শনিবার, ২৫ মে ২০২৪, ০৫:২৫ পূর্বাহ্ন

থাইল্যান্ডকে আসিয়ানের পরিষেবা কেন্দ্র হিসেবে চায় নিউজিল্যান্ড বিমান প্রস্তুতকারক সংস্থা

  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ১৮ এপ্রিল, ২০২৪, ৬.৫৮ পিএম

সারাক্ষণ ডেস্ক

 

নিউজিল্যান্ড বিমান নির্মাতা এনজেডএয়ারো থাইল্যান্ডে তার রক্ষণাবেক্ষণ ও মেরামতের কার্যক্রম বাড়িয়ে তুলতে আগ্রহী। কারণ এটি দেশকে দক্ষিণ-পূর্ব এশীয় পরিষেবা কেন্দ্রে পরিণত করতে চাইছে।

প্রধান নির্বাহী স্টিফেন বুরোজ বলেন, “এনজেডএয়ারো পণ্যের প্রধান ক্রেতা হিসেবে থাইল্যান্ড একা দাঁড়িয়ে আছে। “থাইল্যান্ডে একটি পরিষেবা কেন্দ্র থাকা দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় বিমানকে সমর্থন করার জন্য একটি ভাল ঘাঁটি।”

 

রয়্যাল থাই এয়ার ফোর্সের সহায়তার জন্য নিউজিল্যান্ডের কোম্পানিটি চুক্তি স্বাক্ষর করেছে।

বুধবার (১৭ এপ্রিল) স্বাক্ষরিত একটি চুক্তি অনুযায়ী, রয়্যাল থাই এয়ার ফোর্সের প্রাথমিক রক্ষণাবেক্ষণ ও মেরামত প্রদানকারী থাই এভিয়েশন ইন্ডাস্ট্রিজকে (টিএআই) তার পাঁচটি মডেলকে সমর্থন করার জন্য এনজেডএরো প্রযুক্তিগত প্রশিক্ষণ প্রদান করবে। চুক্তিটি এনজেডএয়েরোর জন্য উপাদান এবং ভবিষ্যতের বিমান বিক্রির মাধ্যমে ৩৭ মিলিয়ন নিউজিল্যান্ড ডলার (২১.৯ মিলিয়ন ডলার) হবে।

১৯৭৪ সালে রয়্যাল থাই এয়ার ফোর্সের কাছে হ্যামিল্টন-ভিত্তিক সংস্থাটি ২৪ টি বিমানের প্রথম ব্যাচ বিক্রি করার পর থেকে থাইল্যান্ড এনজেডএয়েরোর আউটপুটের ১০% কিনেছে। এটি অস্ট্রেলিয়া এবং নিউজিল্যান্ডের বিমান বাহিনীকেও সরবরাহ করে।

 

এনজেডএয়ারোর নির্বাহীরা নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী ক্রিস্টোফার লুকসনের সাথে থাইল্যান্ডে একটি ব্যবসায়িক প্রতিনিধিদলের অংশ ছিলেন, যা ১১ বছরের মধ্যে কোনও কিউই নেতার প্রথম দেশ সফর। ২০১৪ সালে থাই সেনাবাহিনী একটি নির্বাচিত সরকারকে ক্ষমতাচ্যুত করার পর দেশগুলোর মধ্যে সম্পর্ক শীতল হয়ে যায়।

অস্ট্রেলিয়া, আমেরিকা এবং ইউরোপীয় দেশগুলো দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার সাথে অর্থনৈতিক ও কৌশলগত সম্পর্ক জোরদার করতে চায়। আর এমন পশ্চিমা দেশগুলো ২০২৩ সালের মে মাসে সাধারণ নির্বাচনের পর অভ্যুত্থানে নেতারা চলে যাওয়ায় থাইল্যান্ডের প্রতি উষ্ণ হয়ে উঠেছে।

লুকসন এবং থাই প্রধানমন্ত্রী শ্রেথা থাভিসিন, যারা দুজনেই গত বছরের শেষের দিকে দায়িত্ব গ্রহণ করেছিলেন। ২০২৬ সালের মধ্যে সম্পর্ককে কৌশলগত অংশীদারিত্বে উন্নীত করতে সম্মত হন। আন্তঃদেশীয় সংগঠিত অপরাধ, বিশেষত মানব ও মাদক পাচারের বিরুদ্ধে আন্তঃব্যবহারযোগ্যতা এবং সহযোগিতা বাড়ানোর জন্য এক দশক ধরে বরফ নিয়ে দ্বিপাক্ষিক প্রতিরক্ষা আলোচনা আগস্টে আবার শুরু হয়েছিল।

লুকসনের দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া সফরে সিঙ্গাপুর এবং ফিলিপাইনে এনজেডএয়ারো ব্যবসা সুরক্ষিত করতে চাইছে। কারণ ফিলিপাইনের বার্ষিক প্রতিরক্ষা বাজেট আগামী পাঁচ বছরে ৫০% বৃদ্ধি পাবে। সিঙ্গাপুরও আগামী বছর একইভাবে প্রতিরক্ষা ব্যয় রেকর্ড মাত্রায় বৃদ্ধি করবে।

বরোজ বলেন, এনজেডএয়েরোর বিমান দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার পার্বত্য অঞ্চলের সঙ্গে মানানসই। সংস্থাটি টার্বোপ্রপ বিমানের নয়টি বিশ্বব্যাপী নির্মাতাদের মধ্যে একটি। যার জন্য কম জ্বালানী এবং ছোট রানওয়ের প্রয়োজন হয় কারণ তারা জেট থ্রাস্ট এবং প্রপেলার দ্বারা চালিত হয়। কোম্পানির নতুন সুপারপ্যাক মডেলটি কৃষি, সামরিক নেতৃত্বাধীন মানবিক সহায়তা এবং জলবায়ু পরিবর্তন সমস্যা সমাধানে কাজ করবে, যেমন মেঘ-বীজ বপন এবং বন অগ্নিনির্বাপণের জন্য রূপান্তরিত করা যেতে পারে।

বরোজ বলেন, টিএআই-এর প্রশিক্ষণ ও সরবরাহ থাই বিমান সংস্থাটিকে এনজেডএয়ারো এবং অন্যান্য নির্মাতাদের কাছ থেকে আরও বিমান পরিষেবা দিতে সক্ষম করবে।

থাইল্যান্ডের বিনিয়োগ বোর্ড দেশের বেশিরভাগ অব্যবহৃত রক্ষণাবেক্ষণ, মেরামত এবং ওভারহল সেক্টরে বৃদ্ধির সুযোগ দেখছে। বিশেষত যখন থাইল্যান্ডকে একটি আঞ্চলিক বিমান পরিবহন কেন্দ্র হিসাবে গড়ে তোলার জন্য শ্রেথার পরিকল্পনার মধ্যে বাণিজ্যিক বিমান চলাচল বৃদ্ধি পায়। থাইল্যান্ডের পরিবহন মন্ত্রনালয় অনুমান করেছে যে, গত এক দশকে বাণিজ্যিক বিমান সংস্থাগুলো এশিয়া প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে এমআরওতে ১২ বিলিয়ন ডলার ব্যয় করেছে। যার ৬.৪% থাইল্যান্ডে লেনদেন হয়েছিল।

 

Please Share This Post in Your Social Media

More News Of This Category

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

kjhdf73kjhykjhuhf
© All rights reserved © 2024