শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ০৩:৫৭ অপরাহ্ন

বাসায় পণ্য ডেলিভারি দেবে ড্রোন

  • Update Time : রবিবার, ৭ এপ্রিল, ২০২৪, ৫.৪১ পিএম

অদূর ভবিষ্যতে, কাছাকাছি কোনও, শহর বা এমনকি প্রত্যন্ত গ্রামে, কোনও অ্যাপে চাপ দিলেই ৩০ মিনিটেরও কম সময়ের মধ্যে আপনার দোরগোড়ায় অন-ডিমান্ড ড্রোন ডেলিভারি পাওয়া যাবে। রাতের খাবারের আগে ফাস্টফুড খেতো ইচ্ছে  হলে তখন আর সরাসরি দোকানে যেতে হবে না। বা এমন হতে পারে কোন কিছু কিনে আনতে ভুলে গেলেন, তখন সরাসরি দোকানে যেতে হবে না। আপনার করা অর্ডার সরাসরি আপনার বাসায় পৌঁছে দেবে ড্রোন! শুধু খাবার নয়, ড্রোনআপের মাধ্যেমে প্রয়োজনের সময় ওযুধও পাওয়া যাবে ।

 

আমেরিকায় খুচরো পর্যায়েও ড্রোন সরবরাহ শুরু হয়েছে।  ড্রোনআপ, জিপলাইন এবং উইং এর মতো তিনটি বৃহত্তম ড্রোন ডেলিভারি সংস্থার মাধ্যমে শুরু হয়েছে খুচরো পর্যায়ের কাজ । হাজার হাজার মানুষ ইতিমধ্যেই দুপুরের খাবার, উপহার এবং দ্রুত প্রতিস্থাপন লাইট বাল্ব থেকে শুরু করে ড্রোন-এর মাধ্যমে টিকা এবং প্রেসক্রিপশন পর্যন্ত সবকিছু পাচ্ছে। সাম্প্রতিক ফেডারেল এভিয়েশন প্রশাসনের ছাড়পত্র ইতিমধ্যেই এই শিল্পকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে। ড্রোনআপের সিইও টম ওয়াকার বলেন, “এই মুহূর্তে, আমরা আমেরিকার সাতটি রাজ্যের প্রায় ৪ মিলিয়ন মানুষের কাছে পৌঁছেছি। এটি খুব দ্রুতগতি বাড়েছে।’’

 

আরকানসাসের রজার্সে বসবাসকারী দুই সন্তানের মা সিন্ডি স্যান্ডার্স।  তিনি এমন একজন ব্যক্তি যিনি ইতিমধ্যেই ড্রোন ডেলিভারি ব্যবহার করেছেন। তিনি বলেন, ‘‘২০২২ সালের নভেম্বরে তার স্থানীয় ওয়ালমার্টে শুরু হওয়ার পর থেকে ড্রোনআপ তার দরজায় ১০০টিরও বেশি ডেলিভারি করেছে। এটা খুব সুবিধাজনক। এটি একটি অসাধারণ সেবা। আমাদের যা প্রয়োজন তা সত্যিই দুর্দান্ত উপায়ে পাওয়ার এটি একটি চমৎকার মাধ্যম। ”

তিনি বিশ্বাস করেন যে , এই ধরনের পরিষেবা আরো বাড়বে।

 

 

 

সম্পূর্ণ স্বয়ংক্রিয় ড্রোন ডেলিভারি কী

 

ড্রোনআপ নতুন স্বায়ত্তশাসিত সরবরাহ ব্যবস্থা চালু করেছে। ওয়াকারের মতে, ড্রোনআপ  “বিশ্বের প্রথম সম্পূর্ণ স্বয়ংক্রিয়, এন্ড-টু-এন্ড ড্রোন ডেলিভারি সিস্টেম” চালু করেছে। ভার্জিনিয়ায় কোম্পানির সদর দফতরে জনতার উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, “এই ব্যবস্থায় আপনি যা চান এবং যা প্রয়োজন তা পাবেন। দুই বা তিন দিনের মধ্যে নয়, এমনকি দুই বা তিন ঘন্টার মধ্যেও নয়, বরং ৩০ মিনিটেরও কম সময়ের মধ্যে তা আপনার কাছে চলে আসবে।’’

সাধারণত, এই কাজটি করতে চালকসহ অনেক লোকের প্রয়োজন হয়। কিন্তু প্রযুক্তি চাহিদার এই যুগে ই-কমার্স যেমন আকাশ ছোঁয়া অব্যাহত রেখেছে তেমনি ট্রাক বা গাড়ির একটি বিশাল বহর পুরো মানচিত্রে মানুষের কাছে ছোট প্যাকেজ সরবরাহ করছে।

