শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ০৬:৫২ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
ঈদে ‘তিথিডোর’ নিয়ে আসছে মেহজাবীন চৌধুরী কলেজ ছাত্র মুরাদ হত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভা ফের আইটেম গানে প্রিয়া অনন্যা স্মার্ট কর্মক্ষেত্র বুদ্ধিনির্ভর কাজের ক্ষমতা বাড়ায় নিরাপত্তা বিশ্লেষক আবদুর রশীদের মৃত্যুতে একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির শোক প্রকাশ চে গেভারা যেভাবে কিউবার সশস্ত্র বিপ্লবের সঙ্গে জড়িয়ে পড়েছিলেন ট্রাম্প পুনঃনির্বাচিত হলে ইউয়ানের উপর চাপ ও বৈদেশিক মুদ্রার অস্থিরতা বাড়তে পারে মিরনজিল্লার হরিজন সম্প্রদায়কে পূনর্বাসন না করে উচ্ছেদ করা যাবে না নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে বাংলাদেশের জয়ের তিনটি ‘টার্নিং পয়েন্ট’ নিরাপত্তা বিশ্লেষক মেজর জেনারেল (অব.) আব্দুর রশীদ মারা গেছেন

ওয়ার্ল্ড ব্যাংকের সহায়তায় বাংলাদেশে সামূদ্রিক মাছের টেকসই উৎপাদন

  • Update Time : সোমবার, ১০ জুন, ২০২৪, ৩.৫৫ পিএম
বঙ্গোপসাগরে মাছ ধরার ট্রলার

চুম্বক অংশ

দেশে ১১৮,০০০ বর্গকিলোমিটার এলাকা এবং ২,২০০ মিটার গভীরতায় বিস্তৃত অপার সম্ভাবনাময় এবং একটি বিস্তৃত সামুদ্রিক অঞ্চল থাকা সত্ত্বেও এখানে মৎস্য সম্পদের ব্যবহার মোট এলাকার শুধুমাত্র একটি বিশেষ অঞ্চলের মধ্যেই সীমাবদ্ধ।

সম্প্রতি প্রতিষ্ঠিত জয়েন্ট মনিটরিং সেল (জেএমসি) উপকূলীয় অঞ্চল এবং সমুদ্রে মৎস্য সম্পদের স্থায়িত্ব উন্নত করতে সাহায্য করবে। ভেসেল মনিটরিং সিস্টেম, স্বয়ংক্রিয় সনাক্তকরণ সিস্টেম এবং মোবাইলের জন্য গ্লোবাল সিস্টেমের মতো উন্নত ট্র্যাকিং প্রযুক্তিগুলি জেএমসিকে মাছ ধরার জাহাজের গতিবিধি ট্র্যাক করতে, অননুমোদিত বা সন্দেহজনক কার্যকলাপ সনাক্ত করতে এবং লঙ্ঘনগুলির সমাধান করতে সহায়তা করবে।

টেকসই উপকূলীয় এবং সামুদ্রিক মৎস্য প্রকল্পের ফলে ২০২৩ সালের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বৈধ নিবন্ধন এবং লাইসেন্স সহ কারিগর জাহাজের সংখ্যা পাঁচগুণ বেশি বেড়ে ৮,২৪৭ তে দাঁড়িয়েছে।

এশিয়ার বৃহত্তম এবং বিশ্বের সবচেয়ে জনবহুল ব-দ্বীপের কেন্দ্রস্থলে, বাংলাদেশের বিস্তৃত সামুদ্রিক অঞ্চল বঙ্গোপসাগরে ১১৮,০০০ বর্গ কিলোমিটারের বেশি জায়গা জুড়ে বিস্তৃত। এই বিশাল সামুদ্রিক অঞ্চল থাকা সত্ত্বেও, যা প্রায় ২,২০০ মিটার গভীরতায় পৌঁছাতে পারে। মৎস্য সম্পদের ব্যবহার বর্তমানে প্রায় ৮০ মিটারের অগভীর গভীরতায় সীমাবদ্ধ। এটি বাংলাদেশের সীমিত অর্থনৈতিক অঞ্চলের প্রায় এক-তৃতীয়াংশ।

