে।”

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

kjhdf73kjhykjhuhf
© All rights reserved © 2024