সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০২৪, ১১:০১ অপরাহ্ন
শিরোনাম :

বাইডেন-শি জিনপিং ফোনালাপ: টিকটক,তাইওয়ান এবং এআই বিষয়ে গুরুত্ব

  • Update Time : বুধবার, ৩ এপ্রিল, ২০২৪, ৫.০১ পিএম

সারাক্ষণ ডেস্ক

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন ও চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং প্রায় দুই ঘন্টা ফোনে আলোচনা করেছেন।তারা টিকটকের মালিকানা, দক্ষিণ চীন সাগরে উত্তেজনা, এআই  প্রযুক্তি এবং চীনের বিরুদ্ধে মার্কিন নিষেধাজ্ঞাগুলোসহ বিভিন্ন বিষয়ে কথা বলেছেন। ২০২২ সালের জুলাইয়ের পর এই প্রথম দুই নেতা টেলিফোনে কথা বললেন। তবে একসঙ্গে দুটি মুখোমুখি বৈঠক করেছেন-২০২২সালের নভেম্বরে ইন্দোনেশিয়ার বালিতে এবং ২০২৩ সালের নভেম্বরে ক্যালিফোর্নিয়ায়।

 

হোয়াইট হাউসের জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদের মুখপাত্র জন কিরবি ফোনালাপের পর সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমরা বিশ্বাস করি  এই জটিল এবং উত্তেজনাপূর্ণ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে কার্যকরভাবে পরিচালনা করার জন্য শীর্ষ নেতা পর্যায়ে নিয়মিত যোগাযোগের কোনও বিকল্প নেই।

 

 

 

কিরবি স্বীকার করেছেন যে সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাপ টিকটকসহ নানা বিষয়ে প্রায় এক ঘন্টা ৪৫ মিনিটের বেশি সময় তারা আলোচনা করেছেন। টিকটক বিষয়ে হাউস অফ রিপ্রেজেন্টেটিভসে পাস হওয়া একটি বিল কিন্তু সিনেটে মুলতুবি রয়েছে। যার লক্ষ্য টিকটককে হয় চীনা প্যারেন্ট বাইটড্যান্সের সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করতে হবে  বা যুক্তরাষ্ট্রে কাজ করা থেকে নিষিদ্ধ করতে বাধ্য করা। বাইডেন বলেছেন, বিলটি কংগ্রেসে পাস হলে তিনি আইনে স্বাক্ষর করবেন। বাইডেন প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং কে স্পষ্ট করে দিয়েছেন যে, এটি অ্যাপটি নিষিদ্ধ করা নয়, বরং বিক্রি করার বিষয়ে আমাদের আগ্রহের রয়েছে। যাতে জাতীয় নিরাপত্তা স্বার্থ এবং আমেরিকার জনগণের তথ্যের নিরাপত্তা রক্ষা করা যায়।

 

হোয়াইট হাউসের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, বাইডেন তাইওয়ান প্রণালী জুড়ে শান্তি ও স্থিতিশীলতা বজায় রাখার পাশাপাশি দক্ষিণ চীন সাগরে আইনের শাসন ও নৌ চলাচলের স্বাধীনতার গুরুত্বের উপর জোর দিয়েছেন। তবে বাইডেন সম্ভবত ত্রিপক্ষীয় শীর্ষ সম্মেলনের সময় শি সম্পর্কে তার পর্যবেক্ষণগুলো ভাগ করে নেবেন। শি “হংকং সম্পর্কিত বিষয়, মানবাধিকার, দক্ষিণ চীন সাগর এবং অন্যান্য বিষয়ে চীনের অবস্থানও উল্লেখ করেছেন”।

 

বাইডেন জাপানের প্রধানমন্ত্রী ফুমিও কিশিদাকে ওয়াশিংটনে সরকারি সফরের জন্য আমন্ত্রণ জানানোর এক সপ্তাহ আগে এই ফোনালাপ হলো। আগামী সপ্তাহে ফিলিপাইনের প্রেসিডেন্ট ফার্দিনান্দ মার্কোস জুনিয়র প্রথম যুক্তরাষ্ট্র.-জাপান-ফিলিপাইনস ত্রিপক্ষীয় শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দেবেন।