বাংলাদেশের সামুদ্রিক খাত তার উপকূলীয় এবং সামুদ্রিক মৎস্য সম্পদের উন্নয়নের জন্য অপার সম্ভাবনা নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে। কিন্তু খাতটি উল্লেখযোগ্য চ্যালেঞ্জের সম্মুখীন, যার মধ্যে অতিরিক্ত মাছ ধরা, ডিমওয়ালা মাছ শিকার এবং অবৈধ ফিশিং। এই কারণগুলি মাছের মজুদের আরও ক্ষয় পাশাপাশি সামুদ্রিক বাস্তুতন্ত্রের অবক্ষয় ঘটায়।

বিশ্বব্যাংকের ভূমিকা:

বিশ্বব্যাংকের সহায়তায় টেকসই উপকূলীয় ও সামুদ্রিক মৎস্য প্রকল্প বাংলাদেশে মৎস্য ব্যবস্থাপনার উন্নতি, মেরিকালচার সম্প্রসারণ এবং জলজ চাষের জৈব নিরাপত্তা ও উৎপাদনশীলতা জোরদার করতে সহায়তা করছে। প্রকল্পটি মাছ ধরার জন্য জাহাজের নিবন্ধন এবং লাইসেন্সিং পাঁচগুণ বৃদ্ধি করতে সাহায্য করেছে, ২০২৩ সালের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বৈধ নিবন্ধন ও লাইসেন্স সহ কারিগরী জাহাজের সংখ্যা ৮,২৪৭-এ বৃদ্ধি পেয়েছে। ফলে জেলে সম্প্রদায়, তাদের সম্পূরক এবং বিকল্প জীবিকা গ্রহণ করতে সক্ষম হচ্ছে।

সম্প্রতি, বাংলাদেশ উপকূলীয় অঞ্চল এবং সমুদ্রে মৎস্য সম্পদের টেকসই উন্নত করার জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ নিয়েছে। এটি একটি মনিটরিং সিস্টেম, একটি জয়েন্ট মনিটরিং সেল (JMC), এবং JMC সমন্বয় কমিটি (JMCCC) প্রতিষ্ঠা করেছে যাতে টেকসই মৎস্য চাষ নিশ্চিত করার জন্য বিশেষজ্ঞ এবং অবকাঠামো অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। JMC 13টি পাবলিক এজেন্সির একটি আইনি কনসোর্টিয়াম। জেএমসি এবং জেএমসিসিসি বেআইনি, অপ্রতিবেদিত, এবং অনিয়ন্ত্রিত মাছ ধরা কমাতে গুরুত্বপূর্ণ হবে। জেএমসি মাছ ধরার জাহাজের কার্যক্রমের উপর রিয়েল-টাইম মনিটরিং প্রদান করবে, যা বাংলাদেশের জলজ জৈবিক স্টক এবং সামুদ্রিক ইকোসিস্টেম সংরক্ষণ এবং ধ্বংসাত্মক মাছ ধরার অনুশীলন হ্রাস করার জন্য ব্যবহার করা হবে।

গভীর সমূদ্রে মাছ ধরছে জেলেরা

চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি:

মৎস্য অধিদপ্তরের (DoF) সূত্রে জানা যায়, এই শিল্প ২০২২ সালে সামগ্রিক জিডিপিতে ২.০৮ শতাংশ এবং কৃষি জিডিপিতে ২১.৮৩ শতাংশ অবদান রেখেছে।

২০২৩ সালের হিসাব মতে, সামুদ্রিক মাছ ধরার বহরে ২৩১টি সক্রিয় শিল্প বড় ট্রলার এবং প্রায় ৩০,০০০টি কারিগরী ছোট জাহাজ রয়েছে। তারা উপকূল বরাবর ২০০ টিরও বেশি অবতরণ/ঘাট সাইট থেকে কাজ করে। মাছ ধরার বহরের যথেষ্ট আকার থাকা সত্ত্বেও, বাংলাদেশের মহাদেশীয় শেলফ এলাকার প্রায় ১৪,৬০০ বর্গ কিমি (১২ শতাংশ) বাণিজ্যিকভাবে উল্লেখযোগ্য মাছ ধরার ক্ষেত্র, যাকে অতিরিক্ত হারে ব্যবহার করা হচ্ছে। কারিগর জাহাজগুলি সামুদ্রিক মাছ ধরার উপর আধিপত্য বিস্তার করে, সেট ব্যাগের/কারেন্ট জাল বিশেষ করে মা মাছ এবং পোনা মাছের জন্য ধ্বংসাত্মক।

