সোমবার, ২২ জুলাই ২০২৪, ১১:৪৭ পূর্বাহ্ন

গর্ভনিরোধক ওষুধ : মস্তিষ্কে টিউমারের ঝুঁকি বাড়াতে পারে

  • Update Time : শুক্রবার, ২৯ মার্চ, ২০২৪, ৮.০০ পিএম

সারাক্ষণ ডেস্ক

 

নির্দিষ্ট কিছু প্রোজেস্টোজেন গর্ভনিরোধক শরীরের জন্য ক্ষতিকারক বলে ফরাসি গবেষকরা দাবি করছেন।

বিশ্বজুড়ে লক্ষ লক্ষ মহিলা যারা গর্ভনিরোধের জন্য নির্দিষ্ট হরমোন ওষুধ ব্যবহার করেন।  তাদের এন্ডোমেট্রিওসিসের মতো অবস্থার ঝুঁকি থাকে।

 

এতে মস্তিষ্কের টিউমার পর্যন্ত হতে পারে, গবেষকরা এমনটাই বলছেন।

বিজ্ঞানীরা দেখেছেন যে নির্দিষ্ট প্রোজেস্টোজেন ওষুধের দীর্ঘ মেয়াদী ব্যবহারে মেনিনজিওমার ঝুঁকি তৈরি হয়।  যা মস্তিষ্কের চারপাশের টিস্যুতে টিউমার (সাধারণত ক্যান্সারবিহীন) তৈরি হয় ।

 

কিন্তু এক বছরেরও বেশি সময় ধরে ওষুধ খাওয়া মহিলাদের মধ্যে বেশি মেনিনজিওমার ঝুঁকি  থাকে।

 

একজন বিশেষজ্ঞ বলেছেন, প্রোজেস্টোজেন প্রাকৃতিক হরমোন, প্রোজেস্টেরনের অনুরূপ।

মুষ্টিমেয় উচ্চ মাত্রার প্রোজেস্টোজেন মেনিনজিওমার ঝুঁকি বাড়ায়।

 

কিন্তু বিএমজে-তে প্রকাশিত সর্বশেষ গবেষণায় দেখা গেছে,  ফ্রান্সের ন্যাশনাল এজেন্সি ফর মেডিসিনের গবেষকরা হরমোনেরআরও আটটি স্বাস্থ্য পণ্যে স্বাস্থ্যের ঝুঁকি বাড়ায়।

তবে বেশিরভাগ মেনিনজিওমা সাধারণত ক্যান্সারযুক্ত নয় এবংধীরে ধীরে বড় হয়।

 

কিন্তু তারা মস্তিষ্কের ক্ষতি করতে পারে বলে প্রায়শই অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে তা অপসারণের প্রয়োজন হয়।

 

টিউমারগুলি খুব কমই প্রাণঘাতী। এতে অস্ত্রোপচারে ঝুঁকিও রয়েছে।

 

মস্তিষ্কের কাছাকাছি টিউমারগুলো হয়।

ফরাসি জাতীয় স্বাস্থ্যসেবা সিস্টেম থেকে ডেটা ব্যবহার করে, গবেষকরা ১৮,০৬১  জন নারীকে চিহ্নিত করেছেন। তাদের গড়বয়স ৫৮। যাদের ২০০৯  থেকে ২০১৮  এর মধ্যে ইন্ট্রাক্রানিয়াল মেনিনজিওমাস অপসারণে অস্ত্রোপচার করতে হয়েছিল।

 

গবেষকরা খুঁজে পেয়েছেন, দীর্ঘ ১২ মাসেরও বেশি সময় ব্যবহার করে – মানে – তিনটি প্রোজেস্টোজেন মেনিনজিওমার ঝুঁকি ছিল,যার জন্য   তাদের অস্ত্রোপচারের প্রয়োজন ছিল।

 

মেড্রোজেস্টোন এবং প্রমেজেস্টোন, মেনিনজিওমার দুটি ওষুধে যথাক্রমে ৪.১  এবং ২.৭ -গুণ বেশি ঝুঁকি থাকে।

