মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪, ০৬:২৪ অপরাহ্ন

এমভি আবদুল্লাহ উদ্ধারে অগ্রগতি কতদূর ?

  • Update Time : বুধবার, ২৭ মার্চ, ২০২৪, ৬.২৭ পিএম

সারাক্ষণ ডেস্ক

সোমালি জলদস্যুরা ভারত মহাসাগরে বাংলাদেশের পতাকাবাহী জাহাজ এমভি আবদুল্লাহ ও তার ২৩ জন নাবিককে জিম্মি করার পর  ইতোমধ্যে দুই সপ্তাহ কেটে গেছে। জলদস্যুরা জাহাজের মালিকের সাথে যোগাযোগ করে এবং নাবিকদের সাথে তাদের পরিবারের সদস্যদের কথা বলতে দেয়। জাহাজটির মালিক ও কোম্পানির কর্মকর্তারা বলছেন, নাবিকদের ফিরিয়ে আনার জন্য জলদস্যুদের সঙ্গে আলোচনা এগিয়েছে যদিও তারা এখনো মুক্তিপণ দাবি করেনি।

জানা যায়,  প্রায় ১৩ বছর আগে যখন এই একই কোম্পানীর জাহাজ এমভি জাহান মনি জলদস্যুদের হাত থেকে মুক্ত হয়েছিল সেই পূর্ব অভিজ্ঞতার আলোকে কবির গ্রুপের মালিক এসআর শিপিং এখন এগিয়ে চলেছে। নাবিকদের স্বজনরা বলছেন, কোম্পানি তাদের আশ্বস্ত করেছে শীঘ্রই অক্ষত অবস্থায় নাবিকদের আনা হবে। তবে কবে নাগাদ তা সম্ভব হবে বলা মুশকিল।

এমভি আবদুল্লাহর চিফ অফিসার আতিক উল্লাহ খানের ভাই আসিফ খান বলেছেন: “আমরা সবাই আশা করি আমাদের প্রিয়জনরা ঈদুল ফিতরের [এপ্রিলের মাঝামাঝি] মধ্যে ফিরে আসবে। তবে এটি কিছুটা সময় নিতে পারে এবং আমাদের অবশ্যই ধৈর্য ধরতে হবে। আমরা শুধু চাই নাবিকরা যাতে অক্ষত অবস্থায় ফিরে আসে।” জব্দ করা জাহাজটি এখন জিফল উপকূল থেকে দেড় নটিক্যাল মাইল দূরে সোমালিয়ার পুন্টল্যান্ড প্রদেশের নুগাল অঞ্চলে নোঙর করে রাখা হয়েছে। অপারেশন আটলান্টার অধীনে ইউরোপীয় ইউনিয়ন নৌবাহিনীর (EUNAVFOR) একটি যুদ্ধজাহাজ কাছাকাছি মোতায়েন করা হয়েছে।

কেউ কেউ বিশ্বাস করেন যে জাহাজের সাথে নাবিকদের মুক্তি দ্রুত-ট্র্যাক করা যেতে পারে কারণ জলদস্যুরা পান্টল্যান্ড পুলিশ এবং ইইউ বাহিনীর জাহাজের চাপে রয়েছে। কবির গ্রুপের মুখপাত্র মিজানুল ইসলাম জানান, নাবিকদের ফিরিয়ে আনার প্রচেষ্টার অংশ হিসেবে তৃতীয় পক্ষের মাধ্যমে জলদস্যুদের সঙ্গে আলোচনা শুরু হয়েছে।

তিনি বলেন, জাহাজটি ও এর ক্রুদের উদ্ধারের জন্য কোম্পানি সব ধরনের চেষ্টা করছে। এর আগে সোমালি জলদস্যুরা ২৫ জন নাবিক ও ক্যাপ্টেনের স্ত্রীসহ কোম্পানির জাহাজ এমভি জাহান মনিকে আটক করে। জলদস্যুরা কোম্পানির সঙ্গে দর কষাকষির পর জিম্মি ও জাহাজটিকে মুক্তিপণ দিয়ে মুক্ত করে। মানুষকে ফিরিয়ে আনতে ১০০ দিন লেগেছে।

কবির গ্রুপ এবার তৃতীয় পক্ষের মাধ্যমে জলদস্যুদের কাছে পৌঁছেছে এবং আন্তর্জাতিক সংস্থা ও বীমা কোম্পানির সঙ্গে আলোচনা করেছে। অভিজ্ঞ নাবিকরা বিশ্বাস করেন যে উদ্ধার অভিযান সহজ হবে কারণ মালিক একই রকম পরিস্থিতির মুখোমুখি হয়েছিল।

মালিকের অতীত অভিজ্ঞতার আলোকে জিম্মিদের উদ্ধার করা অনেক সহজ হবে,” বলেছেন বাংলাদেশ মার্চেন্ট মেরিন অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আনাম চৌধুরী। এমভি জাহান মনিকে আটক করার সময় পরিস্থিতি উপযুক্ত ছিল না কিন্তু এখন পরিস্থিতি কিছুটা ভিন্ন বলে জানান তিনি।

সেই সময়ে জলদস্যুদের মুক্ত করতে অনেক সময় লেগেছিল কারণ জলদস্যুরা খুব ব্যস্ত ছিল, আনাম বলেছিলেন যে তারা ২০০৯ থেকে ২০১৫ এর মধ্যে ৩৫০ টিরও বেশি জাহাজ আটক করেছিল। জলদস্যুরা এখন যা পাবে তাই পাবে, কারণ তারা চাপের মধ্যে রয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

kjhdf73kjhykjhuhf
© All rights reserved © 2024