চীনের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা সিনহুয়ার থেকে জানা যায়, শি এই দৃষ্টিভঙ্গির বিরোধিতা করেছেন। যুক্তরাষ্ট্র চীনের বাণিজ্য ও প্রযুক্তি উন্নয়ন দমন করার জন্য পদক্ষেপের একটি স্ট্রিং গ্রহণ করেছে এবং তার নিষেধাজ্ঞার তালিকায় আরও বেশি সংখ্যক চীনা প্রযুক্তি যুক্ত করছে। শি বলেন, ‘এটি’ ডি-রিস্কিং “নয়, বরং ঝুঁকি তৈরি করছে।

 

ফোনালাপের আগে হোয়াইট হাউসের একজন প্রবীণ কর্মকর্তা সাংবাদিকদের বলেছিলেন যে, এই  ফোনালাপটি ক্যালিফোর্নিয়ার শীর্ষ সম্মেলনে অগ্রগতি সম্পর্কে একটি “চেক-ইন” হবে। যেখানে নেতারা মাদকবিরোধী, সামরিক সংলাপ এবং কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার বিষয়ে সহযোগিতা করতে সম্মত হয়েছেন।

 

সিনহুয়ার জানায়, দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক “স্থিতিশীল হতে শুরু করেছে” বলে শি স্বাগত জানিয়েছেন। তবে “সম্পর্কের নেতিবাচক কারণগুলোও বাড়ছে” এবং এর জন্য উভয় পক্ষের মনোযোগ প্রয়োজন। কয়েক সপ্তাহ ধরে চলা কূটনৈতিক উদ্যোগের পরিপ্রেক্ষিতে চলতি সপ্তাহে চীন সফরে যাচ্ছেন মার্কিন অর্থমন্ত্রী জেনেট ইয়েলেন। কয়েক সপ্তাহের মধ্যে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেনের চীন সফর করার কথা রয়েছে।

 

মাদকবিরোধী বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তা বলেন যে, নভেম্বরের শীর্ষ সম্মেলনের পর থেকে চীন অবৈধ সিন্থেটিক ড্রাগ উৎপাদনে ব্যবহার করা রাসায়নিকের প্রবাহকে সীমাবদ্ধ করেছে। একই সাথে “কিছু প্রাথমিক ব্যবস্থা” বাস্তবায়ন করেছে। ও’তবে, অবশ্যই, মাদকের ব্যবসা ক্রমাগত বিবর্তিত ও পরিবর্তিত হচ্ছে। ” এই বাণিজ্য প্রবাহকে ব্যাহত করছি তা নিশ্চিত করার জন্য যুক্তরাষ্ট্র এবং চীনকে, প্রযুক্তিগত পর্যায়ে এবং আইন প্রয়োগকারীদের সাথে পরামর্শ বজায় রাখতে হবে। তাহলে প্রকৃতপক্ষে আইন প্রয়োগকারী পদক্ষেপটি কার্যকর হবে।”

 

 

 

 

 

সামরিক সংলাপের বিষয়ে, উভয় পক্ষ এই সপ্তাহে হনোলুলুতে মিলিটারি মেরিটাইম কনসালটেটিভ এগ্রিমেন্ট টকস নামে একটি অপারেশনাল নিরাপত্তা সংলাপ পুনরায় শুরু করতে রাজি হয়েছে। সামরিক সংলাপ পুনরুদ্ধারের জন্য এটি হবে তৃতীয় পদক্ষেপ।

হোয়াইট হাউসের ওই কর্মকর্তা সাংবাদিকদের বলেন, উভয় পক্ষ তাদের প্রতিরক্ষা সচিবদের মধ্যে আলোচনা বজায় রাখবে। কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার বিষয়ে ওই কর্মকর্তা বলেন, যুক্তরাষ্ট্র এবং চীন আগামী কয়েক সপ্তাহের মধ্যে একটি সংলাপ করবে। যার লক্ষ্য উন্নত ধরনের এআই’র ঝুঁকি এবং নিরাপত্তা চ্যালেঞ্জগুলো পরিচালনা করা।

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

kjhdf73kjhykjhuhf
© All rights reserved © 2024