 

মেড্রোক্সিপ্রোজেস্টেরন অ্যাসিটেট, ডেপো-প্রোভেরা হিসাবে বিক্রি হওয়া একটি গর্ভনিরোধক ইনজেকশন।  ৫.৬ -গুণ বেশি ঝুঁকি।

একটি বিবৃতিতে, ফাইজার, ডেপো-পোরভেরা প্রস্তুতকারক বলেছেন:  “আমরা প্রোজেস্টোজেনগুলির দীর্ঘমেয়াদী ব্যবহারের সাথেএই সম্ভাব্য ঝুঁকি সম্পর্কে সচেতন। এবং, নিয়ন্ত্রক সংস্থাগুলির সাথে সহযোগিতায়,  পণ্য লেবেল আপডেট করার প্রক্রিয়ারমধ্যে আছে।”

 

গবেষকরা হরমোনের নিরাপত্তা নিয়ে আরও গবেষণার আহ্বান জানিয়েছেন।  বিশেষ করে ইনজেকশনযোগ্যমেড্রোক্সিপ্রোজেস্টেরন অ্যাসিটেট। ইনজেকশনগুলি ইউকেতে খুব কমই ব্যবহৃত হয়।  বাকি ইউরোপেও।  কিন্তু বিশ্বব্যাপী ৭৪  মিলিয়ন নারী তা ব্যবহার করে।

 

যার অর্থ “অ্যাট্রিবিউটেবল মেনিনজিওমাসের সংখ্যা সম্ভাব্যআরো বেশি হতে পারে”,  জার্নালটির প্রতিবেদনে এমনটাই লেখা।

অধ্যাপক পল ফাঁরা,  একজন ক্যান্সার এপিডেমিওলজিস্ট। যিনি ক্যালিফোর্নিয়ার সিডারস-সিনাই হাসপাতালে একটি ল্যাবস্থাপনের আগে কেমব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ে হরমোন-সম্পর্কিত ক্যান্সার নিয়ে পড়াশুনা করতে ২০ বছর কাটিয়েছিলেন ।

 

তিনি বলেন যুক্তরাজ্যে অনেক ধরনের প্রোজেস্টোজেন যারা সাধারণত ব্যবহার করেন তাদের  মেনিনজিওমার সাথে কোনোসম্পর্ক পাওয়া যায়নি।

“সাধারণত জন্মনিয়ন্ত্রণ বড়ি বা হরমোন প্রতিস্থাপন থেরাপি গ্রহণকারী মহিলাদের মেনিনজিওমার ঝুঁকি বাড়ায় না,”

 

ফারাঁ এর মতে, “এটি অনেক গুরুত্বপূর্ণ যে মহিলারা তাদের ডাক্তারের সাথে পরামর্শ না করে জন্মনিয়ন্ত্রণ বড়ি ব্যবহার বন্ধ করবেন না।”

 

এক বছরের বেশি সময় ধরে মেড্রোক্সিপ্রোজেস্টেরন অ্যাসিটেট ব্যবহার করে ঝুঁকি প্রায় পাঁচগুণ বেড়ে যায়। বিএমজে গবেষণারপরামর্শ অনুযায়ী,  এই সংখ্যা প্রতি হাজারে ২০ জনে উঠবে।“

 

ফাঁরা বলেন, মেনিনজিওমার ঝুঁকি খুবই কম,”

“যদি আমি বর্তমানে একটি দীর্ঘ ইনজেকশনযোগ্য গর্ভনিরোধকের সুবিধার কারণে ডেপো-প্রোভেরা ব্যবহার করতাম তবে আমিতা চালিয়ে যাব।

 

সংক্ষেপে,ডেপো-প্রোভারার বর্তমান বা পূর্ববর্তী ব্যবহারকারীদের তাদের মেনিনজিওমার ঝুঁকি নিয়ে চিন্তা করার দরকার নেই।”

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

kjhdf73kjhykjhuhf
© All rights reserved © 2024