লজিস্টিক বিশেষজ্ঞরা বলছেন যে, ডেলিভারি-সম্পর্কিত দুর্ঘটনা এবং রান-ডাউন পরিকাঠামো বৃদ্ধির কারণে গ্রাউন্ড ডেলিভারি কিছুটা বেশি খরচের। এটি পরিবেশের জন্যও খারাপ এবং ক্রমবর্ধমান চাহিদা মেটাতে  এখনো পুরো সক্ষম নয়। গত বছর, ইউপিএস এবং অ্যামাজন ১.৫ বিলিয়নেরও বেশি প্যাকেজ সরবরাহ করেছিল। যা প্রতিদিন ১.৫ মিলিয়নেরও বেশি ট্রাক বহন করে। এই প্যাকেজগুলোর বেশিরভাগই খরচ ৫ পাউন্ডের কম ছিল।

“গত বছর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রসব সংক্রান্ত দুর্ঘটনায় প্রায় ৬ হাজার লোক মারা গিয়েছিল এবং আরও দেড় লাখ মানুষ আহত হয়েছিল। আমাদের একটি বার্ধক্যজনিত এবং ভেঙে পড়া পরিকাঠামো রয়েছে। যেখানে আমেরিকার প্রতি ৫ মাইলের মধ্যে একটি সড়কপথকে খারাপ অবস্থা হিসেবে বিবেচনা করা হয়। ওয়াকার আশা করেন যে, ড্রোনআপের নতুন “লাস্ট মাইল ইকোসিস্টেম” সেই সমস্যাগুলোর সমাধান করবে।

ওয়াকার  এ বিষয়ে বলেন, এটি একটি নতুন হাই-টেক প্যাকেজ কিয়স্ক দিয়ে শুরু করে যাকে তারা “ডিবিএক্স হাব” বলে। হাবটি দেখতে বড় পোর্টেবল এটিএম বা হাই-টেক ড্রাইভ-থ্রু কফি কিয়স্কের মতো। (আমি এটাকে “ড্রোন কিয়স্ক থিঙ্গি” বলতে চাই।) আমি যে সংস্করণগুলি দেখেছি সেগুলো পার্কিং স্পেসের চেয়ে ছোট। এগুলো যে কোনও আকার, কনফিগারেশন এবং আকার তৈরি করতে পারে। ধারণাটি হলো- এটি একটি ড্রাইভ-থ্রু উইন্ডোর পাশে, ছাদে বা কলেজ ক্যাম্পাসের মতো জনপ্রিয় পিক-আপ এবং ড্রপ অফ অবস্থানে স্থাপন করা। এর জন্য শুধু প্রযুক্তির সক্ষমতার প্রয়োজন।এটি সম্পূর্ণরূপে স্বয়ংসম্পূর্ণ।”

 

 

 

এই প্রযুক্তি যেভাবে কাজ করে

 

আপনি একটি অনলাইন অর্ডার করবেন। অর্ডার করার পর সেটি ঠিক  অনলাইন দোকানের মতোই তা আপনার কাছে পৌঁছে যাবে। একজন কর্মী আপনার জিনিসপত্র ধরে, বাক্স করে, একটি ছোট বারকোড সংযুক্ত করে এবং তাপমাত্রা-নিয়ন্ত্রিত কেন্দ্রের ভিতরে সেট করে দেয়।

লকারের রোবোটিক সরঞ্জামলো প্যাকেজের ওজন করে। তারপরে এটি একটি অপেক্ষমান ড্রোনে পাঠায়। ড্রোনটি টিথারের মাধ্যমে বাক্সটি সংযুক্ত করে এবং গতি বাড়ায়। প্রায় ৩০০ ফুট উঁচুতে উড়ে যায় যতক্ষণ না এটি আপনার বাড়িতে পৌঁছায়। প্রায় ৯০ ফুট থেকে আস্তে আস্তে আপনার জিনিসগুলি নামিয়ে দেয়।

 

 

ওয়াকার বলেন, ড্রোনের সেন্সরগুলো “জানে যে পথে কোনও বাধা আছে কিনা” এবং “গাছ, তার, মানুষ, পোষা প্রাণী, লনের আসবাবপত্র এবং এমনকি বারান্দায় লোকজন থেকে দূরে থাকতে পারে”। তিনি আরও যোগ করেছেন যে যদি কেউ এটি ধরে ফেলে, তবে অ্যালার্ম বাজবে।