ফিশারিজ ম্যানেজমেন্ট প্ল্যানগুলি (শিল্প বহর, কারিগর জাহাজ এবং সমুদ্রের পর্যবেক্ষণের জন্য) নির্দেশ করে যে বর্তমান কার্যক্রমগুলি ক্রমবর্ধমান অত্যধিক মাছ ধরার অনুমতি দেয় এবং কারিগর বহরের বৃদ্ধি রোধ করার সুপারিশ করে। সাম্প্রতিক মেরিন স্টক অ্যাসেসমেন্ট রিপোর্ট (DoF, 2024) বলে যে নীচের এলাকার ট্রলার এবং চিংড়ি ট্রলারগুলি চিংড়ির মজুদের অতিরিক্ত মাছ ধরাতে অবদান রাখে। গবেষণা বর্তমান মৎস্য শাসনের অধীনে অর্থনৈতিকভাবে উল্লেখযোগ্য চিংড়ির স্টক পুনরুদ্ধারের অক্ষমতা সহ সমস্যাজনক প্রবণতাগুলিকে উল্লেখযোগ্য ভাবে সামনে আনে।

এই ক্ষতিকর এবং টেকসই মাছ ধরার অভ্যাস জনসংখ্যার খাদ্য নিরাপত্তা এবং তাদের জীবিকাকে হুমকির মুখে ফেলে।

জয়েন্ট মনিটরিং সেল: সমূদ্রের অভিভাবক

বর্তমানে দেশের জলসীমার সম্ভাবনা উপলব্ধি করে বাংলাদেশ সরকার মৎস্য খাতকে রূপান্তরিত করার উপায় অনুসন্ধান করছে। এই দিকে একটি বিশাল পদক্ষেপ একটি বহু- নজরদারি পাওয়ার হাউস – জেএমসি প্রতিষ্ঠা করছে।

জেএমসি একটি অনন্য প্রশাসনিক কাঠামো যা বিভিন্ন সরকারি সংস্থাকে একত্রিত করে যেমন- ডিওএফ, বাংলাদেশ নৌবাহিনী, বাংলাদেশ কোস্ট গার্ড, মার্কেন্টাইল মেরিন অফিস, রিভার পুলিশ, মেরিটাইম অ্যাফেয়ার্স ইউনিট, বন্দর কর্তৃপক্ষ, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড, এবং চট্টগ্রাম, খুলনার বিভাগীয় কমিশনার এবং বরিশাল।  যাতে দেশের একচেটিয়া অর্থনৈতিক অঞ্চলের মধ্যে নজরদারি এবং নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করতে পারে।

যদিও এই সকল সংস্থাকে একত্রিত করে জেএমসি গঠন করা সহজ কাজ ছিল না। যেমন, জেএমসি প্রতিষ্ঠার অভিজ্ঞতা বর্ণনা করতে গিয়ে মৎস্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক জনাব সৈয়দ মোঃ আলমগীর তার অভিজ্ঞতার কথা জানান।

 “একমত পোষণ করা এবং JMC এর মত একটি অংশগ্রহণমূলক সংস্থা গঠন করা একটি জটিল এবং সময়সাপেক্ষ প্রক্রিয়া ছিল। যাইহোক, একটি অন্তর্ভুক্তিমূলক পদ্ধতি ছাড়া, উন্নয়ন প্রক্রিয়াগুলি টেকসই হয় না। জেএমসিও আলাদা নয়। এর মূল কাজটি হল অবৈধ এবং অনিয়ন্ত্রিত মাছ ধরা দূর করার জন্য সমুদ্রসম্পর্কিত সমস্ত স্টেকহোল্ডারদের যৌথ পর্যবেক্ষণ কার্যক্রমে জড়িত করা এবং সহযোগিতা করা।

-জনাব সৈয়দ মোঃ আলমগীর, মৎস্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক

সামুদ্রিক কার্যক্রমের জটিল ও বহুমুখী প্রকৃতির কারণে বঙ্গোপসাগরের দক্ষ ব্যবস্থাপনার জন্য JMC সদস্যদের সক্রিয় অংশগ্রহণ এবং কার্যকর সহযোগিতা অপরিহার্য।