নতুন হাবের শীর্ষে ড্রোন আসার এবং যাওয়ার জন্য একটি ল্যান্ডিং প্যাড এবং চার্জিং বেস রয়েছে। আর বিশেষ পরিকল্পনা হলো-  সবসময় ব্যাকআপ ড্রোন হাব রাখা হয়।  হাবগুলো স্বতন্ত্র স্টোরেজ লকার বা বিদ্যমান খুচরো বিক্রেতাদের স্বয়ংক্রিয় এক্সটেনশন হিসাবেও কাজ করতে পারে।

 

সেক্ষেত্রে, আপনি আপনার ফার্মেসী থেকে প্রেসক্রিপশনের মতো কিছু অর্ডার করতে পারেন । তারপর বাড়িতে ডেলিভারির জন্য অপেক্ষা করার পরিবর্তে কলেজ ক্যাম্পাসের বা আপনার অফিসের কাছাকাছি কোনও একটি হাব থেকে তা নিতে পারেন।

এই পদ্ধতিকে সম্পূর্ণ করার জন্য দুটি নতুন ড্রোন মডেল তৈরি করা হয়েছে। যার মধ্যে একটি স্বল্প-পরিসীমার। একটি হলো  ১০ পাউন্ড পর্যন্ত প্যাকেজ বহন করতে পারে এবং অন্যটি ৬০ মাইল পর্যন্ত বৃত্তাকার ভ্রমণ করতে পারে। ড্রোনআপ একটি নতুন “উচ্চ সহনশীলতার মডেল” প্রদর্শন করেছে।  যা আরও ওজন বহন করতে পারে এবং প্রায় ১০০ মাইল ভ্রমণ করতে পারে।

 

 

কোথায় ব্যবহার শুরু হয়েছে

ওয়াকার বলেন, যে উভয় মডেলই “আপনার রেফ্রিজারেটরের মতো শব্দ করে।” ড্রোনআপের নতুন ঘোষিত ড্রোন-ডেলিভারি ইকোসিস্টেমটি ইতিমধ্যে টেক্সাসের গারল্যান্ডে ব্যবহৃত হচ্ছে। ডালাস শহরের কেন্দ্রস্থলের প্রায় ১৫ মাইল উত্তর-পূর্বে একটি বিস্তৃত শহরতলিতে এবং প্রায় এক চতুর্থাংশ মিলিয়ন মানুষের বাসস্থান। ওয়াকার আশা করে যে, আরও বেশি অঞ্চল এবং খুচরা বিক্রেতারা নতুন পদ্ধতি “আগামী সপ্তাহের মধ্যে” চালু করবে।

 

 

ড্রোনআপ কমপক্ষে তিনটি মার্কিন-ভিত্তিক সংস্থার মধ্যে একটি-জিপলাইন এবং উইং সহ-যা ওয়ালমার্ট, চিক-ফিল-এ, সুইটগ্রিন এবং ওয়েন্ডির মতো ফাস্ট ফুড রেস্তোঁরাগুলো এবং টেক্সাস, আরকানসাস, ফ্লোরিডা এবং ভার্জিনিয়াসহ বেশ কয়েকটি রাজ্যে স্বাস্থ্য ক্লিনিকগুলোতে বিতরণ করে।

 

 

ড্রোনআপের সাফল্য

 

সিলিকন ভ্যালি ডার্লিং জিপলাইন-যার মূল্য সম্প্রতি ৪.২ বিলিয়ন ডলার এবং ফাস্ট কো-এর “২০২৪ সালের সবচেয়ে উদ্ভাবনী সংস্থাগুলোর” তালিকায় ৩৬ নম্বরে রয়েছে। তাদের ওয়েবসাইটের হোমপেজে  একটি ভিডিও রয়েছে, সেখানে সংস্থাটি বলেছে যে এই মুহূর্তে ক্যালিফোর্নিয়াতেও “সক্রিয় পরীক্ষা” চলছে।

গত বছরের মার্চ মাসে যখন এটি ধারণাটি ঘোষণা করেছিল, তখন জিপলাইন ব্যাখ্যা করেছিল যে এতে একটি চার্জিং স্টেশন এবং ডক রয়েছে যা একটি বিল্ডিংয়ের পাশে সংযুক্ত হতে পারে।  পুরো প্রক্রিয়াটি স্বয়ংক্রিয় করতে সহায়তা করবে। জিপলাইন তার সর্বশেষ প্রযুক্তিকে “প্ল্যাটফর্ম ২” সিস্টেম বলে অভিহিত করেছে। এটি ১০ মাইল ব্যাসার্ধের মধ্যে আট পাউন্ড পর্যন্ত বহন করতে পারে এবং একটি জুতার বাক্সের আকারের জায়গায় একটি প্যাকেজ নামাতে পারে।

 

 

 

জিপলাইনের আমেরিকার অপারেশনস-এর প্রধান জেফ উইলিয়ামস টেক্সট বার্তার মাধ্যমে লিখেছেন, “আমরা আশা করছি এই বছর আমেরিকায় প্ল্যাটফর্ম ২ চালু হবে এবং আগামী কয়েক বছরের মধ্যে টেক্সাস, ওয়াশিংটন, মিশিগান, ওহিও, আরকানসাস, পেনসিলভেনিয়া এবং উটাহ-এ লক্ষ লক্ষ মানুষকে সেবা দেবে।

উইং, যা গুগলের মূল অ্যালফাবেটের মালিকানাধীন একটি প্রতিষ্ঠান। একটি “উইং ডেলিভারি নেটওয়ার্ক”-এর জন্যও তার ধারণা দেখিয়েছে যা ড্রোন, টেকঅফ এবং ল্যান্ডিংয়ের জন্য নির্দিষ্ট প্যাড এবং “অটোলোডার” স্টেশনগুলির সমন্বয়ে গঠিত যেখানে শ্রমিকরা পিকআপ এবং ডেলিভারির জন্য অপেক্ষা করার জন্য প্যাকেজ রাখতে পারে।

উইং-এর সিইও অ্যাডাম উডওয়ার্থ ইউটিউবে পোস্ট করা একটি ভিডিওতে ব্যাখ্যা করেছেন, “কয়েক হাজার পাউন্ডের গাড়ি সহ তিন পাউন্ডের বাক্স বহন করার চেয়ে ১০ পাউন্ড (ড্রোন) সহ তিন পাউন্ডের বাক্স বহন করা অনেক বেশি যুক্তিসঙ্গত।

উইং শেয়ার করেছেন যে এটি “ডালাস ফোর্ট ওয়ার্থ এলাকার দুটি স্থানে প্রথম ছয় মাসে ওয়ালমার্ট গ্রাহকদের কাছে ৫ হাজার ডেলিভারি সম্পন্ন করেছে।”  তারা পুরো বছরে অন্যান্য অঞ্চলে ব্যবসা বাড়ানোর পরিকল্পনা করছে।

 

 

ড্রোন কি নিরাপদ?

 

 

জিপলাইন চারটি মহাদেশের আটটি দেশে কাজ করে এবং ১০ লাখেরও বেশি বাণিজ্যিক বিতরণ মাইলফলকে পৌঁছাতে চলছে।

 

 

 

সংস্থাটি বলছে,  এটি বিশ্বব্যাপী প্রতি ৭০ সেকেন্ডে একটি ডেলিভারি ড্রোন সম্পন্ন করতে পারবো। ড্রোনআপের ওয়াকারও তার কোম্পানির নিরাপত্তা রেকর্ডের কথা উল্লেখ করেছেন। তিনি বলেন, ‘আমরা এখন পর্যন্ত কয়েক লাখ ডেলিভারি করেছি। শুধু যুক্তরাষ্ট্রেই মাসে প্রায় ৬-৭ হাজার ডেলিভারি করেছি। কোন দুর্ঘটনা বা আঘাতের ঘটনা ঘটেনি। এফ. এ. এ-এর একজন মুখপাত্র নিশ্চিত করেছেন যে যুক্তরাষ্ট্রে  ড্রোন সরবরাহের ক্ষেত্রে “উল্লেখযোগ্য কোন দুর্ঘটনা” ঘটেনি।

 

আরকানসাসের ছোট শহর পিয়া রিজে বসবাসকারী ৪২ বছর বয়সী একজন মা সারাহ ক্লেটর। তিনি বলেন, ড্রোন ডেলিভারি  ছাড়া একদিনের কথাও আমি ভাবতে পারি না। তিনি বলেন, “যে জিনিসটি আমার সবচেয়ে বেশি পছন্দের তা হলো- যখনই আমার বাড়িতে কোনও অসুস্থ শিশু থাকে তখন সরাসরি আমার কাছে ওষুধ পৌঁছে যায়।

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

kjhdf73kjhykjhuhf
© All rights reserved © 2024