 “আমরা জানি যে বিভিন্ন সংস্থার অনন্য দক্ষতা, গুণাবলী এবং বিচার বিভাগীয় কর্তৃত্ব রয়েছে। JMC এই সমস্ত শক্তি একই টেবিলে নিয়ে আসে। আমরা আশা করি সংস্থাগুলি এখন বাংলাদেশের সামুদ্রিক মৎস্য সম্পদের টেকসই ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করতে সম্পদ, জ্ঞান, দক্ষতা এবং প্রাতিষ্ঠানিক ক্ষমতা ভাগাভাগি করতে পারবে।

জনাব জিয়া হায়দার চৌধুরী, প্রকল্প পরিচালক, বাংলাদেশ টেকসই উপকূলীয় সামুদ্রিক মৎস্য প্রকল্প।

JMC-এর সহযোগিতামূলক পদ্ধতি এবং তথ্য-আদান-প্রদানের পদ্ধতিগুলি নিরাপত্তা ঝুঁকি এবং জরুরী পরিস্থিতিতে সময়মত প্রতিক্রিয়ার সুবিধার্থে সেট করা হয়েছে। তথ্য সংগ্রহ, বিশ্লেষণ এবং দ্বিবার্ষিক পর্যালোচনার মাধ্যমে, JMC সমুদ্রের পুনরাবৃত্তিমূলক ব্যবস্থাপনায় অবদান রাখে। সংগৃহীত ডেটাতে স্থানীয় এবং বিশ্বব্যাপী গবেষণায় খাওয়ানোর সম্ভাবনা রয়েছে যা মাছ ধরার অনুশীলনগুলিকে আরও ভালভাবে বোঝাবে।

জেএমসি মাছ ধরার জাহাজের গতিবিধি ট্র্যাক করতে, অননুমোদিত বা সন্দেহজনক কার্যকলাপ সনাক্ত করতে এবং লঙ্ঘনগুলি মোকাবেলায় ভেসেল মনিটরিং সিস্টেম, স্বয়ংক্রিয় সনাক্তকরণ সিস্টেম এবং মোবাইলের জন্য গ্লোবাল সিস্টেমের মতো উন্নত ট্র্যাকিং প্রযুক্তিতে সজ্জিত। তদ্ব্যতীত, এটি জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক আইনের সাথে সম্মতি কার্যকর করবে, একই সাথে দায়িত্বশীল সামুদ্রিক অনুশীলনের প্রচারের পাশাপাশি অনিশ্চিত আবহাওয়া এবং দুর্ঘটনায় জেলেদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করবে।

JMC, সামুদ্রিক মৎস্য আইন ২০২০ দ্বারা পরিচালিত এবং বিশ্বব্যাংকের বাংলাদেশ সাসটেইনেবল কোস্টাল অ্যান্ড মেরিন ফিশারিজ প্রকল্প দ্বারা সমর্থিত, বাংলাদেশের সামুদ্রিক সম্পদের একজন স্টুয়ার্ড।

টেকসই ভবিষ্যতের দিকে যাত্রা

যেহেতু বাংলাদেশ সামুদ্রিক সম্পদ ব্যবস্থাপনার জটিলতার সাথে মোকাবিলা করছে এবং জেএমসি একটি কৌশলগত প্রতিক্রিয়া হিসাবে দাঁড়িয়েছে। বাস্তবসম্মত সহযোগিতা, প্রযুক্তিগত একীকরণ, এবং টেকসইয়ের প্রতি অবিচল প্রতিশ্রুতির মাধ্যমে, JMC একটি ভবিষ্যতের দিকে একটি পথ নির্ধারণ করেছে যেখানে সামুদ্রিক সম্পদ সংরক্ষণ করা হয়, পরিবেশ সুরক্ষিত হয় এবং বাংলাদেশের সামুদ্রিক উত্তরাধিকার আগামী প্রজন্মের জন্য সুরক্ষিত থাকে।

বিশ্বব্যাংক সমর্থিত টেকসই উপকূলীয় ও সামুদ্রিক মৎস্য প্রকল্পের মাধ্যমে বাংলাদেশ উন্নত মৎস্য ব্যবস্থাপনা, সম্প্রসারিত মেরিকালচার এবং জলজ চাষের জৈব নিরাপত্তা ও উৎপাদনশীলতার দিকে এগিয়ে যাচ্ছে।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

kjhdf73kjhykjhuhf
© All rights reserved © 2024